যুক্তরাষ্ট্রে সহিংসতায় ৩ বিক্ষোভকারী নিহত, গুলিবিদ্ধ ৫ পুলিশ

ঢাকা, বুধবার   ১৫ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ৩১ ১৪২৭,   ২৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

যুক্তরাষ্ট্রে সহিংসতায় ৩ বিক্ষোভকারী নিহত, গুলিবিদ্ধ ৫ পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:০২ ২ জুন ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডকে শ্বাসরোধ করে হত্যার প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্রে চলমান বিক্ষোভ ক্রমেই আরো সহিংস রূপ ধারণ করছে। দেশটির ৪০টিরও বেশি শহরে জারি হওয়া কারফিউ অমান্য করে বিক্ষোভ করতে গিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ৩ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। এছাড়া বিক্ষোভকারীদের পাল্টা হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েছে ৫ পুলিশ সদস্য।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ইউএসএ টুডে জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের লোয়া অঙ্গরাজ্যে বিক্ষোভের সময় গুলিতে ইতালিয়া মেরি কেলি নামে ২২ বছর বয়সী এক তরুণীসহ অন্তত দু'জন নিহত হয়েছেন। এছাড়াও সেখানকার অন্তত ২০টি জায়গায় গোলাগুলির খবর পাওয়া গেছে।

ডাভেনপোর্ট মেয়র মাইক ম্যাটসন জানিয়েছেন, শহরটিতে অন্তত চারজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এদের মধ্যে দু'জন মারা গেছেন, বাকি দু’জন চিকিৎসাধীন। তাদের মধ্যে একজন পুলিশ কর্মকর্তা রয়েছেন।

সিএনএন জানিয়েছে, সোমবার কেন্টাকির লুইসভিলে নিরাপত্তা সদস্যদের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন ডেভিড ম্যাকআটি নামে এক ব্যক্তি। পুলিশ ও ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যরা বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার সময় দু’পক্ষের গোলাগুলিতে তিনি নিহত হয়েছেন বলে দাবি পুলিশের। এ ঘটনার জেরে লুইসভিলের পুলিশ প্রধানকে বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ।

সোমবার সেন্ট লুইসে চার পুলিশ সদসস্যের ওপর গুলি চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। রাতে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের সময় তারা আহত হন। তাদের অবস্থা শঙ্কামুক্ত হলেও সবাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ ঘটনার মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগেই বিক্ষোভ দমনে সর্বশক্তি প্রয়োগের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে এক ব্রিফিংয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, ‘এই দাঙ্গার সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী হচ্ছে আমাদের দরিদ্র সম্প্রদায়ের শান্তিপূর্ণ জনগণ। প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি তাদের নিরাপদে রাখতে লড়ে যাবো। আমিই আপনাদের আইন।’

ট্রাম্প নিজেকে ‘শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের মিত্র’ বলে দাবি করলেও তার এই বক্তব্য চলাকালেই হোয়াইট হাউসের বাইরে চলছিল নিরাপত্তা বাহিনীর তাণ্ডব। এসময় বিক্ষোভকারীদের ওপর রাবার বুলেট-টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে তারা। টেলিভিশনে ট্রাম্পের ভাষণের মধ্যেই বারবার মাথার ওপর দিয়ে হেলিকপ্টারের ওড়াউড়ি ও সহিংসতার শব্দ পাওয়া যাচ্ছিল।

তিনি বলেন, ‘আমি দাঙ্গা, লুটপাট, সন্ত্রাস, সহিংসতা ও সম্পদ বিনষ্ট রোধে হাজার হাজার সশস্ত্র সৈন্য, মিলিটারি ও আইনপ্রয়োগকারী বাহিনীর সদস্য নামাচ্ছি।’

এসময় সড়কের দখল নিতে অঙ্গরাজ্যগুলোর গভর্নরদের অতিরিক্ত ন্যাশনাল গার্ড সদস্য মোতায়েনের নির্দেশ দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘যদি কোনও শহর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অস্বীকৃতি জানায়… তাহলে তাদের সমস্যা সমাধানে আমিই মিলিটারি নামিয়ে দেবো।’

তবে এই হূমকির কয়েক ঘণ্টা পরেই ব্রুকলিনসহ বিভিন্ন শহরের রাস্তায় নেমে আসেন হাজার হাজার বিক্ষোভকারী।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী