মৃত শিশুরা আজো খেলা করে এই পার্কে!
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=187472 LIMIT 1

ঢাকা, বুধবার   ০৫ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২১ ১৪২৭,   ১৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

মৃত শিশুরা আজো খেলা করে এই পার্কে!

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১৭ ১৩ জুন ২০২০   আপডেট: ১৪:৩৬ ১৩ জুন ২০২০

ছবি: ম্যাপল হিল পার্ক

ছবি: ম্যাপল হিল পার্ক

বড়দের চেয়ে ছোটরাই বেশি আনন্দ করে পার্কে। শিশুদের মুখরিত কলরব ছাড়া কোনো পার্কেরই সৌন্দর্য ফুটে ওঠে না। তেমনই একটি পার্ক রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামাতে। সেখানকার একটি পার্কে খেলা করে মৃত শিশুরা! অবাক হচ্ছেন নিশ্চয়! ভাবতে অবাক লাগলেও বিষয়টি অনেকের চোখেই দৃষ্টিগোচর হয়েছে।  

এই রহস্যময় পার্কের পাশেই রয়েছে একটি সমাধিস্থল। যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামা অঙ্গরাজ্যের হান্টসভিলে ওই ম্যাপল হিল সমাধিস্থলটি অবস্থিত। এটি আলাবামার প্রাচীন এবং বৃহত্তম সমাধিস্থল। ১৮২২ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া এই সমাধিস্থলের অবস্থান প্রায় ১০০ একর জায়গা জুড়ে। এখানে ৮০ হাজারেরও বেশি সমাধি রয়েছে।

আর এই ম্যাপল হিল সমাধিস্থলের পাশেই রয়েছে খেলার মাঠ ও পার্কটি। একসময় এই খেলার মাঠের স্থানে ছিল একটি চুনাপাথরের খনি। এজন্য এই মাঠটির চারপাশে উঁচু চূড়া রয়েছে। চুনাপাথরের খনি খননের কারণেই স্থানটিতে চূড়াগুলোর সৃষ্টি হয়েছে। 

সমাধিস্থলপরবর্তীতে খনির জায়গায় খেলার মাঠ স্থাপিত হলে সেখানে ফুলগাছে ভরে ওঠে। হান্টসভিলে ১৯৬০ সালে অসংখ্য শিশু গুম হওয়ার ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের ধারণা, কোনো অচেনা ব্যক্তি বাচ্চাদের হত্যা করছে। 

এর কিছুদিন পর পরিত্যক্ত কয়লা খনির খাদের মধ্য থেকে একটি ছোট মাথার খুলি পাওয়া যায়। বাচ্চাদের হত্যা করার সন্দেহ জোরদার হয়। আরো তদন্ত করে এই খাঁদ থেকে অল্প কিছু দিন পূর্বে হত্যা করা শিশুদের বেশ কয়েকটি কঙ্কাল পাওয়া যায়। তাদেরকে নির্মমভাবে হত্যা করার আলামত পায় পুলিশরা। 

জানা যায়, দীর্ঘদিন আটকে রেখে তাদের উপর অত্যাচার করা হয়েছিল। মৃতদেহে আঘাতের অনেক চিহ্ন ছিল। শিশুদের লাশের সন্ধান পাওয়ার পর এই অঞ্চলে শিশু গুম হওয়ার ঘটনাও বন্ধ হয়ে যায়। তবে হত্যাকারীর সন্ধান মেলেনি। এমনকি তাদের হত্যার রহস্যও জানা যায়নি কখনো। খুন হওয়া বাচ্চাদেরকেও ওই ম্যাপল হিল সমাধিস্থলে দাফন করা হয়।  

রাত হলেই দেখা যায় রহস্যময় সাদা আলোএই ভয়াবহ ঘটনার দীর্ঘ ২৫ বছর পর ১৯৮৫ সালে পরিত্যক্ত চুনা পাথর খনি এবং আশেপাশের স্থান জুড়ে ম্যাপল হিল পার্ক গড়ে ওঠে। উল্লেখ্য পার্কটি ম্যাপল হিল সমাধিস্থলের পাশেই অবস্থিত। পার্কটি স্থানীয়দের কাছে মৃত শিশুদের খেলার মাঠ হিসেবে পরিচিত।

২০০৭ সালে সমাধিস্থলের স্থান সম্প্রসারণের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ম্যাপল হিল পার্কটি সরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করে। তারা পার্কের স্থাপনাগুলোও অপসারণ করতে শুরু করে। তবে স্থানীয় জনগণের বিক্ষোভের মুখে সমাধিস্থল কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়। এমনকি সরিয়ে নেয়া সরঞ্জামগুলোও পূর্বের মতো স্থাপন করা হয়। 

ম্যাপল হিল পার্কে রহস্যময় অতিপ্রাকৃত ঘটনা ঘটে বলে অনেকেই দাবি করেছেন। অতিপ্রাকৃত ঘটনা নিয়ে গবেষণা করা ব্যক্তিদের মধ্যেও অনেকে এই দাবি সত্য বলে মনে করেন। স্থানীয়রা পার্কের স্লিপ থেকে কিছু উজ্জ্বল আলোর গোলা নামতে দেখেছেন। দোলনায় দোল খাওয়া দৃশ্য কিংবা ছোটছোট বাচ্চাদের হাসাহাসির শব্দও শুনেছেন অনেকে। 

বিভিন্ন ছবিতে এমন দৃশ্য ধরা পড়েছেমৃত শিশুদের পার্ক হিসেবে পরিচিত ম্যাপল হিল পার্কে ভ্রমণকারী কিছু পর্যটকও এসব অতিপ্রাকৃত দৃশ্য দেখতে পেয়েছেন। রহস্যময় এই পার্কের অনেকগুলো ছবিতেও অতিপ্রাকৃত দৃশ্য লক্ষ্য করা যায়। ছবিগুলোতে বাচ্চাদের খেলা করার ভুতুড়ে দৃশ্য ধরা পড়েছে। 

স্থানীয় জনশ্রুতি প্রচলিত আছে, ম্যাপল হিল সমাধিস্থলে সমাধি দেয়া শিশুরা গভীর রাতে পার্শ্ববর্তী পার্কে খেলতে বের হয়। পার্কটিতে বিভিন্ন আলো-ছাঁয়া তারা রাত ১০টা থেকে ৩টার মধ্যে দেখা যায় বলে অনেকের অভিমত। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস