মার্কিন বিজ্ঞানীর প্রতিষেধকে বাঁচলেন করোনার রোগীরা!

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭,   ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

মার্কিন বিজ্ঞানীর প্রতিষেধকে বাঁচলেন করোনার রোগীরা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০৮ ১৫ মার্চ ২০২০  

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ জর্জ থম্পসন

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ জর্জ থম্পসন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীসহ বেশ কয়েকজন ভাইরাস মুক্ত হয়েছেন বলে দাবি করা হয়েছে। দেশটির বিজ্ঞানীর বের করা প্রতিষেধক প্রয়োগের মাধ্যমে সুস্থ হয়েছেন অসুস্থরা। খবর ডেইলি মেইলের।

সংবাদমাধ্যমটি জানা যায়, গত ফেব্রুয়ারি ২৬ তারিখ এক নারীর শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। তার অবস্থা ছিল গুরুতর। তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী হিসেবে ধারণা করা হয়।

শুক্রবার একটি বিজ্ঞান ম্যাগাজিনকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভিস মেডিকেল সেন্টারের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ জর্জ থম্পসন।

তিনি জানান, ওই নারীর মৃত্যুর শঙ্কা করছিলেন তারা। হাসপাতালে নারীকে ভর্তি করার ৩৬ ঘণ্টার পর রেডেসিভির চিকিৎসার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তার শরীরে সরাসরি ওষুধ ‘আইভি’ বা ইঞ্জেকশন রক্তে প্রয়োগ করা হয়। যা শরীরে থাকা এনজাইম ‘আরএনএ পলিমেরাজ’ বিকল করে দেয়। এতে শরীরে থাকা ভাইরাস অনুলিপি তৈরি করতে পারে না।

তিনি আরো জানান, কোনো ক্লিনিকেল ট্রায়াল ছাড়াই প্রতিষেধক ব্যবহার করতে এফডিএর কাছ থেকে বিশেষ বিবেচনায় অনুমতি মেলে। প্রতিষেধক প্রয়োগের পরই ওই নারীর শরীরে ভাইরাস কমতে শুরু করে। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি ঘটতে থাকে। তিনি এখন ভালো রয়েছেন।

জাতীয় স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটসের সহকারী সার্জন জেনারেল ও ফুসফুসের বিশেষজ্ঞ রিচার্ড চাইল্ডস ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বলেন, জাপানে প্রমোদতরীতে আক্রান্ত ১৫ মার্কিন নাগরিকের ওপর প্রতিষেধকটি প্রয়োগ করা হয়। ওই নাগরিকরা জাপানের হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।  প্রতিষেধক প্রয়োগের পর সবাই মারা যেতে পারেন বলে ধারণা করা হয়। কিন্তু অর্ধেকের বেশি রোগী সুস্থ হয়ে উঠেন।

জর্জ থম্পসন বলেন, প্রতিষেধকটি নির্দিষ্ট কয়েক রোগীর যকৃতে বিষক্রিয়া করতে পারে। অন্যান্য সংস্থাগুলো আরো কিছু পরীক্ষামূলক ওষুধ আনা হচ্ছে। প্রতিষেধকটির কোনো ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে কিনা জানতে সময় লাগবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ