Alexa শরণখোলায় অর্ধশতাধিক ইট ভাটা

ঢাকা, শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ৫ ১৪২৬,   ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

শরণখোলায় অর্ধশতাধিক ইট ভাটা

 প্রকাশিত: ১০:০৮ ২৭ এপ্রিল ২০১৮  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বাগেরহাটের শরণখোলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে প্রায় অর্ধশতাধিক অবৈধ ইট ভাটা। নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে  ৪ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের ফসলি জমি, বসতবাড়ির আঙ্গিনা ও অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে এ সব ভাটাগুলো স্থাপন করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা প্রশাসনের মৌখিক অনুমতি নিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি ও ব্যবসায়ী অর্ধশত ইট ভাটা স্থাপন করেছেন। পরিবেশ অধিদফতরের কিংবা প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ইট পোড়ানো বেআইনী হলেও কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করছেনা প্রশাসন।

এছাড়া সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় ভাটা স্থাপন করে দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির জ্বালানীর পাশাপাশি সংরক্ষিত বনের নানা রকমের বৃক্ষ উজাড় কাজে ব্যস্ত রয়েছে ভাটা মালিকরা। গ্যাস কিংবা কয়লার মাধ্যমে ইট পোড়ানোর নিয়ম থাকলেও তা উপেক্ষা করে ইট পোড়ানোর কাজ চলছে। প্রশাসনের নাকের ডগায় প্রতি বছর এমন বেআইনী কর্মকাণ্ড চললেও ঘুমিয়ে আছে প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা।

অপরদিকে, ভাটাগুলোর বিষাক্ত ধোঁয়ায় এলাকার পরিবেশ খারাপ হচ্ছে।

উপজেলার মালিয়া রাজাপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. নান্না মিয়া বলেন, নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে যোগাযোগ করে তিনি তাঁর বসত ঘরের আঙ্গিনায় চলতি বছরে ইট পোড়ানোর কাজ শুরু করেন।এরইমধ্যে পঞ্চাশ হাজার ইট পোড়ানোর কাজ শেষ হয়েছে তাঁর। নতুন করে আরো পঞ্চাশ হাজার পোড়ানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন তিনি। লিখিত কোনো অনুমতি তাঁর কাছে না থাকলেও উপজেলা প্রশাসন কার্যালয় থেকে মৌখিক অনুমতি গ্রহণ করেছেন বলে দাবী করেন তিনি। বিনিময় কিছু চা-পানির খরচ দিতে হয়েছে তাঁর।

সুন্দরবন সংলগ্ন সোনাতলা এলাকার এক সমাজসেবক পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বলেন, প্রশাসনিক অনেক অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারিকে ম্যানেজ করতে পারলেই বিভিন্ন অনৈতিক কাজের অনুমতি মেলে। ম্যানেজ করতে ব্যর্থ হলে বড় বড় আইনের ব্যাখ্যা দেয়া হয়। তাদের চাহিদা মতো উৎকোচ দিলেও সব আইন নিমিষেই শিথিল হয়ে যায়। তবে, প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আইনের প্রতি আরো দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস জানান, টাকা পয়সার বিনিময়ে বেআইনী কাজে অনমুতি দেয়ার বিষয়টি সঠিক নয়। তবে, পরিবেশ বিধ্বংসী কাজে জড়িতদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ