Alexa ‘যুবলীগ নেতা নয়নকে কারা হত্যা করেছে তা সবাই জানে’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৭ ১৪২৬,   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

‘যুবলীগ নেতা নয়নকে কারা হত্যা করেছে তা সবাই জানে’

 প্রকাশিত: ২১:৫৬ ৩ জুন ২০১৭  

লংগদুর যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নকে হত্যা করা হয়েছে এবং এ ঘটনায় কারা জড়িত তাও সবাই জানে বলে মন্তব্য করেছেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। শনিবার সুপার সাঈদ তারিকুল হাসানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর এ মন্তব্য করেন তিনি। পরে দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আগুন দেওয়ার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া মানুষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। মতবিনিময়ের সময় জেলা প্রশাসক বলেন, নয়নকে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করতে হবে। এরপর তিনি আঞ্চলিক সংগঠন- পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস), ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ), পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে (জেএসএস-লারমা) ইঙ্গিত করে বলেন, ‘নয়নকে কে বা কারা হত্যা করেছে তা সবাই জানে।’ তিনি আরও বলেন, এখানে প্রত্যেকটি আঞ্চলিক সংগঠন অন্যায় করে যাচ্ছে। আমাদের কাছে এই তথ্যও রয়েছে, জুম চাষ বা কলা নিয়ে বাজারে বিক্রি করতে গেলেও ওই সংগঠনগুলোকে পাহাড়িরা চাঁদা দিতে বাধ্য হন। এইসব অন্যায় বন্ধ না করলে খুন-গুমের মতো অন্যায় চলতে থাকবে। চাঁদাবাজিসহ সব ধরনের অন্যায়ই বন্ধ করতে হবে। জেলা প্রশাসক বলেন, নয়নকে আর ফিরে পাওয়া যাবে না। নয়ন হত্যার জের ধরে পাহাড়িদের ঘরবাড়িতে আগুন দেওয়ায় পাহাড়ি-বাঙালিদের মধ্যকার বিশ্বাস ও সম্প্রীতি নষ্ট হয়েছে। এই বিশ্বাস ও সম্প্রীতি আবার সৃষ্টি হতে সময় লাগবে। পুড়িয়ে দেওয়া ঘরবাড়ি আবার নির্মাণ করা যাবে, কিন্তু নষ্ট হওয়া বিশ্বাস-সম্প্রীতি কীভাবে তৈরি হবে! উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার লংগদু উপজেলার সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়নের লাশ দীঘিনালার চারমাইল এলাকায় পাওয়া যায়। স্থানীয় বাঙালিরা এই ঘটনার জন্য পাহাড়ের আঞ্চলিক সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোকে দায়ী করেছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার সকালে নয়নের লাশ নিয়ে একটি বিক্ষোভ মিছিল উপজেলা সদরে আসার পথে পাহাড়িদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে। এসময় শতাধিক বাড়ি আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ডেইলি বাংলাদেশ/এসএইচ