Alexa লাখো প্রদীপের দীপাবলি

ঢাকা, রোববার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২ ১৪২৬,   ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

লাখো প্রদীপের দীপাবলি

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪৯ ২৭ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৩:১৫ ২৭ অক্টোবর ২০১৯

ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

দীপাবলি কি? এই প্রশ্নের জবার খুব কম শব্দেই দেয়া যায়, ‘প্রদীপের সমষ্টি’। ভারতজুড়ে প্রতিবছরই বেশ জাঁকালোভাবে পালন করা হয় এই উৎসব। আশ্বিন মাসের কৃষ্ণা ত্রয়োদশীর দিন ধনতেরস অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই উৎসবের সূচনা হয়। কার্তিক মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে ভাইফোঁটা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই উৎসব শেষ হয়।

দীপাবলির ইতিহাসের সঙ্গে পুরাণের যে সব গল্প জড়িত, তার মধ্যে সবচেয়ে প্রচলিত রামায়ন, সীতা ও লক্ষ্মণের অযোধ্যায় ফেরার কাহিনি। তবে এছাড়াও আরো অনেকগুলো গল্প জড়িত রয়েছে দীপাবলির সঙ্গে। রামায়ণ অনুসারে, দীপাবলি দিনে ত্রেতা যুগে শ্রী রাম রাবণ বধ করে ১৪ বছরের বনবাস শেষে অযোধ্যায় প্রত্যাবর্তন করেন। স্রষ্টা শ্রী রাম চন্দ্রের ১৪ বছর পরের প্রত্যাবর্তনে সারা রাজ্য জুড়ে প্রদীপ জ্বালানো হয়। প্রজারা খুশিতে শব্দবাজি করে। অনেকে মনে করেন দীপাবলির আলোকসজ্জা এবং শব্দবাজি ত্রেতাযুগে রাম-রাজ্যে ঘটে যাওয়া সেই অধ্যায়কে সামনে রেখেই অন্যসব অঞ্চলে প্রচলিত, পরিচিত এবং বিস্তৃত হয়েছে।

মহাভারতে উল্লেখ, ভূদেবী ও বরাহর পুত্র নরকাসুর খুব শক্তিশালী স্বর্গ ও মর্ত্য দখল করে প্রবল অত্যাচার শুরু করেন। শ্রীকৃষ্ণ নরকাসুরকে বধ করে তার প্রাসাদে বন্দিনী ১৬ হাজার নারীকে উদ্ধার করেন। এদের সবাইকেই বিয়ে করে নেন কৃষ্ণ। কিন্তু মৃত্যুর আগে নরকাসুর কৃষ্ণের কাছ থেকে বর চেয়ে নেন যে তার মৃত্যুর দিনটি যেন ধূমধাম করে পালিত হয়। এই দীপাবলিতেই নাকি নরকাসুরকে বধ করেছিলেন কৃষ্ণ।

জৈনধর্ম অনুযায়ী, দীপাবলিতেই নির্বাণ লাভ করেছিলেন মহাবীর। এছাড়াও মহাভারতে পাওয়া যায় যে ১২ বছর বনবাস ও এক বছর অজ্ঞাতবাসের পর দীপাবলিতেই হস্তিনাপুরে ফিরে এসেছিলেন পাণ্ডবরা। সেই জন্য আলোর মালায় সাজানো হয়েছিল পুরো হস্তিনাপুরকে।

দীপাবলি মানেই জাঁকালো উৎসব

গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে, অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে নভেম্বরের মাঝামাঝির মধ্যে দীপাবলি অনুষ্ঠিত হয়।.উৎসবটি উপলক্ষে ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, মরিশাস, গুয়ানা, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, সুরিনাম, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ফিজিতে একটি সরকারি ছুটির দিন। হিন্দুদের কাছে, দীপাবলি একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসব। এদিন হিন্দুরা বাড়িতে নানা ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

প্রদীপ জ্বালিয়ে রেকর্ড

শিশির ঝরা হেমন্তের ঘনঘোর অমাবস্যা তিথিতে দীপাবলির আলোকে উদ্ভাসিত হবে আজ সন্ধ্যায়। ভারতের উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ‘দীপোৎসব’ এ প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ মাটির প্রদীপ জ্বালাবেন। যা গতবারের রেকর্ডকেও ছাপিয়ে যাবে বলে দাবি করেছেন তিনি।

এ বছর দীপোৎসবসহ পুরো অনুষ্ঠানে খরচ হবে ১৩০ কোটি টাকা। উত্তর প্রদেশ সরকারের মুখপাত্র বলেন, সাংস্কৃতিক সন্ধ্যাতে রাম-সীতার একটি প্রতীকী প্রদর্শনী হবে। বিকেল ৪টা ১৫ থেকে ৪টা ৪০ মিনিটের মধ্যে রাম কেন্দ্রিক বিভিন্ন অনুষ্ঠান হবে।

২০১৮ সালে অযোধ্যার '‌দীপোৎসব’‌ গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেছিল। তিন লাখেরও বেশি প্রদীপ সরযু নদীর ধারে ৪৫ মিনিট ধরে জ্বলেছিল। এ বছর আদিত্যনাথের দাবি, গতবছরের রেকর্ড ভাঙবেন তিনি। ২০১৮ সালের '‌দীপোৎসবে’‌ এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে এসেছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার ফার্স্ট লেডি কিম জাং–সুক। এ বছরের অনুষ্ঠানের প্রধান আকর্ষণ হল সাতটি দেশ থেকে শিল্পীরা রামলীলা দেখাবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে