ছাতকে রেলের অচলাবস্থা

ঢাকা, সোমবার   ০৬ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৩ ১৪২৬,   ১২ শা'বান ১৪৪১

Akash

ছাতকে রেলের অচলাবস্থা

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৫৩ ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১০:৪২ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার রেলওয়ের দুটি বিভাগে তীব্র লোকবল সংকট দেখা দিয়েছে। প্রতি বছর রেলওয়ে শ্রমিক-কর্মচারীর চাকরি শেষ হওয়ার পর অবসরে যাওয়ায় শূন্য পদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। যার ফলে দৈনন্দিন দাফতরিক কাজে চলছে অচলাবস্থা। 

এসব শূন্য পদের শ্রমিক-কর্মচারীর বিপরীতে কোনো নিয়োগ না দেয়ায় রেলওয়ে ছাতক অঞ্চলে হযবরল অবস্থা বিরাজ করছে। যেন কারো মাথা ব্যথা নেই।

ছয় বছর ধরে ছাতক বাজার নির্বাহী প্রকৌশলী পদটি শূন্য রয়েছে। আর বর্তমানে নির্বাহী প্রকৌশলী পদে কর্মকর্তা অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন ঢাকা থেকে। রেলওয়ের একটি হাসপাতাল থাকলেও ফার্মাসিস্ট নেই বলে অধিকাংশ সময়েই বন্ধ থাকে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। 

রেলওয়ে সিআরবি চট্রগ্রাম অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলীর বরাবরে একাধিকবার শূন্য পদের বিষয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হলেও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। কবে নাগাদ এসব শূন্য পদগুলো পূরণ হবে, তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না রেলওয়ে বিভাগের সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকর্তা। 

রেলওয়ে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ছাতক উপজেলায় রেলওয়ে বিভাগের দুটি শাখা ছাতক-ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে প্রকল্প ও রেলওয়ের কংক্রিট স্লিপার কারখানায় মঞ্জুর পদের সংখ্যা ১শ’ ৫৩টি। এর মধ্যে ৪৩ জন কর্মরত রয়েছেন। শূন্য পদের সংখ্যা ১১১টি। 

সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলীর পদ ও সিনিয়র উপ-সহকারী প্রকৌশলী চারটি পদ শূন্য রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। উচ্চমান সহকারী দুটি পদ শূন্য রয়েছে। বছরের পর বছর ধরে ইউডিএ ও মিস্ত্রি পাঁচটি পদের সব ক’টি শূন্য রয়েছে। 

এছাড়াও উইঞ্চ অপারেটর লাইনম্যান, মোটর ড্রাইভার, ফিটার, ব্যাক স্মিথ, ওয়েল্ডার, বয়লার অপারেটর, কার্পেন্টার, কাষ্টিং মেশিন অপারেটর, মিক্সার অপারেটর, ডিজি সেট অপারেটর, গ্যান্টিং অপারেটর, গ্যাস কাটার, ল্যাবরেটরি এসিস্ট্যান্ট, মেশন, পেইন্টার, মেকানিক্স, পাম্প ড্রাইভার, টুল কিপার, ট্রেসার, ট্রাবারসাব অপারেটর, ওয়ার্ক সাপারভাইজার, টালি সহকারী, পাম্প হেলপার, সুইপার, নিরাপত্তা প্রহরী, কুক, খালাসি, এমএলএসএস, রেস্ট হাউজ চৌকিদার, ওয়ার্ড এটেনডেন্ট, মেডিসিন কেরিয়ার, বাকেট অপারেটরসহ পদের সংখ্যা ১শ’ ৭টি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, রেলওয়ে ছাতক বাজার দফতরে নির্বাহী প্রকৌশলীর পদটি শূন্য রয়েছে ২০১৪ সাল থেকে। রাজধানী ঢাকায় বসেই ডিএন-২ পদের এক কর্মকর্তা ছাতক রেলওয়ে তিনটি বিভাগের (অতিরিক্ত) নির্বাহী প্রকৌশলী দায়িত্ব পালন করছেন।
 
এছাড়াও ছাতক রেলওয়ে সবকটি বিভাগেই দায়িত্ব পালনে গাফিলতিসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগও রয়েছে। সংশ্লিষ্ট ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষ এসব দেখেও যেন না দেখার ভান করছেন।

রেলওয়ে শাখার ঢাকায় অবস্থানরত (অতিরিক্ত) দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান আহমদ বলেন, রেলওয়ে ছাতক বাজার দফতর ও তার অধিনস্থ সাব-অর্ডিনেটর দফতর সমুহে লোকবল স্বল্পতার কারণে প্রতিষ্ঠানের কাজে মারাত্মক ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। 

রেলওয়ের এসব দফতরগুলোর কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার স্বার্থে এসব শূন্য পদ পূরণে ছাতক নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে এরই মধ্যে একাধিকবার রেলওয়ে চট্রগ্রাম জোন সিআরবি (সেতু/পূর্ব) বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী বরাবরে চিঠি দেয়া হলেও কোনো সাড়া মেলেনি।

রেলওয়ে সিআরবি (চট্টগ্রাম) পূর্বাঞ্চল জোনের প্রধান প্রকৌশলী মো. সুবক্তগীন বলেন, রেলওয়ে ছাতক বাজার তিনটি বিভাগে তীব্র লোকবল সংকটের বিষয়টি অবগত রয়েছি। এ সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে