Alexa রহস্যময় আলুটিলা গুহায় একদিন

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৯ ১৪২৬,   ২৪ মুহররম ১৪৪১

Akash

রহস্যময় আলুটিলা গুহায় একদিন

ভ্রমণ প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪০ ২ জুন ২০১৯  

আলুটিলার আলোর রশ্মি

আলুটিলার আলোর রশ্মি

পার্বত্য চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি জেলায় আলুটিলা গুহা’র অবস্থান। এটি ‘মাতাই হাকড়’ বা ‘দেবতার গুহা’ নামেও পরিচিত। এ গুহার দৈর্ঘ্য ৩৫০ ফুট। ভেতরে সব সময় অন্ধকার থাকে, তাই গুহায় প্রবেশ করতে হলে মশালের প্রয়োজন হয়। আলুটিলা গুহার কাছেই রয়েছে রিসাং ঝরনা। আলুটিলায় ঘুরতে এসে এত কাছের ঝরনা না দেখে চলে যাওয়া মোটেও ঠিক হবে না!

রহস্যময় সুড়ঙ্গ জায়গাটির প্রধান আকর্ষণ। পাহাড়ের চূড়া থেকে ২৬৬টি সিঁড়ির নিচে আলুটিলা পাহাড়ের পাদদেশে পাথর আর শিলা মাটির ভাঁজে গড়া এ রহস্যময় সুড়ঙ্গের অবস্থান। গুহামুখের ব্যাস প্রায় ১৮ ফুট। গুহায় যেতে হলে প্রথমেই আপনাকে টিকেট কেটে নিতে হবে মূল গেট থেকে। এরপর মশাল কিনে নিতে হবে। প্রধান গেট দিয়ে ঢোকার পরে বেশ খানিকটা পাহাড়ি পথ পেরুলেই মিলবে গুহার সন্ধান। গুহার পাথরগুলো পিচ্ছিল হবার কারণে পা পিছলে যায় এমন স্যান্ডেল বা জুতা পরা যাবে না। অতিরিক্ত নিরাপত্তার জন্য মোবাইল টর্চ বা টর্চ লাইট নিয়ে যেতে পারেন সঙ্গে। যারা আলুটিলার আলোর রশ্মি দেখতে চান, তাদের অবশ্যই সকাল ৯টার আগে সেখানে যেতে হবে।

গুহার ভেতরে মশাল যাত্রা!

নির্দেশনা

খাগড়াছড়ি শহর থেকে চান্দের গাড়ি, সিএনজি, মোটরবাইক অথবা লোকাল বাসে যাওয়া যায় আলুটিলায়। গুহার কাছেই আছে বৌদ্ধ মন্দির ও রিসাং ঝরনা। তাই সবচেয়ে ভালো আপনি যদি একসঙ্গে সবগুলো জায়গা ঘুরতে বেরিয়ে পড়েন। এ তিনটি পর্যটন কেন্দ্র ঘুরে দেখতে ৪-৫ ঘণ্টা সময় লাগবে। সাধারণত চান্দের গাড়ি (১০-১৩ জনের জন্য) রিজার্ভ করতে লাগবে ২০০০-৩০০০ টাকা ও সিএনজিতে খরচ হবে ৮০০-১০০০ টাকা। ভাড়া অবশ্যই দরদাম করবেন।

অ্যাডভেঞ্চার ও ভ্রমন পিপাসুদের জীবনে অন্তত একবার হলেও ঘুরে আসা উচিত এই গুহাটি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে