.ঢাকা, সোমবার   ২৫ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১১ ১৪২৫,   ১৮ রজব ১৪৪০

রহিমার বিষমুক্ত বেগুন চাষ

ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ০৮:৩১ ১৪ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ০৮:৩১ ১৪ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কথায় আছে, বহুগুণ আছে যার তার নাম বেগুন। কেউ আবার বলেন, কোন গুণ না থাকায় এর নাম বেগুন। যে যাই বলুক বেগুন একটি জনপ্রিয় সবজি, সে বিষয় কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু সেই বেগুন খাওয়া আর বিষ খাওয়া নাকি একই কথা। কারণ বেগুন চাষে প্রতিদিনই বিষ প্রয়োগ করতে হয়।  

তবে আশার কথা হলো, পলিনেট ঘরে বেগুন চাষ করলে আর বিষ প্রয়োগ করা লাগবে না। মানুষ নিশিন্তে বেগুন খেতে পারবেন। বেগুনের সঙ্গে বিষের কোন সম্পর্ক থাকবে না।

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বারবাকপুর মাঠে পলিনেট ঘরে প্রদর্শনী প্লটে বিষমুক্ত বেগুন চাষে সফল হয়েছেন কৃষক। ওয়ালমার্ট ফাউন্ডেশনের সবজি উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ (এভিপিআই) প্রকল্পের আওতায় বেসরকারি সংস্থা আন্তর্জাতিক সার উন্নয়ন কেন্দ্র (আইএফডিসি) পলিনেট দিয়ে ঘেরা স্থানে এই বেগুন চাষের ব্যবস্থা করে।

গাছে ফোটায় ফোটায় (ট্রিকল) পদ্ধতিতে সেচ ও এর আগে পলিনেট ঘরে বেগুনের চারা উৎপাদন করা হয়।

বারবাকপুর গ্রামের মোকলেছুর রহমানের স্ত্রী কিষানী রহিমা খাতুন ৫ শতক জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। তার মধ্যে আড়াই শতক জমিতে পলিনেট দিয়ে ঘর করে চাষ করেছেন।

রহিমা বলেন, প্রতিবেশি মনোয়ারা খাতুনের পলিনেট ঘরে উৎপাদন করা চারা দিয়ে আড়াই শতক জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। তার আড়াই শতক জমি সাদা পলিনেট দিয়ে ঘর করা । ক্ষেতে একদিনও কোন প্রকার বিষ দেওয়া না লাগায় খরচ কম হয়েছে অনেক।

গাছে ফোটায় ফোটায় (ট্রিকল) পদ্ধতিতে সেচ দেয়ায় ৯০ দিনে পানি লেগেছে এক হাজার লিটার। অথচ, বাকি আড়াই শতক জমির বেগুন ক্ষেতে সপ্তাহে দুইদিন বিষ  দেওয়া লাগে। সেচের জন্য পানি লেগেছে ৫ হাজার ৩০০ লিটার।

রহিমা খাতুন আরো বলেন, পলিনেট ঘরে চাষ করা বেগুনের উৎপাদন ২৫ থেকে ৩৫ শতাংশ ফলন বেশি হয়েছে। বিষমুক্ত এই বেগুনের দামও বেশি। পলিনেট ঘরে চাষের বেগুন একটাও বাদ যায় না কিন্তু প্রচলিত চাষের ক্ষেতে সপ্তাহে দুইদিন বিষ দেওয়ার পরও ৩০ শতাংশ পোকা লাগার কারণে বাদ যায়।

ওয়ালমার্ট ফাউন্ডেশনের সবজি উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ (এভিপিআই) প্রকল্পের জুনিয়র হটিকালচারিস্ট বদিউজ্জামান বলেন, নেটঘেরা বেগুনের ক্ষেতে কোনক্রমেই পোকার আক্রমণ হবে না। চারা রোপণ থেকে শুরু করে বেগুন তোলা পর্যন্ত কখনো কোন ধরণের বিষ প্রয়োগের প্রয়োজন হয় না। বেগুন হয় পুরোপুরি বিষমুক্ত। ক্ষেতে ব্যবহৃত নেট কয়েক বছর ব্যবহার করা যাবে। বিষয়টি কৃষক কিষানীদের বোঝানোর জন্য পলিনেট ঘেরা জমির পাশে সমপরিমাণ জমিতেও একই সঙ্গে প্রচলিতভাবে বেগুন চাষ করা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে