শিশু ধর্ষণের পর হত্যায় সৎ বাবার মৃত্যুদণ্ড

ঢাকা, শুক্রবার   ২১ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৭ ১৪২৬,   ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

শিশু ধর্ষণের পর হত্যায় সৎ বাবার মৃত্যুদণ্ড

 প্রকাশিত: ২১:০৯ ১৮ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ২১:০৯ ১৮ জুলাই ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বাগেরহাটের শরণখোলায় নয় বছরের এক কন্যাশিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে এক ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত।

বুধবার দুপুরে বাগেরহাটের অতিরিক্ত দায়রা জজ-১ ও শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান এ রায় দেন। দণ্ডিতের নাম আলামিন। তিনি উপজেলার মঠেরপাড়া গ্রামের ফজলুল হক হাওলাদারের ছেলে ও হত্যার শিকার শিশুটির সৎ বাবা। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।এ সময় তাকে এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশও দেয় আদালত। আলামিন হাওলাদার বাগেরহাটের শরণখোলা

মামলার বিবরণ থেকে জানা গেছে, ২০১৬ সালের উপজেলার মঠেরপাড়া গ্রামের আলামিনের সঙ্গে মায়ার মা পুতুল বেগমের বিয়ে হয়। ওই বছরের ২০ ডিসেম্বর সকালে আলামিন তার স্ত্রী পুতুল বেগমকে ফোন করে মুরগি নিতে মেয়েকে বাজারে পাঠাতে বলে। স্বামীর ফোন পেয়ে তিনি একটি ভ্যানে করে মেয়েকে বাজারে পাঠান। এরপর থেকে শিশুটি নিখোঁজ ছিল। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও শিশুরটির সন্ধান না পেয়ে ওই দিন রাতে পরিবারের লোকজন পুলিশকে জানায়। শরণখোলা থানা পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে শিশু মায়ার সৎ বাবা আলামিনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পরদিন মঠেরপাড়া গ্রামের জনৈক লিটু মিয়ার ধান ক্ষেত থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। ওই ঘটনায় ২১ ডিসেম্বর নিহতের নানা কামরুল হাসান দুলাল বাদী হলে শরণখোলা থানায় একটি হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করে।

আদালত মামলার ১৩ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বুধবার এ রায় ঘোষণা করে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট খান সিদ্দিকুর রহমান এবং আসামি পক্ষে অ্যাডভোকেট ওজিয়ার রহমান পিকলু।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরআর