Alexa লোকসংগীত, তারুণ্য ও যৌবনের জয় হোক: তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার   ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৮ ১৪২৬,   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

ছয় কিংবদন্তিকে উৎসর্গ করা হলো ‘ফোক ফেস্ট ২০১৯’

লোকসংগীত, তারুণ্য ও যৌবনের জয় হোক: তথ্যমন্ত্রী

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৪৮ ১৪ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২২:৫৩ ১৪ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বাংলা সঙ্গীতের ছয় কিংবদন্তিকে উৎসর্গ করে শুরু হলো ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্ট ২০১৯’। এই ছয় কিংবদন্তি হলেন ফকির আব্দুর রব শাহ, সুবীর নন্দী, বারী সিদ্দিকী, শাহনাজ রহমতউল্লাহ, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, আইয়ুব বাচ্চু।

তিন দিনব্যাপি শুরু হয়েছে এ অনুষ্ঠান রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় উদ্বোধনী নৃত্য পরিবেশন করে বাংলাদেশের নৃত্যশিল্পী সামিনা হোসেন প্রেমা ও তার নৃত্যদল ভাবনা’র শিল্পীরা। ধামাইল, লাঠিখেলা এবং পুতুল নাচের আঙ্গিকে নাচ পরিবেশন করেন তারা। এরপরই মঞ্চে আসে জর্জিয়ার শেভেনেবুরেবি। 

এক ঘণ্টারও বেশি সময় নানা ধরনের লোকযন্ত্র বাজিয়ে ভিন্নধর্মী সংগীতায়োজন করে ঢাকার দর্শকদের সুরের মায়াজালে ভাসায় দলটি। 

রাত ৯টায় শুরু হয় ফোক ফেস্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। শুরুতেই বাংলাদেশের সঙ্গীতাঙ্গনের সদ্য প্রয়াত সঙ্গীতশিল্পী সুবীর নন্দী, বারী সিদ্দিকী, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে একটি তথ্যচিত্র দেখানো হয়।

এরপর স্বাগত বক্তব্য রাখেন আয়োজক সান ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অঞ্জন চৌধুরী। তিনি বলেন, লোকগান প্রাণের গান। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিচ্ছি লোক গানের সুর। 

এরপর বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, প্রকৃতিগতভাবেই বাংলার লোকসংগীত যথেষ্ট সমৃদ্ধ ও ঐতিহ্যের দিক থেকেও অন্যদের তুলনায় বিশেষভাবে উন্নত। বর্তমান সময়ে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে লোকসংগীত পেয়েছে নতুন মাত্রা। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংস্কৃতি বান্ধব। তিনি বিশ্বাস করেন এমন আয়োজনের মাধ্যমে দেশের সাংস্কৃতি আরো বিকশিত হবে।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ বলেন, আমাদের প্রধানতম মানুষ, প্রকৃতি, পৃথিবী, শেকড়ের রস- এসবই আমাদের লোকসংগীতের উপকরণ। লোকসংগীতের এই উৎসবে তারুণ্যের স্রোত আমাকে অভিভূত করেছে। লোকসংগীতের জয় হোক, তারুণ্য ও যৌবনের জয় হোক। এমন আয়োজন দেশে থেকে জঙ্গিবাদ বিলুপ্ত ঘটাবে। দেশে নেমে আসবে শান্তি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও চান এমন আয়োজনের মাধ্যমে দেশে শান্তির সুবাতাস বইবে। দেশের মানুষ যে শান্তিতে আছেন তার প্রমাণ এমন আয়োজন। এমন আয়োজন অব্যাহত থাকুক। এই লোকসংগীতের মধ্য দিয়ে সারাবিশ্ব বাংলাদেশকে নতুন করে চিনুক এটাই হোক প্রত্যাশা।

উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতার পর মঞ্চে আসেন বাংলাদেশের বাউল শিল্পী শাহ আলম সরকার। এছাড়াও প্রথম দিনের অন্যতম আকর্ষণ ভারতের শিল্পী দালের মেহেন্দি। নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি পাঞ্জাবি ভাঙড়া গান গেয়ে ভারতজুড়ে জনপ্রিয়তা পান এ শিল্পী। 
 
প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয়ে উৎসব চলবে রাত ১২টা পর্যন্ত। বাংলাদেশসহ ছয় দেশের দুই শতাধিক শিল্পী অংশ নিচ্ছে এবারের উৎসবে। ২০১৫ সাল থেকে প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্ট’। শনিবার শেষ হবে এবারের উৎসব।

‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোকফেস্ট ২০১৯’র রেডিও পার্টনার রেডিও দিনরাত, ব্রডকাস্ট পার্টনার মাছরাঙা টেলিভিশন। অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করছে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোকফেস্টের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ ও মাছরাঙা টিভি।

রাত দশটার পর কেউ অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করতে পারবে না। অনুষ্ঠানে স্কয়ার হসপিটালের পক্ষ থেকে মেডিকেল টিম রাখা হয়েছে, বিনামূল্যে বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও দর্শকদের জন্য পাঁচটি রোডে যাতায়াতের সুবিধার্থে গাড়ির ব্যবস্থা রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএ