Alexa রাঙামাটিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু, ১৪৪ ধারা

ঢাকা, বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৮ ১৪২৬,   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

রাঙামাটিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু, ১৪৪ ধারা

 প্রকাশিত: ০৮:০৫ ২ জুন ২০১৭  

রাঙামাটিতে যুবলীগ নেতা নূরুল ইসলাম নয়নের (৩৫) মৃত্যুতে লংগদু উপজেলা সদরের থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। আজ শুক্রবার সকাল থেকে লংগদু উপজেলা সদরের তিনটিলা এলাকাসহ আশেপাশের পাহাড়িদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ শুরু হয়। আগুনে জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) লংগদু উপজেলা অফিসসহ কয়েকশ পাহাড়ি বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয় বলে খবর পাওয়া গেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দুপুরে সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করেছে উপজেলা প্রশাসন। লংগদু সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নূরুল ইসলাম নয়নকে তার মোটরসাইকেলযোগে দুই আদিবাসী ভাড়ায় নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কের চার মাইল (কৃষি গবেষণা এলাকা সংলগ্ন) নামকস্থান থেকে নূরুল ইসলাম নয়নের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত নূরুল ইসলাম নয়ন লংগদুর বাইট্টা পাড়ার বাসিন্দা মৃত ফয়েজ আহম্মদের ছেলে। তিনি ছিলেন মোটরসাইকেল চালক। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে নুরুল ইসলাম নয়নের মরদেহ খাগড়াছড়ি থেকে লংগদু নেওয়া হয়। মরদেহ বাইট্টা পাড়ার নিজ বাড়িতে নেয়া হলে সেখান থেকে সকাল ৯টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীসহ উত্তেজিত লোকজনের একটি মিছিল লংগদু উপজেলা সদরে যায়। পথে মিছিল থেকে লংগদুর তিনটিলাসহ উপজেলা সদরের আশেপাশে পাহাড়িদের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগ চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে তাৎক্ষণিক থমথমে হয়ে ওঠে লংগদুর পরিস্থিতি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জসহ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালালে পুলিশের সঙ্গে দুর্বৃত্তদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ১৪৪ ধারার কথা নিশ্চিত করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গোয়েন্দা শাখা) মো. সাফিউল সারোয়ার বলেন, বহু চেষ্টার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় সর্বশেষ শুক্রবার দুপুরে ১৪৪ ধারা জারি করেছেন লংগদু উপজেলা প্রশাসন। পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত লংগদুতে ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকবে। এদিকে যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নকে হত্যার প্রতিবাদ ও দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে রাঙামাটি শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। শহরের বনরূপা চত্বর থেকে মিছিলটি বের করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘুরে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বনরূপা আলিফ মার্কেট চত্বর গিয়ে সমাবেশ করা হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগ সভাপতি ও রাঙামাটি পৌরসভা মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. সোলাইমান চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল জব্বার সুজনসহ অন্যরা।   ডেইলি বাংলাদেশ/আইজেকে