Alexa মার্সেলোকে জুভেন্টাসের ৫০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব

ঢাকা, রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৭ ১৪২৬,   ২২ মুহররম ১৪৪১

Akash

মার্সেলোকে জুভেন্টাসের ৫০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব

 প্রকাশিত: ০২:৩৯ ৩০ আগস্ট ২০১৮   আপডেট: ০২:৩৯ ৩০ আগস্ট ২০১৮

মার্সেলো

মার্সেলো

গত জুলাই মাসে রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে জুভেন্টাসে যোগ দিয়েছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। পর্তুগিজ সুপারস্টারকে কেনার পরপরই মার্সেলোর দিকে হাত বাড়ায় জুভেন্টাস। গণমাধ্যমের গুঞ্জন, রোনালদোই মার্সেলোকে রিয়াল থেকে জুভেন্টাসে নিতে ফুসলাচ্ছেন। সেই গুঞ্জন কিছুটা চাপাই পড়েছিল।

কিন্তু এরই মধ্যে আবার বাতাসে নতুন গুঞ্জন। মার্সেলোকে নাকি ৫০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাবও দিয়ে বসেছে জুভেন্টাস।

রিয়ালের এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের প্রতি জুভেন্টাসের অতি-আগ্রহের খবর প্রথম দেয় তাত্তোস্পোর্ত।

ইতালির এই জনপ্রিয় ক্রীড়া দৈনিকটিই দিল নতুন এই খবর। প্রত্রিকার দাবি, সরাসরিই ৩০ বছর বয়সী মার্সেলোকে ৫০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব দিয়েছে জুভেন্টাস।

কিন্তু কিনবে কবে? ইউরোপিয়ান দলবদলের দরজা বন্ধ হতে তো আর মাত্র দুদিন বাকি। স্বল্প এই সময়ের মধ্যে ব্রাজিলিয়ান এই অভিজ্ঞ ডিফেন্ডারকে বার্নাব্যুতে বের করা যাবে না, এটা ভালো করেই জানে জুভেন্টাসে। ইতালিয়ান জায়ান্টরা তাই প্রস্তাবটা দিয়েছে আগামী মৌসুমের জন্য।

এবার আশা পূরণ হয়নি। কিন্তু আগামী মৌসুমে আর মার্সেলোকে কেনার আশা অপূর্ণ রাখতে রাজি নয় জুভেন্টাস।

আগামী মৌসুমে যাতে কোনো রকম বাধা-বিপত্তি ছাড়াই চুক্তিটা করতে পারে, সেজন্যই আগাম প্রস্তাব দিয়ে রাখল ইতালিয়ান জায়ান্টরা। যাতে মার্সেলো মানসিক প্রস্তুতির পাশাপাশি ক্লাব রিয়ালের আলোচনাও সেরে রাখতে পারে।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও মার্সেলো শুধু ভালো বন্ধুই ছিলেন না। বার্নাব্যুতে ৯ বছর থাকাকালে মার্সেলোর সঙ্গেই সবচেয়ে ভালো জুটি হয়েছিল রোনালদোর। দুজনের বোঝাপড়াটা ছিল দারুণ। ডিফেন্ডার মার্সেলোর বেশির ভাগ পাসই খুঁজে নিত রোনালদোকে। একে অন্যের চোখের ভাষায়ও সহজেই পড়ে ফেলতে পারতেন তারা।

তো সেই প্রিয় বন্ধু রোনালদো জুভেন্টাসে পাড়ি জমিয়েছেন। সেই বন্ধুর ডাকে মার্সেলোও নাকি বার্নাব্যু ছেড়ে জুভেন্টাসে যেতে এক পায়ে রাজি। কিন্তু ক্লাব রিয়াল রাজি না হওয়ায় এ যাত্রা যাওয়া হলো না। তবে আগামী মৌসুমে যাতে কোনো রকম বিপত্তি না ঘটে, তাই মার্সেলোও জহুভেন্টাসের প্রস্তাবটি গুরুত্বের সঙ্গেই গ্রহণ করেছেন বলে খবর।

কিন্তু সামনে সময় যেহেতু পুরো একটি বছর, তাই নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। কারণ, বাণিজ্যিক স্বার্থে যেকোনো মুহূর্তে যেকোনো পার্টি মত পাল্টে ফেলতে পারে। বাণিজ্যিক স্বার্থে আজ ‘হ্যাঁ’করে কাল ‘না’ করে দেওয়াটা তো পেশাদার ফুটবলের নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা।

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি