সংসদে সংখ্যালঘু প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের আহ্বান

ঢাকা, রোববার   ১৯ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৬,   ১৪ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

সংসদে সংখ্যালঘু প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৬:০৯ ২ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৬:০৯ ২ ডিসেম্বর ২০১৮

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সংবাদ সম্মেলন

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সংবাদ সম্মেলন

সংসদে সংখ্যালঘুদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানান সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক রাণা দাসগুপ্ত।

এসময় তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন দল থেকে মনোনীত সংখ্যালঘু প্রার্থিদের ভোট দিয়ে পার্লামেন্টে সংখ্যালঘু প্রতিনিধিত্ব- নিশ্চিত করার জন্য দেশপ্রেমিক গণতন্ত্রমনা সর্বস্তরের জনগণ এগিয়ে আসবেন। দেশের ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর পক্ষে বছর খানেক আগ থেকে জনসংখ্যার আনুপাতিক হারে পার্লামেন্টে তাদের আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য এ দেশের সকল রাজনৈতিক দল ও জোটের কাছে দাবি জানিয়ে এসেছি। এ যাবত মনোনয়ন নিয়ে যে চিত্র পাওয়া যাচ্ছে তাতে অতীতের তুলনায় তা ইতিবাচক বলে মনে হচ্ছে। আমরা আজকের এ দিনে দেশের রাজনৈতিক দল ও জোটসমূহের যে দৃষ্টিভঙ্গি লক্ষ্য করছি তাকে স্বাগত জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, দেশের প্রধান সব রাজনৈতিক দল ও জোট তাদের মনোনীত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে। মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা থেকে দেখা যায়, আওয়ামী লীগ ২৬৪টি সংসদীয় আসনে ২৮১ জনকে প্রাথমিকভাবে মনোনয়ন দিয়েছে তার মধ্যে ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সংখ্যা ১৮। ১৪-দলীয় জোটের শরিক অন্য ১৩টি রাজনৈতিক দল থেকে কোন সংখ্যালঘুকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি। জাতীয় পার্টি প্রাথমিকভাবে ২৩৩ আসনের মধ্যে চারজন সংখ্যালঘুকে মনোনয়ন দিয়েছে। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি প্রাথমিকভাবে ১২ জনকে মনোনয়ন দিয়েছে। এছাড়া জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের অন্য শরিক দলগুলো থেকে তিনজনকে মনোনয় দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ১৯৯১ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত জনপ্রতিনিধি হয়েও যারা সংখ্যালঘু স্বার্থবিরোধী সাম্প্রদায়িক কর্মকান্ডে লিপ্ত ছিল, আমরা আশা করেছিলাম দলনির্বিশেষে ওইসব বিতর্কিত ব্যক্তিরা এবারে দল ও জোটের মনোনয়ন থেকে বাদ পড়বে। কিন্তু কেউ কেউ বাদ পড়লেও বিতর্কিতদের বেশির ভাগই আবার প্রার্থী হিসেবে একাধিক দল ও জোট থেকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। আমরা দেশবাসীকে বলতে চাই, এবারের সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার ও পার্লামেন্ট গঠনের দাবিতে আমরা যেমন সোচ্চার ঠিক তেমনি সোচ্চার রাজাকার, সাম্প্রদায়িক, স্বাধীনতাবিরোধী, সংখ্যালঘু নির্যাতনকারী ভূমিদস্যুদের কবল থেকে রক্ষায়।

নির্বাচনী ইশতেহারে বিভিন্ন দলের কাছে দাবি উত্থাপন করে ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, নির্বাচনের পূর্বাপর সম্ভাব্য সাম্প্রদায়িক সহিংসতাজনিত আপদকালীন পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত ও তাৎক্ষনিক পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। এবং একটি হেল্প লাইন চালু করা হয়েছে। যার নম্বর ৮৮০৯৬১২১০০৩০০।

সংবাদ সম্মেলনে, ‘ধর্মীয় রাষ্ট্র নয়, ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র চাই, সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার ও পার্লামেন্ট চাই, রাজাকার স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক সংখ্যালঘু- আদিবাসী নির্যাতনকারী ভূমিদস্যু কাউকে ভোট দেবেন না এবং ভোট দেবো না’ সংবলিত একটি মিনি পোস্টারও বিতরণ কর হয়।

সংগঠনের প্রেসিয়াম সদস্য ড. নিম চন্দ্র ভৌমিকের সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিন্দ্র কুমার নাথ, প্রেসিডিয়াম সদস্য বাসু দেব ধর, কাজল দেবনাথ, ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয় মহাথেরো, শ্রী মতি মঞ্জু ধর, শ্রী মতি জয়ন্তী রায়, পরিমল কুমার ভৌমিক প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস

Best Electronics