Alexa মার্চের মধ্যেই কোরীয় উপদ্বীপে যুদ্ধ!

ঢাকা, বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৮ ১৪২৬,   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

মার্চের মধ্যেই কোরীয় উপদ্বীপে যুদ্ধ!

 প্রকাশিত: ১৩:২৪ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১৩:২৯ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আগামী তিন মাস অর্থাৎ মার্চের মধ্যেই কোরীয় উপদ্বীপে যুদ্ধ শুরু হতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চীনের সেনাবাহিনীর এক অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল।

লেফটেনেন্ট জেনারেল ওয়াং হংগুয়াঙ তার নিজ দেশ চীনের প্রতি ওই অঞ্চলে যুদ্ধ লাগার আশঙ্কায় প্রতিরক্ষা তৎপরতা বাড়ানোর আহবান জানান।

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে সঙ্গে উত্তেজনার প্রেক্ষিতে তিনি এই আহবান জানান।

চীনের রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমস এর আয়োজিত এক বার্ষিক ফোরামে তিনি বলেন, কোরীয় উপদ্বীপে এখন থেকে শুরু করে আগামী বছরের মার্চ মাসের মধ্যে যে কোনো সময়ই যুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে।

তিনি আরো বলেন, চীনকে একটি সম্ভাব্য কোরিয়ান যুদ্ধের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। আর এজন্য উত্তরপূর্ব চীনকে তৎপর করে তুলতে হবে। তবে কোনো যুদ্ধ করার জন্য নয় বরং প্রতিরক্ষার খাতিরেই এই সক্রিয়তা।

সং ঝংপিং নামের এক চীনা সামরিক বিশেষজ্ঞ বলেন, প্রতিরক্ষামূলক সক্রিয়তার আওতায় সীমান্তে ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী অস্ত্র মোতায়েন করতে হবে। আর উত্তর কোরিয়া থেকে আসা সম্ভাব্য উদ্বাস্তুদের জন্য মানবিক সহায়তার প্রস্তুতি নিতে হবে।

সম্প্রতি উত্তর কোরিয়া ঘোষণা করেছে, তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরমাণু বোমা হামলা চালানোর সক্ষমতা অর্জন করেছে। তাদের দাবি তারা এমন একটি ক্ষেপণাস্ত্র বানিয়েছে যা যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনো জায়গায় পরমাণু বোমা বহন করে নিয়ে যেতে পারবে।

এরপর যুক্তরাষ্ট্র সুর একটু নরম করে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে আহবান জানিয়েছিল। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র সে অবস্থান একটু দূরে সরে গেছে। কয়েকদিন আগে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, উত্তর কোরিয়া তার যুদ্ধংদেহী মনোভাব ত্যাগ না করলে আলোচনা সম্ভব নয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই