শিক্ষককে বাঁচাতে মরিয়া ইউপি সদস্য

ঢাকা, শুক্রবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৭,   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

শিক্ষার্থী নির্যাতন

শিক্ষককে বাঁচাতে মরিয়া ইউপি সদস্য

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৫ ১১ মার্চ ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে ছাত্রীকে নির্যাতনের ঘটনা ধামাচাপা দিতে লেহেম্বার ইউপি সদস্যের সহযোগিতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।পাটগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে ক্লাসের ফাঁকে ৩য় শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ আসে।

ঘটনাটি পরিবারের লোকজনের মাঝে জানাজানি হলে অভিভাবক মহল বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অন্যান্য শিক্ষকদের কাছে বিচার দাবি করে। এ সময় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মন্টু রায় ও প্রধান শিক্ষক ধনেশ্বর রায় শিক্ষার্থীর অভিভাবককে নিয়ে আপোষ মিমাংসায় বসে বিষয়টি অনাকাঙ্খিত বলে অভিযুক্ত শিক্ষক ভুল শিকার করেছে এবং ইউপি সদস্যের সহায়তায় ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে চায়।

এ প্রসঙ্গে দোশিয়া গ্রামের সোহরাব আলী’র স্ত্রী বলেন, আমার মেয়েকে আর স্কুলে পাঠাতে চাচ্ছিনা কিন্তু মেম্বার সাহেব বলেছে মেয়েটাকে তো বিয়ে দিতে হবে তাই কলংক রটানো যাবে না। 

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ধনেশ্বর রায় বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি কিন্তু বিপিএড পরীক্ষার কারণে সমাধান দেয়া সম্ভব হয়নি। 

ইউপি সদস্য মোকসেদ আলী বলেন, বিষয়টি তেমন কিছু না। ঘটনাটি সমাধান হয়ে গেছে। 

অভিযুক্ত শিক্ষক ধনসিং রায় বলেন আমি মেয়েটিকে হাত দিয়ে পেটে চিমঠি মেরে ছিলাম তাই তারা আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলেছে। তাছাড়া বিষয়টি প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাহেব সমাধান করে দিয়েছে। 

এ প্রসঙ্গে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোকছুদুর রহমান বলেন বিষয়টি আমি শুনেছি সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আলমকে তদন্তের দার্য়িত্ব দিয়েছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস