মোহাম্মদ সালাহ: এক মৌসুমের বিস্ময় নাকি লম্বা দৌড়ের ঘোড়া
SELECT bn_content_arch.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content_arch INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content_arch.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content_arch.ContentID WHERE bn_content_arch.Deletable=1 AND bn_content_arch.ShowContent=1 AND bn_content_arch.ContentID=35354 LIMIT 1

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ৩০ ১৪২৭,   ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

মোহাম্মদ সালাহ: এক মৌসুমের বিস্ময় নাকি লম্বা দৌড়ের ঘোড়া

 প্রকাশিত: ১৬:২০ ২৯ এপ্রিল ২০১৮   আপডেট: ১৬:৩৩ ২৯ এপ্রিল ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বর্তমান সময়ের সেরা ফুটবলার কে মেসি নাকি রোনালদো?

৫টি করে ব্যালন ডি অর জয়ী এই দুজনের মধ্যে এই প্রশ্নের উত্তরটা খুঁজতে যখন পুরো বিশ্ব বুঁদ সেই সময়েই লিভারপুলের সাবেক তারকা স্টিভেন জেরার্ড বলে বসলেন মেসি বা রোনালদো নয় বরং বর্তমান সময়ের সেরা ফুটবলার হলেন মোহাম্মদ সালাহ।

কে এই মোহাম্মদ সালাহ?
সুদূর মিশরের জাতীয় দলের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ইতোমধ্যেই পরিচিতি পেয়ে গেছেন সালাহ।

১৯৯০ সালের পর তার একক কৃতিত্বেই ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো কোয়ালিফাই করে মিশর। কোয়ালিফাই রাউন্ডে তিনি ৫টি গোল করেছে যা দলের পক্ষে সর্বোচ্চ।

মোহাম্মদ সালাহ এই পর্যন্ত জাতীয় দলের হয়ে ৫৭ ম্যাচে গোল করেছেন ৩৩টি।

মিশর প্রিমিয়ার লীগে ক্যারিয়ার শুরু করে সুইস লীগে বাসেল এর হয়ে ২ মৌসুম খেলে এসেছিলেন চেলসিতে ২০১৩-১৪ মৌসুমে।

দুই মৌসুম চেলসিতে থেকেও খুব বেশি আলো ছড়াতে পারেননি। পরবর্তীতে সিরিএ-তে ফিওরেন্তিনাতে এক মৌসুম লোনে যাওয়ার পর রোমাতে যোগ দেন। সেখানে ধীরে ধীরে নিজেকে চিনাতে শুরু করেন।

তবে তাকে নিয়ে মাতামাতি শুরু হয় এই মৌসুমে লিভারপুলে যোগ দেয়ার পর থেকে। যেন- নিজেকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন সালাহ।

ইতোমধ্যে এই মৌসুমে তিনি ৪৩ গোল করে ফেলেছেন লিভারপুলের হয়ে, যা ২০০৮ সালে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ৪০+ গোলের পর আর কোনো ইপিএল খেলোয়াড় করতে পারেননি।



এই মৌসুমে করেছেন আরো অসংখ্য রেকর্ড। ৩৮ ম্যাচের প্রিমিয়ার লীগের সিজনে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোল সংখ্যার দিকে থেকে ছুঁয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লুইস সুয়ারেজকে।

অভিষেক মৌসুমে লিভারপুলের হয়ে করেছেন সর্বোচ্চ গোল। প্রিমিয়ার লীগে আফ্রিকান খেলোয়াড় হিসেবে করেছেন সর্বোচ্চ গোল।

আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগেও তার পারফরম্যান্স এখন পর্যন্ত অতুলনীয়। করেছেন ১১টি গোল। রোনালদোর জুভেন্তাসের বিপক্ষের বিস্ময়কর পারফরম্যান্সকে পিছে ফেলে হয়েছেন প্লেয়ার অব দ্যা উইক।

সালাহ এর মনোমুগ্ধকর খেলায় মুগ্ধ হয়েছেন দর্শক সমর্থক থেকে শুরু করে বড় বড় ফুটবল বোদ্ধারাও। অনেকেই মনে করছেন এই বছরের ব্যালন ডি অর মেসি আর রোনালদোর চক্র ভেঙ্গে সালাহ এর হাতে যেতেও পারে।

কেউ কেউ তো বলছেন মেসি আর রোনালদোর জায়গা দখল করে নিতে এসেছেন এই মিশরীয় রাজা।

এই মৌসুমে সালাহ এর যেমন পারফরফরম্যান্স তাতে তিনি ব্যালন ডি অর পেলেও পেয়ে যেতে পারেন, যদি তিনি লিভারপুলকে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জেতাতে পারেন।

তবে কাজটি রিয়াল মাদ্রিদ বা বায়ার্ন যে-ই যাক ফাইনালে খুব সহজ হবে না সালাহ এর জন্য।

আর রোনালদো-মেসির যুগে তাদের সাথে সালাহকে তুলনা দিতে এখনই নারাজ বেশিরভাগ ফুটবল সমর্থকই।

কারণ, মেসি-রোনালদো যেই জাদু দেখিয়েছেন এবং দেখিয়ে যাচ্ছে তা চলে আসছে এক দশক ধরে। এক দশক ধরে তাদের দুজনের কারোরই পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতায় ঘাটতি পরেনি এতটুকু।

কখনো রোনালদো কখনো মেসি দুজনের মধ্যে প্রতিযোগিতা হয়েছে ভালোই, একেক মৌসুমে জিতেছেন একেক জন। তবে এই দুজনকে অতিক্রম করতে পারেননি অন্য কেউ।

সালাহকে তাদের সমকক্ষে আসতে হলেও পারফর্ম করতে হবে কমপক্ষে আরো ৯ মৌসুমে জিততে হবে ৫টি ব্যালন ডি অর।

লিভারপুলকে লীগ ট্রফি এবং চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জেতাতে হবে। তাই বলা যায় তার সামনে এখনো আরো অনেক পথ পাড়ি দেয়া বাকি।

এক মৌসুমেই এমন অতিমানবীয় পারফর্ম করে আরো অনেকেই সাধারণ মানের খেলোয়াড় হয়ে বাকি ক্যারিয়ার কাটিয়েছেন এমন উদাহরণও কম নেই।

এক সাক্ষাৎকারে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কিছু ফ্যানরা বলেছেন, এই মৌসুমে সে যা করছে পরবর্তী মৌসুমে যখন অন্য দলগুলো তাকে টার্গেট করে প্ল্যান করা শুরু করবে তখন এই খেলা দেখাতে তাকে বেশ কষ্টই করতে হবে।

আরেক জন বলেছেন সালাহ এর ক্রিস্টিয়ানোর মতোন ডিসিপ্লিন বা মেসির মতোন বল কন্ট্রোল নেই। এই প্রতিভা দিয়ে ২-১ মৌসুম ভালো করা যায়, রন বা মেসি হওয়া যায় না।

কিন্তু তার জাদুতে মুগ্ধ সমর্থকদের মন এত সব যুক্তি তর্কের তোয়াক্কা করবেন কেন। তাদের কাছে সালাহ অভূতপূর্বে। সালাহ এর ভক্ত সমর্থক বর্তমানে নেহায়েত কম নয়।

তারাই ম্যান ইউ এর ভক্তদের এই যুক্তির বিপক্ষ বলছেন যে, সালাহ এর প্রতিভার সাথে আছে ধারাবাহিকতাও।

তার প্রমাণ হলো, সালাহ হুট হাট ২-১ ম্যাচে ২-৩ টি হ্যাট্রিক করে তার গোল ট্যালি বাড়াননি বরং প্রতি ম্যাচেই ২-১ গোল করে ধারাবাহিক ভাবে প্রতি ম্যাচে গোল করেছেন।

তিনি করেছেন প্রিমিয়ার লীগের এক মৌসুমে সর্বোচ্চ সংখ্যক ম্যাচে (২৩টি) গোল করার রেকর্ড। যা একটি ধারাবাহিক খেলোয়াড়ের প্রমাণ দেয়।

আবার তার একক নৈপুণ্যের আরেকটি প্রমাণ হলো প্রিমিয়ার লীগে করা তার ৩১ টি গোলের মাত্র ১ টি পেনাল্টি স্পট থেকে।

তার স্ট্যাটিস্টিকস পর্যবেক্ষণ করলেও দেখা যায় দিন দিন তার পারফরম্যান্স উন্নতই হচ্ছে। রোমাতে তিনি যেমন ছিলেন লিভারপুলে এসে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। তিনি এক মৌসুমের বিস্ময় হয়ে জ্বলে উঠেছেন ।

এখান থেকে তিনি মেসি-রোনালদোর উত্তরসূরী হতে পারবেন কি না সেটা জানতে হলেও আমাদের অপেক্ষা করতে হবে আরো দীর্ঘ সময়।

রোনালদো ও মেসির সাথে তার তুলনা করার জন্যও নূন্যতম আরো এক মৌসুম তাকে এভাবে খেলে যেতে হবে।

কিন্তু, ইতোমধ্যে তার মধ্যে যে লম্বা দৌড়ের ঘোড়া হওয়ার বৈশিষ্ট্য আছে তা প্রমাণিত। শুধু প্রয়োজন আরো পরিশ্রম, আরেকটু বড় সুযোগ আর কিছুটা ভাগ্যের সহায়তায় কিছু ট্রফি।

এর মধ্যেই সালাহকে দলে ভেড়ানোর জন্য ইউরোপের বিভিন্ন দল মুখিয়ে আছে। রিয়াল, বার্সা, অ্যাটলেটিকো, জুভেন্তাস, পিএসজি সবার সাথেই সালাহ এর দল পরিবর্তনের গুঞ্জন শোনা গেছে।

মিশরের জাতীয় দলের জন্য এবং মিশরের মানুষদের কাছে তিনি এখনই প্রভুর মতোন সম্মান পান। জাতীয় দলের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ নায়ক তিনি।



একই ভূমিকা কি তিনি লিভারপুলের জন্য রাখতে পারবেন?

এতগুলো বছর পর লিভারপুল এর ক্যাবিনেটে ইউসিএল বা লীগ ট্রফি এনে দিতে পারবেন কি? নাকি নিজেকে প্রমাণ করতে আরো বড় দলে যোগ দিবেন?

হয়তো ছাড়িয়ে যাবেন মেসি-রোনালদোকেও! অথবা হয়তো আগামী মৌসুমেই সব আশায় জল ঢেলে হারিয়ে যাবেন আবার। সেই প্রশ্নগুলো তোলা থাক সময়ের কাছে।

বর্তমানে না হয় মেসি-রোনালদোকে পাশে রেখে মোহাম্মদ সালাহ এর জাদু উপভোগ করুক ফুটবল বিশ্ব।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে