শর্ট বলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই: সৌম্য

ঢাকা, রোববার   ১৬ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১১ শাওয়াল ১৪৪০

শর্ট বলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই: সৌম্য

ক্রীড়া প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৭:৪৪ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৭:৪৪ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

প্রথম ম্যাচে শর্ট বলে আউট হন লিটন

প্রথম ম্যাচে শর্ট বলে আউট হন লিটন

প্রথম ম্যাচে একই বলে আউট হয়েছেন টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার ও লিটন কুমার দাস। তবে এটিকে সমস্যা মনে করছেন না সৌম্য। এছাড়াও প্রথম ম্যাচে যে দ্রুত উইকেটের পতনে দলীয় সংগ্রহ বড় হয়নি দলের সেটি মানছেন এই ব্যাটসম্যান।

দলীয় ১১ রানের মাথায় কোটরেলের করা শর্ট বল মারতে গিয়ে ব্র্যাথওয়েটের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তামিম। আরো ৮ রান যোগ করতেই ওসান থমাসের করা শর্ট বলে খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন লিটন। তামিম, লিটনের ভুলের পর একই ভুল করলেন সৌম্যও। আবারো কোটরেলের করা শর্ট বলে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন তিনিও! পরপর দুই ব্যাটসম্যান শর্ট বল খেলতে গিয়ে আউট হওয়ার পরেও কেন একই পথ বেছে নিলেন সৌম্য?

শর্ট বল খেলতে না পারার দুশ্চিন্তা কাজ করছিলো ক্রিকেটারদের মাঝে নাকি অন্য কিছু? সৌম্য অবশ্য এটাকে সাহসী মনোভাব বলে আখ্যা দিয়েছেন। মিরপুরে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি শুরুর আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে শর্ট বল মোকাবিলা করাকে সাহসী সিদ্ধান্ত বললেন এই ব্যাটসম্যান।

“সবাই তো জানি ওরা টি-টোয়েন্টিতে চ্যাম্পিয়ন দল। আমরাও যে একবারে খারাপ করছি তা না। আমরাও ওদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করছি হয়তো কোথাও ঘাটতি ছিল। হয়তো আমাদের প্ল্যানিংয়ে ছোট ভুল ছিল কিংবা বুদ্ধির ঘাটতি ছিল।”

পাওয়ার প্লে’তে দারুণ ব্যাটিং করলেও অন্যপাশে নিয়মিত উইকেটও হারাতে থাকে বাংলাদেশ। প্রথম ৬ ওভারেই তামিম, লিটন, সৌম্য, মুশফিককে হারায় বাংলাদেশ। এই চারজনের দ্রুত বিদায়ে শেষ পর্যন্ত দলের রান দাঁড়ায় ১২৯ রান। সৌম্য মনে করছেন প্রথম ম্যাচে দ্রুত উইকেট না হারালে দলীয় সংগ্রহ আরো বড় হতে পারত।

“উইকেট ভালো ছিল। যেটা বললাম, শুরু থেকেই আমরা আগ্রাসী খেলার চেষ্টা করেছি। প্রথম চার ওভারের মধ্যে আমাদের তিনটা উইকেট পড়ে গিয়েছিলো যার কারণে মাঝের সময়টা স্লো হয়ে গিয়েছিলো। পাওয়ার প্লে’তে যদি একটি উইকেট হারাতাম তাহলে ৬-১০ ওভারের মধ্যে হয়তো আমাদের ভালো রান থাকতো।”

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে