Alexa রোহিঙ্গারা যেতে রাজি না

ঢাকা, রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৭ ১৪২৬,   ২২ মুহররম ১৪৪১

Akash

রোহিঙ্গারা যেতে রাজি না

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৫ ২২ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৬:৪৬ ২২ আগস্ট ২০১৯

মিয়ানমার ও চীনের প্রতিনিধিকে পাশে নিয়ে আরআরআরসি কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম

মিয়ানমার ও চীনের প্রতিনিধিকে পাশে নিয়ে আরআরআরসি কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম

শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম বলেছেন, রোহিঙ্গারা রাজি না হওয়ায় আজ প্রত্যাবাসন সম্ভব হচ্ছে না। ব্যাপক প্রস্তুতির পরও দ্বিতীয়বারের মতো রোহিঙ্গাদের অনিচ্ছার কারণে আটকে গেছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন।

বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

এর আগে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি নেয় বাংলাদেশ। ঘুমধুম ট্রানজিট পয়েন্ট প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি জোরদার করা হয় সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

প্রত্যাবাসনের জন্য ৩ হাজার ৫৪০ জন রোহিঙ্গাকে ছাড়পত্র দেয়া হয় এবং প্রত্যাবাসনের জন্য তালিকায় থাকা ২৩৫ রোহিঙ্গা পরিবারের সাক্ষাৎকারও নেয়া হয়। ইউএনএইচসিআর এবং শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের প্রতিনিধিরা ক্যাম্পে গিয়ে রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার নেন।

আরআরআরসি কমিশনার আবুল কালাম বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বৃহস্পতিবার প্রত্যাবাসনের জন্য প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পুরোপুরি প্রস্তুত।

তিনি আরো বলেন, ঘুমধুম ট্রানজিট পয়েন্ট প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি ৫টি বাস ও ২টি ট্রাক সকাল থেকে টেকনাফের শালবন ক্যাম্পে অবস্থান করবে। এ প্রক্রিয়াকে নিরাপদ করতে ক্যাম্প ও সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে বর্তমানে ১১ লাখের অধিক রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছেন। তাদের বেশির ভাগই মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর বর্বর নির্যাতনের মুখে জীবন বাঁচাতে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর বাংলাদেশে আসে।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে নানা প্রক্রিয়া শেষে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে চুক্তি হয়। ওই চুক্তি অনুযায়ী, প্রতিদিন ৩০০ রোহিঙ্গাকে ফেরত নেবে মিয়ানমার। সে অনুয়াযী দুই বছরের মধ্যে সব রোহিঙ্গা ফেরত নেয়ার প্রক্রিয়া শেষ হবে। কিন্তু দুবছরে একজনও ফেরত যায়নি। গত বছরে নভেম্বরে প্রথম পর্যায়ে প্রত্যাবাসন শুরুর কথা থাকলেও রোহিঙ্গাদের অনিচ্ছার কারণে সেবারও তা আটকে যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে