.ঢাকা, সোমবার   ২৫ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১১ ১৪২৫,   ১৮ রজব ১৪৪০

সবচেয়ে শক্তিশালী পাসপোর্ট কোনটি!

মেহেদী হাসান শান্ত

 প্রকাশিত: ১১:৫৬ ৮ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১১:৫৬ ৮ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: সংগৃহিত

ছবি: সংগৃহিত

ইচ্ছেমত যেখানে খুশি সেখানে ভ্রমণের চেয়ে আনন্দের আর কি হতে পারে! আর আপনি যে দেশের নাগরিক, সে দেশের পাসপোর্ট যদি হয় বহু দেশে বিনা অন্তরায়ে ভ্রমণের জন্য উপযুক্ত, তাহলে মানতেই হবে আপনি ভাগ্যবানদের একজন।

আপাতত এ ভাগ্যের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে আছে জাপানিরা। চলতি বছরের অক্টোবরে প্রকাশিত 'হেনলি পাসপোর্ট ইনডেক্স' অনুযায়ী, জাপানি পাসপোর্ট দিয়ে এ মুহুর্তে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি দেশে ভ্রমণ করা যাবে। হেনলি এন্ড পার্টনারসিটিজেন্স নামক বিশ্বব্যাপী নাগরিকত্ব এবং অভিবাসন নিয়ে কাজ করা একটি সংগঠন এ জরিপটি চালায়। 

 

চলতি মাসের শুরুতে জাপানি পাসপোর্টধারীরা মিয়ানমারে বিনা ভিসায় প্রবেশের অনুমতি পায়, যার ফলে জাপানি পাসপোর্ট দিয়ে বিনা ভিসায় প্রবেশযোগ্য দেশের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৯০টিতে। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে সিঙ্গাপুর, সেদেশের পাসপোর্ট দিয়ে বিশ্বের ১৮৯টি দেশে বিনা ভিসায় ভ্রমণ করা সম্ভব। এ বছরের শুরুতে তালিকার শীর্ষে থাকা জার্মানি এখন যৌথভাবে ফ্রান্স ও দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে (১৮৮ টি দেশে ভিসা-ফ্রি এক্সেস)। পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য (১৮৬)।সেপ্টেম্বরে রাশিয়ান পাসপোর্টধারীরা তাইওয়ানে বিনা ভিসায় প্রবেশের অনুমতি পায়, তারপরো তালিকায় রাশিয়ার অবস্থান অনেক নিচে, ৪৭ নম্বরে। তবে গত এক যুগে পাসপোর্টের শক্তিমাত্রার হিসেবে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ার মতো উন্নতি করেছে আরব আমিরাত। ২০০৬ এর পাসপোর্ট র‌্যাংকিংয়ে তাদের অবস্থান ৬২ নম্বরে থাকলেও এ বছর তা চলে এসেছে ২১ এর ঘরে। ভিসাবিহীনভাবে ভ্রমণের জন্য সম্প্রতি তারা রাশিয়ার সঙ্গেও একটি চুক্তি করেছে।

অবাক করার মতো বিষয় হলো তালিকায় চীনের অবস্থান ৭১! তাও এবছর তারা মায়ানমার ও সেন্ট লুসিয়ায় ভিসা-ফ্রি এক্সেস পেয়ে ১৭ ধাপ এগিয়েছে বিধায় তা সম্ভব হয়েছে। হেনলি এন্ড পার্টনারস এর চেয়ারম্যান ক্রিশ্চিয়ান কালিন্স বলেন, "বিভিন্ন দেশ তাদের ভূখণ্ডে অন্য দেশের মানুষদের প্রবেশ সহজ করে দিয়ে হাতে হাত মিলিয়ে একটি আন্তঃযোগাযোগপূর্ণ ও সহায়তাপরায়ণ পৃথিবী গঠনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। গত বছরের তুলনায় চীন ও আরব আমিরাতের এ অগ্রগতি তারই ইঙ্গিত দেয়। এ উদ্যোগ বিশ্বজুড়ে মিত্র দেশগুলোর সঙ্গে তাদের বন্ধন আরো শক্তিশালী করতে সহায়তা করবে। " উল্লেখ্য, হেনলির সূচকের তালিকায় সবচেয়ে তলানিতে অবস্থান করছে আফগানিস্তান ও ইরাক (৩০ টি দেশে ভিসা-ফ্রি এক্সেস)। তার উপরে রয়েছে সিরিয়া ও সোমালিয়া (৩২) এবং পাকিস্তান (৩৩)। সেরা দশ দেশ :

১. জাপান (১৯০)

২. সিঙ্গাপুর (১৮৯)

৩. দক্ষিণ কোরিয়া, জার্মানি ও ফ্রান্স (১৮৮)

৪. ডেনমার্ক, সুইডেন, ইতালি, ফিনল্যান্ড ও স্পেন (১৮৭)

৫. নরওয়ে, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, লুক্সেমবার্গ, নেদারল্যান্ড ও পর্তুগাল (১৮৬)

৬. বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড ও কানাডা (১৮৫)

৭. অস্ট্রেলিয়া, গ্রিস ও মাল্টা (১৮৩ )

৮. নিউজিল্যান্ড ও চেক প্রজাতন্ত্র (১৮২)

৯. আইসল্যান্ড (১৮১)

১০. হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া ও মালয়েশিয়া (১৮০)  বন্ধনীর ভেতরে বিনা ভিসায় প্রবেশযোগ্য দেশের সংখ্যা-

৪১ টি দেশে বিনা ভিসায় প্রবেশের অনুমতি নিয়ে তালিকায় লেবানন, ইরান ও কসোভোর সঙ্গে একত্রে বাংলাদেশের পাসপোর্টের অবস্থান ১০০তম। হেনলি এন্ড পার্টনার এ তালিকা তৈরি করে ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশন (আইএটিএ) থেকে তথ্য নিয়ে, কোন দেশের পাসপোর্ট দিয়ে কতগুলো দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার রয়েছে সেই সংখ্যার উপর ভিত্তি করে।

তালিকার জন্য তারা ১৯৯ টি দেশের পাসপোর্ট ও ২২৭ টি গন্তব্যস্থলকে আমলে নেন। এ তালিকা সারা বছর ধরেই আপডেট করা হয়, যখনই কোনো নতুন ভিসা চুক্তি সম্পন্ন হয় তখনই সে তথ্য হালনাগাদ করা হয়। পাসপোর্ট এর শক্তি তালিকা তৈরির ক্ষেত্রে আরটন ক্যাপিটাল পাসপোর্ট ইনডেক্সও বেশ অগ্রগণ্য। তবে তাদের তালিকা তৈরির প্রক্রিয়া ভিন্ন। ভিসা-ফ্রি এক্সেস ছাড়াও তারা আরো কিছু মানদণ্ডকে আমলে নিয়ে থাকে। ১৬৫ স্কোর নিয়ে তাদের তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছে জার্মানি ও সিঙ্গাপুর।

বিবিসি অবলম্বণে

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস