রঙ-বেরঙের উদ্ভট চা!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬,   ১৭ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

রঙ-বেরঙের উদ্ভট চা!

জান্নাতুল মাওয়া সুইটি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:০০ ২৪ এপ্রিল ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চা ছাড়া নিশ্চয়ই আপনার একটি দিনও চলে না! বিশেষ করে বাঙালিদের কাছে এক কাপ চায়ের মাহাত্ম্য যে কী তা ইতিহাস জানে। সকাল থেকে রাত অব্দি চায়ের কাপে চুমুক দেন অগণিত মানুষ। চা প্রেমীদের কাছে পানি নয় বরং জীবনের অন্য নাম চা। মাথা ব্যথায় আদা চা, গলা ব্যাথায় তুলসি চা থেকে শুরু করে লেবু চা আর কড়া করে দুধ চা তো রয়েছেই। কিন্তু আপনি কি জানেন যে পৃথিবীতে এমন হরেক আজব ধাঁচের চা রয়েছে যা মিষ্টি চা, মশলা চা বা লিকার চায়ের থেকে আলাদা তো বটেই, খানিক উদ্ভটও! তবে জেনে নিন বিশ্বের সেরা ১০ টি উদ্ভট চায়ের সন্ধান-

১০. পান্ডার মলের চা
এটি ‘পান্ডা ডাং টি’ নামে পরিচিত। চিন্তা করবেন না, এটা পান্ডার মল থেকে তৈরি করা হয়না। পান্ডা ডাং চা আসলে চিনের সিচুয়ানের ইয়াং প্রদেশে চাষ করা এক ধরনের চা যাতে সার হিসাবে পান্ডার মল ব্যবহার করা হয়। এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামী চায়ের অন্যতম।

৯. টমেটো মিন্ট চা
নামের মতোই এই চা টমেটো, পুদিনা এবং কালো চায়ের একটি দুর্দান্ত ভূমধ্যসাগরীয় মিশ্রণ। এর স্বাদ ব্যখ্যা করে অনেকেই বলেছেন স্যুপের মতো।

৮. রসুন চা 
রসুন স্বাস্থ্যের জন্য কতটা উপকারি তা সবারই জানা। তাই স্বাস্থ্য সচেতনরা রসুন চায়ের প্রতি দূর্বল। এই চায়ের স্বাস্থ্যগুণও অনবদ্য! রসুন কুচি সঙ্গে আদা কুচিসহ মধু ঢেলে এই চা তৈরি করা হয়। 

৭. ছারপোকার মলের চা 
‘বাগ পুপ টি’ নামক এই চায়ের কদর অনেক। পান্ডা ডাং চায়ের থেকে এটি ভিন্ন। এই চা সত্যি করেই ছারপোকার মল দিয়েই বানানো! এই চা শস্যের মথ লার্ভার মল থেকে তৈরি করা হয়। এই লার্ভাদেরকে খাওয়ানো হয় কেবলই জৈব চা পাতা।

৬. সিলোসিবিন মাশরুম চা
কোরিয়াতে এই চায়ের ব্যপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। সেখানে মাশরুমের এর নাম ‘বিয়োসিয়োট-চা’। মাশরুম কুচি পোনিতে ফুটিয়ে বিশেষ পদ্ধতিতে এই চা থৈরি করা হয়। 

৫. স্পার্কলিং চা
চায়ের কাপে নয় বরং এই চা আপনি কাচের বোতলে অথবা ক্যানেই খেতে পারবেন। স্পার্কলিং চা মূলত প্রাচীন পানীয়ের সামান্য মেলবন্ধন। কার্বনেশন যোগ করে এই চা বোতলবন্দি করা হয় এবং সাধারণত এটি ঠান্ডাই খাওয়া হয়।

৪. পু-এরহ চা
এটি চিনে তৈরি একটি বিশেষ পদ্ধতির চা। এটি একধরণের সবুজ চা যা ধীরে ধীরে একটি বিশেষ ছত্রাক ব্যবহার করে পুরনো করা হয় এবং সারা বিশ্বেই এর জনপ্রিয়তা রয়েছে।

৩. কম্বুচা চা
সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কম্বুচা চায়ের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি একটি টক চা যা ব্যাকটেরিয়া এবং ইস্ট ব্যবহার করে তৈরি করা হয়।

২. স্যালভিয়া চা
এটিও একটি হ্যালুসিনোজেন পানীয় যা মেক্সিকান বিভিন্ন অনুষ্ঠানে খাওয়া হয়। এই বিশেষ চা খাওয়ার চেষ্টা না করাই ভালো, কারণ এটি বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে নিষিদ্ধ।

১. ফার্মেন্টেড ইয়াক মাখন চা 
মাখনযুক্ত ইয়াক চা মাখন এবং লবণ মিশিয়ে তৈরি করা হয়। এর প্রস্তুতিতে অর্ধেক দিন লেগে যেতে পারে। এটি নেপাল, ভুটান, ভারত এবং তিব্বতের হিমালয়ের অঞ্চলে জনপ্রিয় পানীয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস

Best Electronics