মহল্লা কেন্দ্রিক দ্বন্দ্বে শিপন হত্যা

ঢাকা, শুক্রবার   ০৩ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২০ ১৪২৬,   ০৯ শা'বান ১৪৪১

Akash

মহল্লা কেন্দ্রিক দ্বন্দ্বে শিপন হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪১ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৩:৫১ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শিপন হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে জড়িতরা গ্রেফতার

শিপন হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে জড়িতরা গ্রেফতার

মহল্লা কেন্দ্রিক দ্বন্দ্বের কারণে শিপনকে হত্যা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আবদুল বাতেন।

তিনি বলেন, রাজধানীর হাতিরঝিলে বেগুনবাড়ি ও মধুবাগ এ দুই এলাকার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে এখানকার উঠতি বয়সী ছেলের মধ্যে দ্বন্দ্ব লেগে থাকতো।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টার আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) মো. আবদুল বাতেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা (পশ্চিম) বিভাগের একটি টিম বিশেষ অভিযান চালিয়ে হাতিরঝিলের শিপন হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো- আজাদ, সুজন ও ইব্রাহীম।  

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বলেন,  ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা ও আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের দেয়া তথ্যমতে ভিকটিম শিপনের হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ১টি সুইচ গিয়ার চাকু উদ্ধার করা হয়।  

দ্বন্দ্বের সূত্র সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, মধুবাগ এলাকার একটি মেয়ের সঙ্গে বেগুনবাড়ির আজাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পারিবারিকভাবে ২১ ফেব্রুয়ারি ওই মেয়ের বাসায় আজাদের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যায়। বেগুনবাড়ির ছেলে মধুবাগ এলাকার মেয়েকে বিয়ে করবে এই ভেবে মধুবাগের ছেলেরা ক্ষিপ্ত হয়ে আজাদ ও তার পরিবারকে আটকিয়ে অপমান করে। এ ঘটনার জেরে দুই গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছায়। এর জেরই শিপন হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সম্পর্কে তিনি বলেন, পরবর্তী সময়ে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি রাত ৯ টার দিকে মো. শিপন ও তার বন্ধু মানিক মোটরসাইকেলে হাতিরঝিলে ঘুরতে যায়। তারা রাত ৯টা ১৫ মিনিটের দিকে মধুবাগ ব্রিজের মোড়ে এসে ইউটার্ন করে মধুবাগ ব্রিজের দিকে যাওয়ার সময় গ্রেফতারকৃতরা তাদের সহযোগীদের সহায়তায় শিপনকে মোটরসাইকেল থেকে নামায়। গ্রেফতারকৃত আজাদ তার হাতে থাকা সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে শিপনের পেটে জখম করে। পরে শিপনকে বাঁচাতে তার বন্ধু মানিক এগিয়ে এলে তাকেও সুজন চাকু দিয়ে পেটে জখম করে। পরবর্তী সময়ে জখম অবস্থায় শিপন ও মানিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসারত অবস্থায় শিপন ওইদিন রাতেই মারা যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/এমআরকে