Alexa মুন্সীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির মতবিনিময়

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৪ ১৪২৬,   ১৯ মুহররম ১৪৪১

Akash

মুন্সীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির মতবিনিময়

 প্রকাশিত: ২১:১৬ ২২ অক্টোবর ২০১৭  

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সীগঞ্জে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি মুন্সীগঞ্জ জেলা ইউনিট এর উদ্যোগে সাংবাদিকদে সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সরকারি হরগঙ্গা কলেজ শিক্ষক মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায় দেশের বিভিন্ন স্থানের বেসরকারি কলেজকে সরকারিকরণের পরিপ্রেক্ষিতে করণীয় নির্ধারণ ও শিক্ষা সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলোচনা করা হয়।

এসময় বক্তারা বলেন, দেশের প্রতিটি উপজেলাতে বেসরকারি কলেজকে জাতীয়করণ করা হয়েছে সেটাকে আমরা স্বাগত জানিয়েছি। জাতীয়করণ কলেজগুলোর সকল কর্মকর্তা কর্মচারীরা সরকারিকারী কর্মচারী হোক এটা নিয়েও আমাদের কোন বাধা নেই। কিন্তু আমাদের কথা হলো আমরা বিসিএস পাস করেছি বিভিন্ন পর্যায় অতিক্রম করে। প্রথমত বিসিএস এর জন্য অবজেকটিভ, লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এবং শারীরিক পরীক্ষা করিয়ে আমারা ক্যাডার হিসেবে নিয়োগ পেয়েছি। অপরদিকে যারা জাতীয়করণ কলেজ থেকে এই ক্যাডারে আসবে তারা এ সকল কোনটিতেই অংশগ্রহণ না করে সরাসরি এ ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত হবে। এ বিষয়টি আমরা মেনে নিতে পারি না।

কিন্তু সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই। তবে তারা যেন আমাদের ক্যাডারে অর্ন্তভূক্ত না হতে পারে। সে বিষয়ে আমরা জোড়ালো দাবী জানাচ্ছি। শিক্ষা ক্যাডার এমনিতেই নানামুখী সংকটে নিমজ্জিত। তার সাথে যুক্ত হতে চলেছে জাতীয়করণের তালিকায় থাকা ৩২৫ টির মতো বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকরণের আশংকা। কেননা অতীতে ক্যাডার সার্ভিস পরিপন্থী আত্তীকরণ বিধিমাল ২০০০ এর মাধ্যমে জাতীয়করণ করা কলেজসমূহের শিক্ষকদের বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকরণ করা হয়েছে এবং হচ্ছে।

এ বিধিমালাটি সিভিল সার্ভিসের সকল ক্যাডারের জন্য প্রয়োজ্য বাংলাদেশ সিলি সার্ভিস ক্যাডার কম্পোজিশন রুলস ১৯৮০ ও বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস রিক্রুটমেন্ট রুলস ১৯৮১ পরিপন্থী। আত্তীকরণ বিধিমালা ২০০০ বর্তমান থাকলে এ সকল কলেজের ২০.০০০ এরও অধিক সংখ্যক শিক্ষক শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকৃত হবে। বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি শিক্ষা ক্যাডারে বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণসহ অন্য যে কোনো প্রক্রিয়ায় শিক্ষক আত্তীকরণ সমর্থন করে না।

বক্তরা আরো বলেন, এ দাবির পক্ষে আমাদের অবস্থান সুষ্পষ্ট। বিসিএস পরীক্ষায় যোগ্য বিবেচিত হয়েও ক্যাডার সার্ভিসে প্রবেশের যে কোন উদ্যোগ আমরা প্রতিহত করবে এবং আগামী ১৬ নভেম্বরের মধ্যে জাতীয়করণের জন্য ঘোষিত বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন, নন-ক্যাডার ও জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এ বর্ণিত নির্দেশনা অন্তর্ভুক্ত করে বিধিমালা জারি করা না হলে ১৭ নভেম্বর ঢাকায় বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি মাহসমাবেশ ডেকে পরবর্তী কঠোর কর্মসূচি দিবেন বলেও ঘোষণা করা হয়।

কলেজের অধ্যক্ষ ও কেন্দ্রীয় সমিতির সহ সভাপতি প্রফেসর ড. মীর মাহফুজুল হকের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সহ-সভাপতি সুভাস চন্দ্র হিরা, জেলা সম্পাদক আব্দুল হামিদ মোল্লা, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোঃ ফারুক মিয়া, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নাজমুল হুসাইন, বিভাগীয় প্রধান নাজমুন নাহার, সহকারী অধ্যাপক মো: আব্দুল হান্নান খন্দকার, সহযোগি অধ্যাপক বিথিয়া সঞ্চিতা সমাদ্দার, সহকারী আধ্যাপক মাহবুব আলম, প্রভাষক মোঃ ফখরুল ইসলামসহ কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকসহ ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরকে/এইচজে/এসআই