শিক্ষকের হাতে ঘণ্টা, ছাত্রের হাতে ঝাড়ু

ঢাকা, সোমবার   ২৭ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৬,   ২১ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

শিক্ষকের হাতে ঘণ্টা, ছাত্রের হাতে ঝাড়ু

 প্রকাশিত: ১৭:৩১ ১০ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৭:৩১ ১০ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের ২৬ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে নিয়োগ হচ্ছে না কোনো পিয়ন বা নৈশপ্রহরীর। তাই পড়াশোনার পাশাপাশি ঘণ্টা বাজানোর ও ঝাড়ু দেয়ার কাজগুলোও করতে হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের।

নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে রমরমা বাণিজ্যের গুঞ্জন। পদগুলো শূন্য থাকায় দাফতরিক কাজের পাশাপাশি নৈশকালীন নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে বলেও শিক্ষকরা জানিয়েছেন।

সম্প্রতি ঘোষণা দিয়েও নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ স্থগিত করেছে উপজেলা শিক্ষা অফিস। শিক্ষা অফিসার বলছেন, মন্ত্রনালয় থেকে চিঠি পাঠিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত করতে বলা হয়েছে।
২০১৫ সালে উচ্চ আদালতে এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে সারাদেশে কর্মচারী নিয়োগ স্থগিত করা হয়। স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হলে ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে মনোহরগঞ্জের ২৬টি সরকারি স্কুলে অফিস সহকারী কাম নৈশপ্রহরী নিয়োগ সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। আদেশের প্রায় ২১ মাস পরও নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করেনি উপজেলা শিক্ষা অফিস।

ওই রিট আবেদনের আগে উপজেলার অন্যান্য বিদ্যালয়গুলোতে কর্মচারী নিয়োগ হলেও বাদ পড়ে ২৬টি স্কুল। স্কুলগুলোতে অফিস সহকারী কাম নিরাপত্তা প্রহরী পদে আবেদন করেন ১৮৮ জন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার খিলা ইউপির এক নিয়োগ প্রত্যাশী বলেন, রহস্যজনক কারণে নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ হয়নি। এতে সুবিধাভোগীরা বাণিজ্য করছে। আর নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত হওয়ার জন্যও শিক্ষা অফিস দায়ী। তাদের গাফিলতির কারণেই বিষয়টি ঝুলে রয়েছে।
সম্প্রতি কান্দিরপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, এক শিক্ষক ঘণ্টা বাজাচ্ছেন, আরেক শিক্ষার্থী ঝাড়ু দিচ্ছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক তোফায়েল আহম্মদ জানান, পিয়ন না থাকায় দাফতরিক কাজগুলো ছাত্র-শিক্ষকদের করতে হচ্ছে। আরএ কারণেই স্কুলের পানির কল, পতাকার স্ট্যাণ্ডসহ অনেক কিছু চুরি হয়েছে। 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মইনুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হলেও তা স্থগিত করা হয়। নতুন ইউএনও এসেছেন, কিছু দিনের মধ্যে পিয়ন নিয়োগ সম্পন্ন করা হবে। 
ইউএনও শামীম বানু শান্তি বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হলে শতভাগ সচ্ছতা নিশ্চিতকরণসহ যোগ্যতার ভিত্তিতেই এই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পাদন করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর

Best Electronics