শিষ্যদের আগলে রাখলেন কোচ জেমি ডে

.ঢাকা, বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ১০ ১৪২৬,   ১৮ শা'বান ১৪৪০

শিষ্যদের আগলে রাখলেন কোচ জেমি ডে

 প্রকাশিত: ১৮:২৬ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৮:২৬ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জেমি ডে - ফাইল ফটো

জেমি ডে - ফাইল ফটো

সাফ সুজুকি কাপ ২০১৮ এর শুরুটা বেশ ভালোভাবেই করেছিল স্বাগতিক বাংলাদেশ। টানা দুই ম্যাচ জিতে সাফের সেমি ফাইনালে দিকে দারুণভাবে এগিয়ে ছিল তারা ।

শনিবার নেপালের বিপক্ষে ড্র করলেই ‘এ’ গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় পর্বের টিকিট কাটতো বাংলাদেশ। কিন্তু ২-০ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছে লাল-সবুজের দল। বাংলাদেশকে আঙুল দেখিয়ে সেমি ফাইনালে চলে গেছে পাকিস্তান ও নেপাল।

এজন্য সবার কাঠগড়ায় গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল। কিন্তু পুরো ম্যাচ নিয়ে জেমি ডে’র মন্তব্য কী? সংবাদ সম্মেলন জুড়ে শহীদুল ও অন্য শিষ্যদের আগলে রাখলেও শুরুতে হারের ব্যাখ্যা করলেন এভাবে, এটা অবশ্যই হতাশার। আমরা প্রথম দুই ম্যাচ জিতে গ্রুপের শীর্ষে ছিলাম। তারপরও কোয়ালিফাই করতে না পারাটা হতাশার। ওই ভাবে গোল হজম করাটা টিমের পিছিয়ে পড়ার করণ হলেও হতে পারে।

কারণ যাই হোক, টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়েছে বাংলাদেশের। টানা চার সাফে গ্রুপ পর্ব পেরোতে পারল না বাংলাদেশ, ভাবা যায়! ২০০৩ সালে ঘরের মাঠে আয়োজিত আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। ২০০৯  সালে দ্বিতীয়বার স্বাগতিকের মর্যাদা পেয়ে সেফি ফাইনাল খেলে বাংলাদেশ। কিন্তু  এবার কি না গ্রুপ পর্বেই বিদায়। সমালোচনা তো হবেই।

সংবাদ সম্মেলনে তৃতীয় প্রশ্নের উত্তরে যাওয়ার আগে বিস্ময়ের পর বিস্ময় জেমি ডে’র কণ্ঠে ‘আমি কিছুতেই বুঝতে পারছি না আপনারা সবাই নেতিবাচক প্রশ্ন করছেন কেন? আমাদের দলটা প্রথম দুই ম্যাচে দারুণ খেলেছে। আর একটা হারের পর সব পাল্টে গেল। আপনারা টানা দুই জয় নিয়ে কিছুই বলছেন না!

জেমি ডে মনে করেন, আমরা ৬ পয়েন্ট তো পেয়েছি। অন্য দুই দলের চেয়ে পিছিয়ে তো নেই। দুর্ভাগ্যবশত গোল গড়ে আমরা কোয়ালিফাই করতে পারেনি। এর জন্য ছেলেদের অর্জনকে তো খাটো করতে পারি না।

২০১৩ সালের পর বাংলাদেশ দলের টানা দুই ম্যাচ জয়ের কথা বারবার মনে করিয়ে দিতে চাইলেন জেমি ডে, আমরা ব্যাক টু ব্যাক দুই ম্যাচ জিতেছি। আমার খেলোয়াড়রা পাকিস্তানের বিপক্ষে দারুণ খেলেছে। আমার নয়, আমাদের খেলোয়াড়রা দারুণ খেলেছে। ২০০৮ সালের পর টানা দুই জয় (আসলে ২০১৩ সালের পর)। এই জন্য তো ছেলেরা বাহবা পেতেই পারে।

জেমি ডে আসলে পুরো সংবাদ সম্মেলনে শিষ্যদের আগলে রাখলেন। কিন্তু সাফের মতো আসরে সেমি ফাইনালে উঠা প্রয়োজন ছিল, অন্তত এটুকু তো আসা করতেই পারে সকলে। যে দর্শকরা ফের মাঠে ফিরতে শুরু করেছিল, সেই দর্শকদের মাঠে ধরে রাখার কাজটা করার প্রয়োজন ছিল জামাল ভূঁইয়াদের। কিন্ত তারা সেটা করতে পারল না, পারলো না বাংলাদেশ।

ডেইলি বাংলাদেশ, আরএস/সালি