Exim Bank Ltd.
ঢাকা, শুক্রবার ১৬ নভেম্বর, ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

মন এক দেহঘড়ি

মাওলানা ওমর ফারুকডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
মন এক দেহঘড়ি
ফাইল ছবি

মন এক দেহঘড়ি। এ মনে যাকে জায়গা দেবেন সেই ঘড়ির কাটার মতো ঘুরপাক খাবে। শান্তি পাবেন তার স্মরণ ও তার ধ্যানে।

মানব দেহের মন বৈচিত্রময়। মনকে পাগলও বলেছেন অনেকে। তবে এ পাগল মনে যদি মহান আল্লাহর স্মরণ জাগাতে পারেন শান্তি পাবেন দেহ-মনে। মানুষের প্রেম, স্মরণ, ধ্যান আপনাকে পাগল করে দিলেও মহান আল্লাহকে ভালোবাসা, স্মরণ করা, তাকে নিয়ে ভাবা আপনার মনে বইয়ে দেবে প্রশান্তির বাতাস। খুলে যাবে হৃদয়ের দরিয়া। এ দরিয়ার স্রোতে ভাসতে ভাসতে আপনি পেয়ে যাবেন প্রকৃত মাহবুবকে।

মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘তোমরা আমাকেই স্মরণ করো, আমি তোমাদের স্মরণ করব।’ (সূরা বাকারা: ১৫২)।

দুনিয়া ও আখেরাতে শান্তি ও মুক্তির একমাত্র উপায় হচ্ছে মহান আল্লাহর স্মরণ। বেশি বেশি করে মহান আল্লাহর জিকির করার নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহকে অধিক স্মরণ করবে এবং সকাল-সন্ধ্যা আল্লাহর পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষণা করবে।’ (সূরা আহজাব : ৪১-৪২)।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে বুসরা (রা.) বর্ণিত হাদিসে তিনি বলেন, ‘এক বেদুইন রাসূল (সা.) এর দরবারে এসে বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! সর্বোত্তম ব্যক্তি কে? রাসূলে পাক (সা.) জবাবে বললেন, যার হায়াত দীর্ঘ এবং যে বেশি নেক আমল করেছে। আবার সে জিজ্ঞেস করল, ইয়া রাসূলাল্লাহ! কোন আমল সর্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠ? রাসূল (সা.) বললেন, তুমি দুনিয়া ত্যাগ করবে আর তখন তোমার মুখে আল্লাহর জিকির থাকবে অর্থাৎ সর্বদা আল্লাহর জিকির করাই সর্বোত্তম ইবাদত।’ (আহমদ : তিরমিজি)।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে বুসর (রা.) বর্ণিত অন্য এক হাদিসে তিনি বলেন, ‘এক ব্যক্তি বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! ইসলামের বিধিবিধান আমার ওপর অনেক। আমাকে সংক্ষেপে কিছু বলে দিন, যা আমি ধরে থাকতে পারি। রাসূল (সা.) বললেন, ‘তোমার জিহ্বা যেন সর্বদা আল্লাহর জিকির করে থাকে।’ (তিরমিজি ও ইবনে মাজাহ)।

আল্লাহর জিকিরই হচ্ছে সর্বোত্তম ইবাদত। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে- ‘আল্লাহর জিকিরই সর্বশ্রেষ্ঠ।’ (সূরা আনকাবুত: ৪৫)।

যারা মহান আল্লাহকে স্মরণ ও জিকির করে তারাই দুনিয়া ও আখেরাতে সফলকাম। নির্দেশ আছে, ‘যারা দাঁড়িয়ে, বসে, শুয়ে তথা সর্বাবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ করে, আল্লাহর জিকির করে এবং আকাশ ও পৃথিবীর সৃষ্টি সম্বন্ধে চিন্তা করে এবং বলে, হে আমাদের প্রতিপালক! তুমি এটা নিরর্থক সৃষ্টি করনি, তুমি পবিত্র; তুমি আমাদের জাহান্নামের আজাব থেকে রক্ষা করো। (সূরা আল-ইমরান : ১৯১)।

এই ক্বালব বা অন্তরকে বিশুদ্ধ রাখার একমাত্র পন্থা হলো মহান আল্লাহর জিকির। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহর জিকিরেই ক্বালব বা অন্তর প্রশান্ত হয়।’ (সূরা রাদ: ২৮)।

মহান আল্লাহর জিকিরের ফজিলত ও গুরুত্ব সম্পর্কে হজরত আনাস (রা.) বর্ণিত হাদিসে রাসূল (সা.) বলেন, তোমরা যখন বেহেশতের বাগানে যাবে, তখন তোমরা তার ফল খাবে। সাহাবায়ে কেরাম আরজ করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! বেহেশতের বাগান কী? তিনি বললেন, ‘জিকিরের মজলিস।’ (তিরমিজি)

‘আল্লাহ’ ডাকের শান্তি ও উপকারিতা:

পৃথিবীর কোনো কিছুই মহান আল্লাহ তায়ালা অনর্থক সৃষ্টি করেননি। সকল কিছুই মানুষের উপকারের জন্য। মহান আল্লাহ তায়ালার ইবাদতেও রয়েছে মানুষের জন্য দৈহিক-শারীরিক উপকারিতা। অজু, নামাজ, রোজার তত্ত্ব গবেষণা করতে যেয়ে বৈজ্ঞানিকদের চোখে এসব অবিশ্বাস্য উপকারিতা বের হয়ে আসে। দৈহিক ইবাদত খুব সহজেই মানুষের রোগ প্রতিরোধ করে থাকে।

সম্প্রতি নেদারল্যান্ডের মনোবিজ্ঞানী ভ্যান্ডার হ্যাভেন পবিত্র কোরআন শরিফ অধ্যয়ণ ও বারবার ‘আল্লাহ’ শব্দটি উচ্চারণে রোগী ও স্বাভাবিক মানুষের ওপর তার প্রভাব সম্পর্কিত একটি আবিষ্কারের কথা ঘোষণা করেছেন। ওলন্দাজ এই অধ্যাপক বহু রোগীর ওপর দীর্ঘ তিন বছর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে; গবেষণার পর এই আবিষ্কারের কথা ঘোষণা করেন।

যেসব রোগীর ওপর তিনি সমীক্ষা চালান তাদের মধ্যে অনেক অমুসলিমও ছিলেন, যারা আরবি জানেন না। তাদের পরিষ্কারভাবে ‘আল্লাহ’ শব্দটি উচ্চারণ করার প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এই প্রশিক্ষণের ফল ছিল বিস্ময়কর, বিশেষ করে যারা বিষণ্ণতা ও মানসিক উত্তেজনায় ভুগছিলেন তাদের ক্ষেত্রে।

হ্যাভেন জানান, আরবি জানা মুসলমানরা যারা নিয়মিত কোরআন তেলাওয়াত করেন তারা মানসিক রোগ থেকে রক্ষা পেতে পারেন। ‘আল্লাহ’ কথাটি কিভাবে মানসিক রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে তার ব্যাখ্যাও তিনি দিয়েছেন। তিনি তার গবেষণা কর্মে উল্লেখ করেন, ‘আল্লাহ’ শব্দটির প্রথম বর্ণ আলিফ আমাদের শ্বাসযন্ত্র থেকে আসে বিধায় তা শ্বাস-প্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ করে।

তিনি আরো বলেন, লাম বর্ণটি উচ্চারণ করতে গেলে জিহ্ববা ওপরের মাড়ি সামান্য স্পর্শ করে একটি ছোট বিরতি সৃষ্টি করে এবং তারপর একই বিরতি দিয়ে এটাকে বারবার উচ্চারণ করতে থাকলে আমাদের শ্বাসযন্ত্রে একটা স্বস্তিবোধ হতে থাকে। শেষ বর্ণ ‘হা’ এর উচ্চারণ আমাদের ফুসফুস ও হৃদযন্ত্রের মধ্যে একটা যোগসূত্র সৃষ্টি করে তা আমাদের হৃদযন্ত্রের স্পন্দনকে নিয়ন্ত্রণ করে।

মনের শান্তি পেতে:

শান্তি কে না চায়। মনের শান্তিই বড় শান্তি। অর্থ প্রাচুর্য মানুষকে শান্তি দিতে পারে না। মনে শান্তি থাকলেও কুঁড়ে ঘরেও বাস করে সুখ পাওয়া যায়। আর মনের শান্তি না থাকলে পাঁচ তারকা হোটেলে ঘুমিয়েও শান্ত নেই। মানুষ মাত্রই তার জীবনে শান্তি পাগল।

মনোবিজ্ঞানীরা মনে করেন, মানুষের সর্বোচ্চ চাওয়া হলো তার অন্তরের শান্তি। মানুষের এই চাহিদার সঙ্গে মিল রেখেই পবিত্র কোরআনে জান্নাতের একটি নাম উল্লেখ করা হয়েছে ‘দার আস-সালাম’ (চিরশান্তির আবাস)। যেখানে মানুষ খুঁজে পেতে পারে তার আত্মার শান্তি। আল্লাহর গুণবাচক একটি নাম ‘আস-সালাম’ (শান্তির উৎস)। ইসলাম শব্দটিও মূলশব্দ ‘সালাম’ থেকে উদ্ভূত যার অর্থ শান্তি।

ইমাম ইবনে তাইমিয়ার মতে, ‘পৃথিবীতে একটি জান্নাতের অবস্থান রয়েছে। পারলৌকিক জান্নাতে প্রবেশের জন্য মানুষকে এই ইহলৌকিক জান্নাতে পূর্বে প্রবেশ করতে হয়। আর এই জান্নাত হলো আত্মতৃপ্তি ও হৃদয়ের প্রশান্তির জান্নাত।’

মানুষ স্বভাবতই অশান্ত প্রকৃতির। সে সবসময় তার জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হয়ে পড়ে। ফলশ্রুতিতে সে তার জীবনে সর্বদাই অশান্তিতে থাকে। এই অশান্তির জীবন থেকে বের হয়ে মানুষ যদি শান্তিময় জীবন গড়ে তুলতে আগ্রহী হয়, তাহলে তার উচিত নিজের আত্মার প্রশান্তি অর্জনের জন্য চেষ্টা করা। আত্মার প্রশান্তি অর্জনের জন্য নিচের পদক্ষেপগুলো তাকে সাহায্য করতে পারে।

মহান আল্লাহর বড়ত্ব ও মহত্ব অনুধাবন:

মহান আল্লাহর বড়ত্ব, মহিমা ও তার মহত্ব হৃদয় দিয়ে অনুধাবন করা উচিত। যে মহান আল্লাহর মহত্ব ও মহিমা অনুধাবন করতে সক্ষম হবে, তার কাছে দুনিয়ার সকল স্বার্থ, সকল সুযোগ-সুবিধাকে তুচ্ছ মনে হবে। সে তখন তার হৃদয়ে প্রশান্তি খুঁজে নিতে সক্ষম হবে।

জীবনের বাস্তবতা অনুধাবন:

ইহলৌকিক এই জীবন ক্ষনস্থায়ী। ক্ষনিকের এই জীবন মুহূর্তেই ফুরিয়ে যাবে। এর পরবর্তী পারলৌকিক জীবন অনন্তকালের। যেই জীবনের এই বাস্তবতা অনুধাবন করতে সক্ষম হবে, সেই ক্ষনিকের এই জীবনের মোহে নিজের আত্মার প্রশান্তিকে নষ্ট করতে সম্মত হবে না। তার লক্ষ্য হবে চিরন্তন পারলৌকিক জীবনের কল্যাণ অর্জনের।

সর্বদা মহান আল্লাহর স্মরন:

মানুষ স্বভাবতই বিস্মৃতিপ্রবণ। এই বিস্মৃতির বশবর্তী হয়ে সে নিজের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন কাজে জড়িয়ে পড়ে। সর্বদা মহান আল্লাহর জিকির বা মহান আল্লাহর স্মরণ মানুষকে তার জীবনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে সচেতন রাখে। ফলে সে তার জীবনের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন কাজে লিপ্ত হয়ে তার মানসিক অশান্তি সৃষ্টি করার চিন্তাও করতে সক্ষম হয় না। এ সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহর যিকির দ্বারাই অন্তরসমূহ শান্তি পায়।’ (সূরা আর-রাদ, আয়াত: ২৮)

সর্বদা মহান আল্লাহর কৃতজ্ঞতা স্বীকার:

মহান আল্লাহ মানুষকে তার জীবনে যে নেয়ামত দান করেছেন, সে যদি তার জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের আল্লাহর নিকট সর্বদা কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে, তবে মহান আল্লাহ তার প্রতি তার নেয়ামত আরো অধিক বৃদ্ধি করে দেওয়ার ঘোষণা করেছেন। মানুষের কৃতজ্ঞতা স্বীকারের এই অনুশীলন একইসঙ্গে তার আত্মার প্রশান্তি বৃদ্ধির কারণ হতে পারে। পবিত্র কোরআন মাজীদে বলা হয়েছে, যদি কৃতজ্ঞতা স্বীকার কর, তবে তোমাদের প্রতি আমার নেয়ামত আরো বৃদ্ধি করে দেব (সূরা ইব্রাহিম, আয়াত: ৭)

মহান আল্লাহর সিদ্ধান্তে সন্তুষ্টি:

আত্মার প্রশান্তি অর্জনের একটি গুরুপূর্ণ বিষয় মহান আল্লাহর সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট থাকা। পৃথিবীতে মানুষের জীবনে যা কিছুই হোক না কেন, সবকিছুই মহান আল্লাহর সিদ্ধান্ত অনুসারে ঘটে। মানুষ সুখ-দু:খ যা কিছুরই অভিজ্ঞতা অর্জন করে, সবই মহান আল্লাহ তার বৃহত্তর কল্যাণের অংশ হিসেবেই বাস্তবায়ন করেন। মানুষ যদি এই বিষয়কে মেনে নিয়ে তার জীবনে সন্তুষ্ট থাকতে পারে, তবে পৃথিবীর ক্ষনিক জীবনের এই সুখ দু:খ কোনটিই তার জীবনকে প্রভাবিত করতে পারবে না। সে নিশ্চিত রূপে আত্মপ্রশান্তির জান্নাতে প্রবেশ করতে সক্ষম হবে।

অতএব, প্রশান্ত আত্মাই পাবে জান্নাতের ঠিকানা। এ সম্পর্কে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, হে প্রশান্ত মন, তুমি তোমার পালনকর্তার নিকট ফিরে যাও সন্তুষ্ট ও সন্তোষভাজন হয়ে। অত:পর আমার বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাও। এবং আমার জান্নাতে প্রবেশ কর (সূরা: ফজর, আয়াত: ২৬-৩০)

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে

আরোও পড়ুন
সর্বাধিক পঠিত
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
মনোনয়ন ফরম কিনেছেন যে তারকারা
মনোনয়ন ফরম কিনেছেন যে তারকারা
প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নির্মিত ছবি ‘হাসিনা- এ ডটারস টেল’ মুক্তি পাচ্ছে
প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নির্মিত ছবি ‘হাসিনা- এ ডটারস টেল’ মুক্তি পাচ্ছে
বিএনপির কার্যালয়ে ছিনতাইয়ের কবলে ফটোসাংবাদিক
বিএনপির কার্যালয়ে ছিনতাইয়ের কবলে ফটোসাংবাদিক
কুমিল্লায় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী প্রায় চুড়ান্ত !
কুমিল্লায় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী প্রায় চুড়ান্ত !
বিয়ের পিঁড়িতে আবু হায়দার রনি
বিয়ের পিঁড়িতে আবু হায়দার রনি
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
প্রধানমন্ত্রীর আসনে প্রার্থী দেবে না ড. কামাল
প্রধানমন্ত্রীর আসনে প্রার্থী দেবে না ড. কামাল
উত্তাপ বাড়ছে নোয়াখালী-৫ আসনে
উত্তাপ বাড়ছে নোয়াখালী-৫ আসনে
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
স্বামীকে খুশির খবর দিলেন আনুশকা, জানেন কী?
স্বামীকে খুশির খবর দিলেন আনুশকা, জানেন কী?
প্রভার বিয়ের আয়োজন!
প্রভার বিয়ের আয়োজন!
মদেই ‘বেসামাল’ প্রিয়াঙ্কা!
মদেই ‘বেসামাল’ প্রিয়াঙ্কা!
ফারহানার স্বপ্নের মৃত্যু
ফারহানার স্বপ্নের মৃত্যু
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
পর্ন সাইটে হিনার ‘রগরগে’ ছবি!
পর্ন সাইটে হিনার ‘রগরগে’ ছবি!
‘বিছানায় তো হরহামেশাই যেতে হয়’
‘বিছানায় তো হরহামেশাই যেতে হয়’
অরুণ হাতের নখ কাটেনি ২৫ বছর!
অরুণ হাতের নখ কাটেনি ২৫ বছর!
অভিনেত্রীকেই শেখালেন অভিনেত্রী, কী জানেন?
অভিনেত্রীকেই শেখালেন অভিনেত্রী, কী জানেন?
যে তারকারা কিনেছেন বিএনপির মনোনয়ন ফরম
যে তারকারা কিনেছেন বিএনপির মনোনয়ন ফরম
শিরোনাম:
জনগণই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করবে: প্রধানমন্ত্রী জনগণই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করবে: প্রধানমন্ত্রী নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন: ইইউ নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন: ইইউ বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত