শ্রমিক কল্যাণ তহবিলে বাটা’র ৭৪ লাখ টাকা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৪ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪১

Akash

শ্রমিক কল্যাণ তহবিলে বাটা’র ৭৪ লাখ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৪৫ ১৯ মার্চ ২০২০  

সচিবালয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের কাছে বাটা সু কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক চিটপান কানহাসিরি কোম্পানির লভ্যাংশের নির্দিষ্ট টাকার চেক হস্তান্তর করেন- ডেইলি বাংলাদেশ

সচিবালয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের কাছে বাটা সু কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক চিটপান কানহাসিরি কোম্পানির লভ্যাংশের নির্দিষ্ট টাকার চেক হস্তান্তর করেন- ডেইলি বাংলাদেশ

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে গত এক বছরের লভ্যাংশের নির্দিষ্ট অংশের প্রায় ৭৪ লাখ টাকা জমা দিয়েছে বাটা সু কোম্পানি। 

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের কাছে বাটা সু কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক চিটপান কানহাসিরি কোম্পানির লভ্যাংশের নির্দিষ্ট টাকার চেক হস্তান্তর করেন।

বাটা সু কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড এ পর্যন্ত ৩ কোটি ৩৬ লাখ ২৭ হাজার টাকা তহবিলে প্রদান করেছে। এ কোম্পানিসহ দেশি-বিদেশি এবং বহুজাতিক মিলে ১৬৪টি কোম্পানি এ তহবিলে লভ্যাংশের নির্দিষ্ট অংশ নিয়মিত জমা প্রদান করে আসছে। 

আজ পর্যন্ত এ তহবিলে মোট জমার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চারশ’ ১০ কোটি টাকারও বেশি। 

বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী গঠিত বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে কোন কোম্পানি যাদের নিট মূলধন ২ কোটি টাকার বেশি সেসব কোম্পানি বছর শেষে লাভের ৫ শতাংশের এক দশমাংশ এ তহবিলে জমা দেয়ার বিধান রয়েছে।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের এ তহবিল হতে প্রাতিষ্ঠানিক অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়। এ তহবিল হতে শ্রমিকদের দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু, আহতদের চিকিৎসা, দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত শ্রমিক এবং শ্রমিকের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় সহায়তা প্রদান করা হয়।

চেক প্রদান অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং এ ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. মো. রেজাউল হক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায়, শ্রম অধিদফতরের মহাপরিচালক এ.কে.এম মিজানুর রহমান, বাটা সু কোম্পানির রিটেইল ডিরেক্টর অমিতাভ নন্দি, জেনারেল ম্যানেজার এইচআর মালিক মেহেদী কবির এবং হেড অব লিগ্যাল অ্যাফেয়ার্স রকিবুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএইচআর/এমআরকে