Alexa মাদরাসা শিক্ষাকে ঢেলে সাজাতে বাজেটে চমক

ঢাকা, রোববার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৩০ ১৪২৬,   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১

মাদরাসা শিক্ষাকে ঢেলে সাজাতে বাজেটে চমক

সাইফুল ইসলাম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৫৩ ১৪ জুন ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

গত অর্থবছরের তুলনায় এবার ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা বেশি বাজেট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে মাদরাসা শিক্ষায়। এ বছর সর্বোচ্চ ৭ হাজার ৪৫৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয় বাজেটে। যা ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ছিল ৫ হাজার ৭৫৮ কোটি টাকা। 

মাদরাসা শিক্ষার অবকাঠামো উন্নয়ন, পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, প্রযুক্তি জ্ঞান ও প্রচলিত ইংরেজি-বাংলা শিক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে দূরত্ব দূর করার জন্যই এই অর্থ ব্যয় করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এ লক্ষ্যে এবছর মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো হবে।

বাজেট বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশে অনেক শিক্ষার্থী মাদরাসায় শিক্ষা গ্রহণ করছেন। তাদের নিয়ে ও আমাদের ভাবতে হবে। শিক্ষার উন্নয়নে দেশকে জ্ঞান ও প্রযুক্তিমুখি করতে আমরা আজ থেকেই কাজ শুরু করতে চাই। 

এদিকে বাজেটের পর দিন মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের সূত্রে জানা গেছে, কর্মমুখী শিক্ষার্থী তৈরি করতে মাদরাসা শিক্ষার কারিকুলাম পরিবর্তন করা হচ্ছে। নতুন ট্রেড ও আরবি ভাষা শিক্ষা নতুন কারিকুলামে যুক্ত করা হবে। যাতে করে দাখিলের পর আর কোনো শিক্ষার্থীকে বেকার থাকতে না হয়।

মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এ কে এম ছায়েফ উল্যা বলেন, মাদরাসা শিক্ষার্থীরা দাখিল পাশ করলে যেন চাকরি হয় সেই দিকে খেয়াল রেখে পাঠ্যক্রমে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরো বেশি কর্মমুখী করা হবে। ৩৮১টি মাদরাসায় এখন সেলাই কোর্স ও ড্রেস মেকিংসহ কিছু ট্রেড চালু আছে। নতুন করে বাধ্যতামূলক ফুড টেকনোলজি, কম্পিউটার অপারেটিং, ওয়েল্ডিং ও মেকানিক্যাল ট্রেড যুক্ত করা হবে। যাতে করে শিক্ষার্থীরা দাখিলের পরেই কিছু একটা করতে পারে।

মাদরাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান জানান, নতুন ট্রেড গুলোতে শিক্ষার্থীদেরকে দক্ষ করে তুলতে প্রয়োজনে বিদেশ থেকে শিক্ষক এনে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। প্রাচীন আরবি ভাষার পাশাপাশি আধুনিক প্রচলিত আরবি ভাষায়ও দখল তৈরি করতে হবে তাহলে মধ্যপ্রাচ্যসহ আরব দেশগুলোতে চাকরির বাজার আর বিস্তৃত হবে।

এ বিষয়ে জানতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা জানান, মাদরাসা শিক্ষার কারিকুলাম পরিবর্তনের পর প্রায় তিন হাজার শিক্ষককে প্রশিক্ষণের জন্য বিদেশে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ