রাজমিস্ত্রির ছদ্মবেশে চৌকশ এসআই, ফাঁদে ধরা দিল খুনি

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৫ ১৪২৬,   ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

রাজমিস্ত্রির ছদ্মবেশে চৌকশ এসআই, ফাঁদে ধরা দিল খুনি

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৩ ২১ মে ২০১৯   আপডেট: ১৭:৫৮ ২১ মে ২০১৯

ছবি: ডিএমপি

ছবি: ডিএমপি

একজন রাজমিস্ত্রি মহল্লায় মহল্লায় ঘুরছেন কাজের জন্য। পরনে লুঙ্গি ও গেঞ্জি, পায়ে স্বল্পমূল্যের স্যান্ডেলটি ছেড়া। কাঁধে বেলচা। দেখে রাজমিস্ত্রি মনে হলেও তিনি একজন চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা, হত্যা মামলার আসামির পেছনে লেগেছেন, গ্রেফতার করবেন। তিনি রাজধানীর কদমতলী থানার এসআই মো. লালবুর রহমান।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভিাগের ডিসি মো. মাসুদুর রহমান লালবুর রহমানের এ হত্যা মামলার তদন্তের বর্ণনা দিয়ে জানান, গত ১৪ মার্চ রাজধানীর কদমতলীর ধনিয়ায় একটি ভাড়া বাসায় পারিবারিক কলহের একপর্যায়ে স্ত্রী শারমিন আক্তারকে গলা টিপে হত্যা করে স্বামী মাসুদ হাওলাদার পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পরদিন শারমিনের ভাই একটি মামলা করেন। মামলার তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে পুলিশ কর্মকর্তা লালবুর রহমান মাঠে নামেন।

এসআই লালবুর রহমান গোয়েন্দা তথ্য ও প্রযুক্তির সহায়তায় তদন্তের এক পর্যায়ে পলাতক মাসুদের অবস্থান সনাক্ত করেন। এছাড়া তিনি জানতে পারেন, হত্যাকাণ্ডের আগে মাসুদ পুরাতন প্যান্ট-শার্টের ব্যবসা করত। এজন্যে শনির আখড়ায় একটি দোকানের পজিশনও নিয়েছিল। কিন্তু হত্যাকাণ্ডের পর মাসুদ দোকান চালাবেন না বলে মালিকের কাছে জমা দেয়া অগ্রিম টাকা ফেরত চেয়েছেন। সে টাকা ফেরত নিতে ডেমরার মিন্টু চত্বর এলাকায় আসে মাসুদ। কিন্তু করিতকর্মা এই পুলিশ কর্মকর্তা এর আগেই দোকান মালিকের কাছে পৌছে যান। মালিক পক্ষকে ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে মাসুদকে গ্রেফতারে সহায়তা করতে অনুরোধ করেন। 

তারপর আসে মাসুদকে গ্রেফতারের সেই মহেন্দ্রক্ষণ। গত ১৯ মে (রোববার) দুপুর ২টার দিকে মালিকপক্ষকে মাসুদ অগ্রিমের টাকা ফেরত নিতে আসছে বলে জানায়। সংবাদিটি তারা এসআই লালবুরকে জানান। সংবাদ পেয়েই এএসআই মো. জসিমকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন লালবুর রহমান। দোকান মালিকেরা জানিয়েছেন মাসুদ খুবই চতুর। একটু টের পেলেই সটকে পড়বে।

ডিসি আরো জানান, এ তথ্য পেয়ে চৌকস এ কর্মকর্তা কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজমিস্ত্রির ছদ্মবেশ ধারণ করেন। ঈগলের চোখে কড়া নজর রাখেন মালিক পক্ষের লোকজনের দিকে। আসে মোক্ষম সময়। মুখে মাস্ক পরা পলাতক মাসুদ এসে দোকান মালিককে সালাম দেয়। পাশে দাঁড়িয়ে থাকা এসআই লালবুর সঙ্গে সঙ্গে ঝাপটে ধরে মাসুদকে। হঠাৎ এমন ঘটনায় আশপাশের লোকজন মাসুদকে ঝাপটে ধরার কারণ জানতে চায়। তখন নিজেদের পরিচয় দিয়ে মাসুদের গ্রেফতারের বিষয়ে জানান তিনি। এমন অভিনব কৌশলে হত্যামামলার পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করায় স্থানীয় লোকজন ভূয়সী প্রশংসা করেন পুলিশের এই চৌকস সকর্মকর্তাকে।

গ্রেফতার মাসুদকে গতকাল সোমবার আদালতে হাজির করা হলে সে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এসবি/এমআরকে