Alexa শাবিপ্রবি: ভর্তিচ্ছুদের মূত্র সংগ্রহ করে ডোপ টেস্ট 

ঢাকা, শুক্রবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৬,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১

শাবিপ্রবি: ভর্তিচ্ছুদের মূত্র সংগ্রহ করে ডোপ টেস্ট 

শিক্ষাঙ্গন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:১১ ১৬ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময়ই শিক্ষার্থীদের ‘ডোপ টেস্ট’ করা হচ্ছে। শিক্ষার্থী মাদকাসক্ত কি না, তা পরীক্ষা করেই এবার প্রথম বর্ষে ভর্তি করাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের মূত্র সংগ্রহ করে চারটি পরীক্ষা করে মাদকাসক্ত কি না, তা নির্ণয় করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমেস্ট্রি অ্যান্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের শিক্ষকরা।

এ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শেখ মির্জা নুরুন্নবী বলেন, ইয়াবার জন্য এএমপি, মারিজুয়ানার জন্য টিএইচসি, পাথেড্রিনের জন্য ওপিআই এবং স্লিপিং পিলের জন্য বিজেডও টেস্ট করা হচ্ছে।

‘ডোপ টেস্ট’ বাবদ ৩০০ টাকা ও স্বাস্থ্যবীমা বাবদ আরো ২০০ টাকা ফি ধরে গত বছরের তুলনায় এ বছর ভর্তি ফি বাড়ানো হয়েছে ৫০০ টাকা। ফলে ভর্তি ফি ৭ হাজার ৫০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৮ হাজার টাকা।

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে নবীন শিক্ষার্থীদের ‘ডোপ টেস্ট’ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়কে মাদকমুক্ত রাখতেই তাদের এই উদ্যোগ। মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের অভিযানের মধ্যে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এই উদ্যোগ নিল।

উপাচার্য ফরিদ বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়কে মাদকমুক্ত রাখতে চাই। প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও এখন মাদকের বিষাক্ত কবলে তরুণরা আসক্ত। আমরা ডোপ টেস্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা মাদকাসক্ত কি না, তা নির্ণয় করতে চাই।

এদিকে ভর্তি ফি বাড়িয়ে শিক্ষার্থীদের ডোপ টেস্ট ও স্বাস্থ্যবীমার আওতায় নিয়ে যাওয়ায় প্রতিবাদ জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট ও জাতীয় ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা। তারা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপিও দিয়েছে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে উপাচার্য ফরিদ বলেন, আমরা নবীন শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে শুরু করলাম। ধীরে ধীরে সব শিক্ষার্থীদের ডোপ টেস্টের আওতায় নিয়ে আসব। শনাক্ত হওয়া শিক্ষার্থীদের নজরদারিতে রাখব। তাদের চিকিৎসার, সংশোধনের ব্যবস্থা করব।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ