শরীয়তপুরে দু‘পক্ষের সংঘর্ষ, ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত  ৮

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১১ ১৪২৬,   ২০ শাওয়াল ১৪৪০

শরীয়তপুরে দু‘পক্ষের সংঘর্ষ, ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত  ৮

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৪৪ ২১ মে ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু‘পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ইউপি চেয়ারম্যানসহ আটজন আহত হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে চন্দ্রপুর ইউপির কীর্তিনগর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে আহত চন্দ্রপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওমর ফারুক মোল্লা, তার ছেলে সাগর মোল্লা, শাওন মোল্লা, সমর্থক ইছাহাক মাদবর ও জামাল হাওলাদারকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে এবং অপর পক্ষের রিপন সরদারের মা ফিরোজা বেগম, তোতা সরদার ও শহীদ মল্লিককে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদের মধ্যে আহত ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে সাগর মোল্লার অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

চন্দ্রপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওমর ফারুক মোল্লা ও একই ইউপির রিপন সরদারের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। 

মঙ্গলবার সকালে কীর্তিনগর ব্রিজ এলাকায় চেয়ারম্যান ওমর ফারুক মোল্লার ছেলে সাগর মোল্লার সঙ্গে রিপন সরদারের সমর্থক তোতা সরদারের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তোতা সরদার সাগর মোল্লার গায়ে হাত তোলেন এবং তাকে লাঞ্ছিত করেন। এ খবর পেয়ে চেয়ারম্যান ওমর ফারুক মোল্লা তার সমর্থকদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। চেয়ারম্যান ও তার সমর্থকদের আসার খবর পেয়ে এদিকে রিপনের সমর্থকরাও সংঘবদ্ধ হয়। 

পরে দুপুর দেড়টার দিকে দু‘পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে দু‘পক্ষের মধ্যে ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ চলে। খবর পেয়ে পলং মডেল থানা ও সন্তোষপুর পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে চেয়ারম্যান ওমর ফারুক মোল্লা ও তার দুই ছেলেসহ তার পক্ষের পাঁচজন ও রিপন সরদারের পক্ষের তিনজন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে মাদারীপুর ও শরীযতপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

পালং মডেল থানার ওসি মো.আসলাম উদ্দিন বলেন, চন্দ্রপুর ইউপিতে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় এখনো কোনো পক্ষ অভিযোগ নিয়ে থানায় আসেনি। অভিযোগ নিয়ে আসলে মামলা নেয়া হবে এবং আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ