মোটরসাইকেলে ঘুচল বেকারত্ব

.ঢাকা, বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ১০ ১৪২৬,   ১৮ শা'বান ১৪৪০

মোটরসাইকেলে ঘুচল বেকারত্ব

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৪ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৯:১৭ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

উচ্চ শিক্ষাগ্রহণ করে খালি হাতে বসে নেই সুনামগঞ্জের ১১ উপজেলার ২০ হাজার যুবক। বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেতে চালাচ্ছেন মোটরসাইকেল। এতে আয়ও হচ্ছে বেশ ভালো।

জেলার সব উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলে বর্ষা মৌসুমে নৌকা ও শুষ্ক মৌসুমে মোটরসাইকেল চলে। এর বেশির ভাগ চালক যুবক। এর মধ্যে তাহিরপুরের অঞ্চলে মানুষ হাঁটার বদলে মোটরসাইকেল ব্যবহারে স্বাচ্ছন্দবোধ করছে। তাহিরপুর ছাড়াও বিশ্বম্ভরপুর, জামালগঞ্জ, মধ্যনগর, ধর্মপাশা, দিরাই, শাল্লা উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলে যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল করে না। এতে বিকল্প বাহন হিসেবে মোটরসাইকেল দেখা যায়।   

তাহিরপুরের বীরনগড় গ্রামের মোটরসাইকেল চালক সবুজ মিয়া বলেন, প্রতিদিন সকাল থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে খরচ শেষে ৪০০-৫০০ টাকা আয় হয়। কোনদিন এক হাজার টাকাও আয় করতে পারি। রাজনৈতিক মিছিলে মোটরসাইকেল চালকদের গুরুত্ব বেড়ে যায়।

মোটরসাইকেল চালক আবুল হোসেন বলেন, সারাদিন আয়ের টাকা সঞ্চয় করে অনেকে একাধিক মোটরসাইকেলের মালিক হয়েছেন। গ্রাম-গঞ্জে মোটরসাইকেল চালিয়ে আয়ের টাকায় পরিবার নিয়ে সুখেই আছি।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, মোটরসাইকেল চালকরা সরকারি চাকরির আশায় না বসে সৎভাবে আয় করছে। এমন উদ্যোগ প্রশংসার যোগ্য।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ