Alexa রতিসুখের চরম উষ্নতা এই শীতেও

ঢাকা, সোমবার   ২৬ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ১১ ১৪২৬,   ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

রতিসুখের চরম উষ্নতা এই শীতেও

 প্রকাশিত: ১৫:১৬ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১৬:১৮ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

বাসনার মাধ্যমে যে কামনার আগুন জ্বলে উঠে সেই আগুনে নাকি একটু সময় নিয়ে পুড়তে হয়। তাহলেই দেহ শুদ্ধ হয়। মেলে সর্বোচ্চ রতিসুখ। তার জন্য চাই সাধনা।

তাই শরীরেরও সাধনা প্রয়োজন। প্রয়োজন সেই স্পর্শের সেই সুখ যা সর্পিল গতিতে ধীরে ধীরে কামনার চরম পর্যায়ে পৌঁছে দেবে। রতিশাস্ত্রেও এমনই ইঙ্গিত দেওয়া রয়েছে।

দুই দেহের মিলনে গতি অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সময়। আবেগের উপর খুবই সন্তর্পণে নিয়ন্ত্রণ রাখতে হয়। তাড়াহুড়ো করলে গন্তব্যে হয়তো একটু আগে পৌঁছানো যাবে কিন্তু রাস্তার আনন্দটুকু আর থাকবে না।

হ্যাঁ, গন্তব্যে পৌঁছানোটাই আসল লক্ষ্য। তবে তার রাস্তারও আলাদা মাহাত্ম্য রয়েছে। সেটাকেও অনুভব করতে হবে যে। আর এক্ষেত্রে ছোঁয়ার গুরুত্ব অপরিসীম। স্পর্শের মাধ্যমেই সঙ্গী আপনার ভালবাসার গভীরতাকে সবচেয়ে ভাল অনুভব করতে পারবেন।

সর্পিল গতিতে সারা শরীরজুড়ে ছড়িয়ে পড়ুন। শরীরের প্রতিটা অঙ্গকে নিজে অনুভব করুণ। সঙ্গীকে অনুভব করতে দিন। তবে খুবই সন্তর্পণে। আলতো স্পর্শেই সুখানুভূতি ছড়িয়ে দিন। এতে যথেষ্ট সময় ব্যয় করুন। আবেগের চরম মুহূর্তেও নিজেকে একটু ধরে রাখতে শিখুন। এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

চূড়ান্ত সময়টি বুঝতে পারাটা ভীষণ প্রয়োজন। মিলনের সময়ও তাড়াহুড়ো একদম করবেন না। আর অবশ্যই সঙ্গীর চোখে-চোখ রাখবেন। তাকে বোঝাবেন কতটা গভীর আপনার আবেগ। শুভ দৃষ্টির এই মিলনেই মিশে যেতে দিন দু’টি দেহকে।

 

সময় নিয়েই সুখানুভূতিকে বাড়তে দিন। ছন্দেই চলুন তাড়াহুড়োর কিছু নেই। চরম সুখ পাওয়ার আগের সময়টাকে উপভোগ করুন। সময় নিজের নিয়মেই আসবে। শেষের মুহূর্তে দুই শরীরই নিজস্ব তাগিদে সাড়া দেবে। এলিয়ে দেবে ভালবাসার সেই মুহূর্ত যা এই শীতেও আপনাকে উষ্ণতায় ভরিয়ে দেবে।

তবে হ্যাঁ, সঙ্গমের পরও সঙ্গীর শরীরকে সঙ্গে সঙ্গে নির্লিপ্ত হতে দেবেন না। তারপরও একটু ভালবাসার ছোঁয়া অবসন্ন দেহটার প্রয়োজন হয়। সেই কাজটি করতে ভুলবেন না।

ঠোঁটের আলতো পরশে তাকে নিজের মনের কথাটি জানিয়ে দেবেন। এভাবেই আপনি ও আপনার সঙ্গী রতিসাধনায় সিদ্ধি লাভ করবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে

Best Electronics
Best Electronics