.ঢাকা, শুক্রবার   ১৯ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৫ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪০

লাল সবুজের ফেরিওয়ালা

নওগাঁ প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ১৯:৩৩ ৫ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৯:৩৩ ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কৃষ্ণচড়ার লাল গেঁথে আছে সবুজের প্রান্তরে। দুলছে বাতাসে বিজয় দিবসের বাণী ক্ষণে ক্ষণে। ছড়িয়ে দিতে চাইছে দিগন্তে লাল-সবুজের পতাকা। রক্তরাঙা পতাকা, যেখানে লুকিয়ে আছে বাংলার সবুজ-শ্যামল বিজয় গাঁথার ইতিহাস।

স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস ও শহীদ দিবসসহ রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলোতে জাতীয় পতাকা ছড়িয়ে পড়ে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের আনাচেকানাচে । এসব দিনে অনেকেই পতাকা বাঁধেন মাথায়, শোভা পায় গাড়িতেও।

বিজয় দিবস উপলক্ষে ডিসেম্বর মাসের শুরু থেকেই নওগাঁর আত্রাইয়ে পতাকা বিক্রির ধুম পড়েছে। বড়-ছোট বিভিন্ন আকারের পতাকা আর ব্রেসলেট সাজিয়ে পথে পথে ঘুরে পতাকা বিক্রি করছেন মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। আকার ভেদে একেকটি পতাকা ২০ থেকে ২০০ টাকা আর ব্রেসলেট ১০ টাকায় বিক্রি করছেন তারা।

আত্রাইয়ের এমনই একজন পতাকা বিক্রেতা রফিকুল ইসলাম। তার ভাষ্য, পতাকা উড়তে দেখে মন উতলা হয়ে ওঠে। অনেকেই পতাকা কিনে বাড়ির ছাদ, বারান্দা, গাড়ি, রিকশা ও মোটরসাইকেলের সামনে ওড়াতে চান। তাই পতাকা বিক্রেতাদের উপার্জনের মাধ্যম হয়ে দাঁড়ায় লাল-সবুজের পতাকা।

রফিকুল ইসলাম বলেন,আমার বাড়ি ফরিদপুরে। শুধুমাত্র জাতীয় পতাকা বিক্রি করতেই আত্রাইয়ে এসেছি। অন্যান্য জেলাগুলোতেও যাব।

দুটি পতাকা কিনেছেন মাগুড়া আকবরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেবেন্দ্রনাথ পাল। তিনি বলেন, একটি আমার বিদ্যালয়ের জন্য অন্যটি বাসায় ওড়ানোর জন্য। পতাকার ফেরিওয়ালারা বিজয় দিবসের আগমনী বার্তা বহন করে আনে এই মফস্বল এলাকার মানুষের কাছে। আমি চাই গোটা বাংলাদেশ বিজয়ের মাসে ছেয়ে যাক লাল-সবুজের পতাকায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর