‘মজুরি বৃদ্ধির পরিবর্তে শ্রমিক নির্যাতনের অভিযোগ’
SELECT bn_content_arch.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content_arch.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content_arch INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content_arch.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content_arch.ContentID WHERE bn_content_arch.Deletable=1 AND bn_content_arch.ShowContent=1 AND bn_content_arch.ContentID=80186 LIMIT 1

ঢাকা, সোমবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৬ ১৪২৭,   ০৩ সফর ১৪৪২

‘মজুরি বৃদ্ধির পরিবর্তে শ্রমিক নির্যাতনের অভিযোগ’

নিজস্ব প্রতিবেদক :: staff-reporter

 প্রকাশিত: ২১:৫০ ২৯ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৫:৪৫ ৩১ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

পোশাক মালিকরা শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানোর পরিবর্তে তাদের উপর চরম নির্যাতন ও দমন-নিপীড়নের পথ বেছে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন শ্রমজীবী ও শিল্প রক্ষা আন্দোলনের সদস্য সচিব হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া। তিনি বলেন, হাজারো শ্রমিকের নাম ও ছবি কারখানার গেটে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। তাদের নামে মামলাও করা হচ্ছে। 

অনেকেই স্থানীয় মাস্তান ও নানামুখী যন্ত্রণায় বাড়িতে পর্যন্ত থাকতে পারছেন না। তারা এলাকা ছাড়া হচ্ছেন, হচ্ছেন চাকরিচ্যুত। এর মধ্যে চাকরিচ্যুত শ্রমিকের সংখ্যা এখন পর্যন্ত পাঁচ হাজারেরও বেশি। 

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খান হলে বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি। সাম্প্রতিক সময়ে গার্মেন্টস শিল্পে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে সংগঠিত আন্দোলনে শ্রমিকদের হয়রানি বন্ধের দাবিতে এ সভায় অনুষ্ঠিত হয়। 

আলোচনা সভায় লিখিত বক্তব্যে হারুনুর রশীদ বলেন, শ্রমিক আন্দোলনের মুখে গত ৯ জানুয়ারি একটি ত্রিপাক্ষিক কমিটি গঠন করে মজুরি নির্ধারিত হয়। কিন্তু এ মজুরিতে শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা আসেনি। মূলত যে মজুরি বৃদ্ধি করা হয়, তা ছিল শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা। 

সংযুক্ত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রহমান বাবলু বলেন, আপনাদের আন্দোলন বৃথা যায়নি। মালিকপক্ষ ন্যূনতম মজুরি দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। আমাদের দাবি অন্যায়ভাবে শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ করতে হবে। তা না হলে, আন্দোলনসহ সবকিছুর দায় মজুরি বোর্ডকেই নিতে হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। 

সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অর্থনীতিবিদ গবেষক ড. খন্দকার গোলাম মোজাম্মেল বলেন, শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য পাওনা চাচ্ছেন, তা অন্যায়-অবৈধ কিছু নয়। সরকারের কাছে আবেদন, অবিলম্বে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে যে মামলা করা হয়েছে, তা তুলে নিতে হবে। 

অন্যান্যর মধ্যে এতে আরো উপস্থিত ছিলেন, গার্মেন্ট শ্রমিক রিনা আক্তার, চায়না আক্তার জয়নাল আবেদীন, বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি সাদেক হোসেন স্বপন প্রমুখ। 

ডেইলি বাংলাদেশ/সেতু/এমআরকে