Alexa মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী দৈনিকে বাংলাদেশি শিশু আইমানের আবিষ্কারের খবর

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬,   ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী দৈনিকে বাংলাদেশি শিশু আইমানের আবিষ্কারের খবর

আরাফাত হাসান ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৭ ২২ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৬:০৮ ২২ জানুয়ারি ২০২০

ছবিঃ সংগৃহীত

ছবিঃ সংগৃহীত

জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইমো-হোয়াটসঅ্যাপের চেয়ে শক্তিশালী অ্যাপলিকেশন (অ্যাপ) তৈরি করে সবাইকে চমকে দিয়েছে আইমান আল আনাম। সে চট্টগ্রাম নগরীর সাউথপয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী। 

আর এ খবর এখন দেশের সীমানা পেরিয়ে পৌঁছে গেছে বহির্বিশ্বে। গত সোমবার আরব বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী দৈনিক ‘আরব নিউজ’ আইমানকে নিয়ে ফিচার প্রকাশ করেছে। 

উল্লেখ্য আরব নিউজ ‘আরব নিউজ ’ হচ্ছে সৌদি মালিকানাধীন আরববিশ্বের আঠাশটি দেশে প্রচারিত জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা। তাছাড়া আরব নিউজের সূত্রধরে প্রথিবীর বিখ্যাত নিউজ পোর্টাল msn.com ও আই আইমান আল আনামকে নিয়ে খবর প্রকাশ করেছে। এরইমধ্যে আইমানের তৈরি এই অ্যাপলিকেশনটি গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করেছে পঁচিশ হাজারের বেশি ব্যাবহারকারী। গুগল প্লে স্টোরে মন্তব্য করেছে দেশি বিদেশি অনেকে। 

গত ২৭ ডিসেম্বর অ্যাপটির কাজ পরিপূর্ণভাবে শেষ করে গুগল কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠায় আইমান। গুগল কর্তৃপক্ষ সবকিছু যাঁচাই-বাছাই শেষে ৩১ শে ডিসেম্বর ‘লিটা ফ্রি ভিডিও কলস অ্যান্ড চ্যাট’ নামে গুগুল প্লে স্টোরে আপলোড করে অ্যাপটি।

‘সাড়া ফেলেছে দশ বছর বয়সী বাংলাদেশির তৈরি যোগাযোগের অ্যাপ’ শিরোনামে আরব নিউজের খবরটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া এক বাংলাদেশি শিশু নতুন সামাজিক যোগাযোগের নতুন অ্যাপলিকেশন (অ্যাপ) তৈরি করে সাড়া ফেলে দিয়েছে। শনিবার পর্যন্ত গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপটি ১০৫০০ জন ব্যাবহারকারী ডাউনলোড করেছে।

আইমান আল-আনাম ২৭ শে ডিসেম্বর গুগলে অ্যাপ্লিকেশনটি জমা দিয়েছে। যাচাই-বাছাইয়ের পরে গুগল গত ৩১ ডিসেম্বর তার প্লে স্টোরে অ্যাপটি আপলোড করেছে।

আল-আনাম আরব নিউজকে বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা বেশিরভাগ বিদেশিদের তৈরি যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার এবং ইমোর মতো অ্যাপের উপর নির্ভরশীল। আমি ভেবেছিলাম আমাদের নিজস্ব কিছু থাকতে হবে, যা আমাকে অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরিতে অনুপ্রাণিত করেছিল।

অ্যাপটি তৈরি করতে ১০ বছর বয়সে আইমানের ১০ মাস সময় লেগেছে। যা তার বক্তব্য অনুযায়ী কারো প্রত্যক্ষ সাহায্য ছাড়াই সে তৈরি করেছে। আইমান বলেন, আমি বিভিন্ন ইউটিউব টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে প্রক্রিয়াটি শিখেছে।

অ্যাপটির মাধ্যমে ব্যাবহারকারীরা ভিডিও কলে কথা বলতে পারবে। এক্ষেত্রে ভিডিওচিত্র থাকবে হাইডেফিনেশনের। এটি অনুরূপ অ্যাপগুলির তুলনায় স্বল্প সময়ে বড় ডেটা স্থানান্তর করার জন্যও কাজ করে।

এত অল্প বয়সেই আল-আনামের সাফল্য তার পিতামাতাকে অবাক করে দিয়েছে। খুব ছোটবেলা থেকেই, আমার ছেলের প্রযুক্তির দক্ষতা ছিল এবং আমি তাকে তা চালিয়ে যেতে উৎসাহিত করেছিলাম।সে তার অবসর সময় কম্পিউটার, স্মার্টফোন এবং অন্যান্য ডিভাইস নিয়ে কাটাতো সে।  তার গর্বিত বাবা তাওহিদুস সালাম নিশাদ বলেন, আমি সর্বদা তাকে সমর্থন করি, তবে আমি কখনও স্বপ্নেও ভাবিনি যে সে এই ধরণের সাফল্য এত ছোট বয়সে দেখাতে পারবে।

নতুন অ্যাপ্লিকেশনটির প্রথম সফল পরীক্ষার সময়টি স্মরণ করে নিশাদ বলেছিলেন, একদিন রাতে আমি কাজ থেকে ঘরে ফিরে এসে আইমন আমার স্মার্টফোনটি নিয়ে অ্যাপটির নতুন ফাইল ইনস্টল করে দিয়েছিলেন। পরে, সে তার মায়ের ফোনে একই কাজ করেছিলেন এবং একটি ভিডিও কল দিয়ে দুটি ডিভাইস সংযুক্ত করেছেন।  এটি ছিল তার জীবনের সেরা মুহূর্ত। সে আনন্দে চিৎকার করলেন, আমি এটি করেছি!

আল-আনাম তার মা লিটার নামে এই অ্যাপটির নামকরণ করেছেন। তরুণ উদ্ভাবক বর্তমানে রাজধানী থেকে ২৪৮ কিলোমিটার দূরে চ্যাটগ্রামের সাউথ পয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজে অধ্যয়ন করছেন। তিনি একটি সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখে এবং গুগল সদর দফতরে কাজ করতে চান। তার সৃষ্টি স্থানীয় বিশেষজ্ঞদের মধ্যে অনেকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। 

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ আরব নিউজকে বলেন, আমাদের এই ধরণের অসাধারণ প্রতিভা খুব যত্ন সহকারে লালন করা উচিত। এই নতুন প্রজন্ম যদি সঠিকভাবে পরিচালিত ও উত্সাহিত হয় তবে আগামীকালকের প্রযুক্তি বিশ্বে নেতৃত্ব দেবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম