Exim Bank Ltd.
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

ভ্রমণে খুঁজুন সৃষ্টির রহস্য

ওমর ফারুকডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
ভ্রমণে খুঁজুন সৃষ্টির রহস্য
ফাইল ছবি

সৃষ্টিতে স্রষ্টাকে খুঁজে বের করার জন্য বলেছে পবিত্র মহাগ্রন্থ আল কোরআন। সৃষ্টির নিগূঢ় রহস্য যারা সন্ধান করে নিয়ে আসতে পারবে তাদের কাছেই ধরা দেবেন সৃষ্টিকর্তা। আর এটাই পবিত্র কোরআনের নির্দেশ।

বিজ্ঞজনদের কাছে পৃথিবীটা একটা নিদর্শন। পবিত্র আল কোরআনে বলা হয়েছে, ‘হে রাসূল! আপনি বলুন, তোমরা পৃথিবীতে ভ্রমণ করো এবং দেখ, কিভাবে তিনি সৃষ্টিকর্ম শুরু করেছেন। অত:পর আল্লাহ পুর্নবার সৃষ্টি করবেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ সবকিছু করতে সক্ষম।’ (সূরা আনকাবুত: আয়াত ২০)

পবিত্র কোরআনের এ আয়াতটিতে সৃষ্টিকর্তা মানুষকে তাঁর সৃষ্টিকর্ম নিয়ে ভাবার জন্য বলেছেন। চিন্তার কথা বলেছেন। মানুষকে ভাবতে বলেছেন তার সৃষ্টি নিয়ে। অজ্ঞদের ঈমানের চেয়ে বিজ্ঞদের ঈমান শক্তিশালী। যারা সৃষ্টিকর্তাকে বুঝে স্রষ্টার প্রতি ঈমান আনেন তাদের ঈমানই মহান আল্লাহর কাছে সবচেয়ে পছন্দনীয়।

স্রষ্টাকে নিয়ে ভাবা, চিন্তা করার একমাত্র উপায় তার সৃষ্টি। পৃথিবীতে ঘুরে ঘুরে সৃষ্টিকে দেখার জন্য মহান আল্লাহ বান্দাদের নির্দেশ দিয়েছেন। সৃষ্টি থেকে উপদেশ গ্রহণের কথা বলেছেন।

সূরা আল ইমরানে বলা হয়েছে, ‘তোমাদের আগে অতীত হয়েছে অনেক ধরনের জীবনাচরণ। তোমরা পৃথিবীতে ভ্রমণ করো এবং দেখ যারা মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছে তাদের পরিণতি কি হয়েছে। এই হলো মানুষের জন্য বর্ণনা। আর যারা ভয় করে তাদের জন্য উপদেশবাণী।’ (সূরা আল-ইমরান : আয়াত ১৩৭-১৩৮)

পবিত্র কোরআনের এ আয়াত ধরেই মানুষ পৃথিবীর দিগ্বিদিগ ভ্রমণ করেছে। ভ্রমণে যেমন তারা চক্ষু শীতল করেছেন তেমনই জ্ঞানের সাগরে ডুব দিয়েছেন।

ওপরে বর্ণিত দুই আয়াতের প্রতি খেয়াল করলে দেখা যায়, দুইটি আয়াতই শুরু হয়েছে নির্দেশনার মধ্য দিয়ে। এ থেকে ভ্রমণের গুরুত্ব সম্পর্কে স্পষ্ট হয়। ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম হলো হজ। পরোক্ষভাবে বিবেচনা করলে এটাও কিন্তু এক ধরনের ভ্রমণ। সামর্থ্যবান ব্যক্তির জন্য জীবনে অন্তত একবার হজ ফরজ করা হয়েছে এ জন্য যে, মহান আল্লাহ তায়ালার ঘর ও ইসলামের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট স্থানগুলো পরিদর্শনের মাধ্যমে মানুষের মন যেন রাব্বুল আলামিন আল্লাহ’র অনুগামী হয়।

কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, জ্ঞান অর্জনের জন্য ধর্মীয় পুস্তক পাঠের প্রতি যেমন গুরুত্ব দেওয়া হয়, ভ্রমণের প্রতি ততটা দেওয়া হয় না। এতে মনে জ্ঞানের বীজ অঙ্কুরিত হলেও তারা পৌঁছতে পারছে না জ্ঞানের গভীরে। পবিত্র কোরআনুল কারিমের অন্যান্য আয়াতের প্রতি দৃষ্টিপাত করলে দেখা যায়, ভ্রমণকারী ব্যক্তির জন্য নামাজ ও রোজার বিধান কিছুটা সহজ করা হয়েছে। ভ্রমণে থাকাকালে নামাজ সংক্ষিপ্ত করা এবং রোজা অন্য সময়ে পালন করার বিধান রয়েছে। এসবের মাধ্যমেও কিন্তু ভ্রমণের আবশ্যকীয়তা স্পষ্ট হয়। ভ্রমণের ক্ষেত্রে এ বিষয়গুলো মনে রাখা আবশ্যক। সেটি পবিত্র কোরআনের নির্দেশনাও।

ইরানের কবি শেখ সাদী বলেছেন, দুনিয়াতে দুই ব্যক্তি সর্বশ্রেষ্ঠ জ্ঞানী (১) ভাবুক বা চিন্তাশীল ব্যক্তি এবং (২) দেশ ভ্রমণকারী। শেখ সাদীর কাব্যগ্রন্থে বিশ্বভ্রমণের সেই চিত্র আজও বিরাজমান। ভ্রমণে ভ্রমণে পৃথিবীর কাব্য রচনা করেছেন শেখ সাদী। চিত্র একেছেন মানুষের জীবনযাত্রার। বিখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতার উক্তিটিও মনে রাখবার মতো। ইবনে বতুতা বলেন, ‘ভ্রমণ স্রষ্টার সৃষ্টি রহস্য জানায়, ভ্রমণ আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়ায়।’ তাই ভ্রমণপিয়াসী মানুষদের উচিত ভ্রমণের পাশাপাশি সৃষ্টিকর্তাকেও খুঁজে বেড়ানো।

মহান আল্লাহ জ্ঞান অর্জনের জন্য পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে সফরের প্রতি গুরুত্বারোপ করে এরশাদ করেছেন, ‘তারা এ উদ্দেশ্যে কেন দেশ ভ্রমণ করেনি যে, তারা জ্ঞানসমৃদ্ধ হৃদয় ও শ্রবণশক্তিসম্পন্ন কর্ণের অধিকারী হতে পারে।’ (সূরা হজ : ৪৬)।

নবীদের ভ্রমণ:

ভ্রমণের ধারা হজরত আদম আলাইহিস সালাম এর সময় থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে। মহান আল্লাহ তাআলা যা নবী ও রাসূলদের বাস্তব জীবনে ঘটিয়ে দেখিয়েছেন। প্রিয় নবী রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইসরা বা মিরাজও এ পর্যটনের অন্তর্ভূক্ত। তাইতো পৃথিবীর আদি থেকে অদ্যাবধি ইতিহাসের পাতায় অসংখ্য জ্ঞানী-গুণী, পণ্ডিত, নবী-রাসূলের নাম পাওয়া যায়, যারা পৃথিবীর নানা প্রান্ত ভ্রমণ করে ভ্রমণের ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। যার গুরুত্ব প্রকাশ পেয়েছে পবিত্র কোরআনের বিভিন্ন আয়াতে কারিমায়।

সোলায়মান (আ.)-কে মহান আল্লাহ তায়ালা গোটা পৃথিবী ভ্রমণের সুযোগ করে দিয়েছেন। তিনি দ্রুতগামী বাহনের সাহায্যে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে ভ্রমণ করতেন। নুহ (আ.) এর জীবনে কিস্তির সাহায্যে পৃথিবীর জলভাগে সফরের শিক্ষা রয়েছে। এভাবে পূর্ববর্তী নবী-রাসূলগণের জীবনে ভ্রমণ, সফর ও হিজরতের অভিজ্ঞতা এবং শিক্ষা আমাদের সামনে রয়েছে।

আমাদের প্রিয় নবী (সা.) যেভাবে এক দেশ থেকে অন্য দেশে ভ্রমণ করেছেন, তেমনি পৃথিবী ছেড়ে গিয়ে ঊর্ধ্বাকাশে মহাপরিভ্রমণ করে মহান রাব্বুল আলামিনের দিদার বা মোলাকাত লাভে ধন্য হয়ে আবার পৃথিবীতে ফিরে আসেন। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন সফরের দ্বিতীয় কোনো নজির নেই।

রাসূলুল্লাহ (সা.) এর ভ্রমণ:

রাসূল (সা.) সাধারণত বৃহস্পতিবার ছাড়া অন্য দিনে সফরে যেতেন না। এছাড়া তিনি দিনের প্রথমাংশে সফরে যাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করতেন। ছোট কিংবা বড় কোনো সেনাদল কোথাও পাঠালে তিনি দিনের প্রথম ভাগে পাঠাতেন। প্রিয়নবী (সা.) বলেন, একা সফর করার ক্ষতি সম্পর্কে যদি মানুষ জানতে পারত, যা আমি জানি, তাহলে কেউই রাতে একা সফর করত না। (বোখারি : ২৭৭)।

প্রিয়নবী (সা.) সফরের ক্ষেত্রে উত্তম সঙ্গী নির্বাচনের ওপর জোর দিয়েছেন। তিনি সফরে সঙ্গী-সাথীর সংখ্যা সম্পর্কে বলেছেন, ‘একজন কিংবা দুইজন সঙ্গীর চেয়ে তিনজন সঙ্গী অধিক উত্তম। তিনজনের সফরকে কাফেলা বলা হয়। একজন কিংবা দুইজনের ওপর শয়তান প্রভাব বিস্তার করতে পারে, কিন্তু তিনজনের ওপর সম্ভব হয় না।’ (তিরমিজি : ১৫৯৮)।

রাসূল (সা.) তিনজনের সফরে একজনকে দলনেতা নির্বাচন করতে বলেছেন। তিনি বলেন, ‘যখন একসঙ্গে তিনজন সফরে বের হবে, তখন একজনকে আমির নিযুক্ত করবে।’ (আবু দাউদ : ২২৪১)।

মহানবী (সা.) সফরের সময় সওয়ারি উট বা পশুর ওপর নির্যাতন করতে নিষেধ করেছেন। সফরে রাত যাপনের সময় ঐক্যবদ্ধভাবে থাকার এবং একে অপরকে সাহায্য করার কথাও বলেছেন। আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, প্রিয়নবী (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তির সঙ্গে অতিরিক্ত জন্তুযান আছে, তার সে যানটি এমন ব্যক্তিকে দিয়ে দেয়া উচিত, যার একটিও সওয়ারি নেই। আর যে ব্যক্তির কাছে অতিরিক্ত খাবার আছে, তা এমন ব্যক্তিকে দেয়া উচিত, যার কোনো খাবার নেই। এর পর তিনি বিভিন্ন ধরনের সম্পদের কথা বলতে লাগলেন।’ (মুসলিম : ৫৩৬৮)। এর প্রকৃত নজির আমরা দেখতে পাই হিজরতের পর আনসার ও মুহাজিরদের পরস্পরের মাঝে যে সৌভ্রাতৃত্বের দৃষ্টান্ত, তা মানব ইতিহাসে এক মহান শিক্ষা হয়ে আছে আজ অবধি।

অতএব ভ্রমনে এ করণীয় বিষয়গুলোর প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে-

(ক) মহান আল্লাহর সাহায্য কামনা করে ভ্রমণে বের হওয়া।

(খ) একাধিক ব্যক্তি এক সঙ্গে ভ্রমণ করলে একজনকে দলনেতা বানানো।

(গ) ভ্রমণে ইবাদতের নিয়ম কানুন জেনে নেয়া।

(ঘ) রাস্তার হক তথা পর্দা মেনে চলা।

(ঙ) অবৈধ ও গর্হিত কর্ম-কাজ- থেকে বিরত থাকা।

(চ) সর্বোপরি দর্শণীয় স্থান সমূহ দেখে মহান আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করা।

আর বর্জণীয় হচ্ছে-

(ক) রুচি বহির্ভূত পোশাক পরিহার করা।

(খ) বৈধ অভিভাবক ছাড়া ভ্রমণে বের না হওয়া।

(গ) ভ্রমণে অপচয় না করা।

(ঘ) নিষিদ্ধ ও অবৈধ কথা-বার্তা, আচার-আচরণ পরিহার করা।

(ঙ) মহান আল্লাহর নির্দশন বহন করে তথা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বর্ধনকারী জিনিস নষ্ট না করা।

(চ) সব ধরনের অনিষ্ট হতে মহান আল্লাহর নিকট পানাহ চাওয়া।

প্রত্যেক মানুষেরই সাধ্যানুসারে কাছে কিংবা দূরে ভ্রমণের মাধ্যমে স্রষ্টার বৈচিত্র্যময় সৃষ্টিকে দেখে অন্তরকে বিকশিত করা উচিত। মহান আল্লাহর বিশাল সৃষ্টি দর্শন, উপার্জন, জ্ঞান আহরণ, রোগ নিরাময় এবং আত্মশুদ্ধির জন্য ভ্রমণ করা। কেউ যদি সওয়াবের নিয়তে ভ্রমণ করে পুরো ভ্রমণই তার সওয়াব অর্জন হবে।

জ্ঞানার্জনের জন্য স্বামী-স্ত্রী সপরিবারে বা দলবদ্ধভাবে ভ্রমণে বা পর্যটনে যাওয়ায় কল্যাণ ও পুণ্য নিহিত রয়েছে। পৃথিবীজুড়ে রয়েছে মহান আল্লাহর কুদরতের নানা কীর্তি। এসব দেখে মানুষ চিন্তা ও গবেষণা করবে। দৃঢ় করবে ইমান ও আমল, তবেই সার্থক হবে তার ভ্রমণ।

আরো পড়ুন>>> পবিত্র কোরআন শেখা অতি সহজ, যদি...

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে

আরোও পড়ুন
সর্বাধিক পঠিত
শিস দিয়েই দুই বাংলার তারকা জামালপুরের অবন্তী
শিস দিয়েই দুই বাংলার তারকা জামালপুরের অবন্তী
সুজির মালাই পিঠা
সুজির মালাই পিঠা
আশুরার রোজা: নিয়ম ও ফজিলত
আশুরার রোজা: নিয়ম ও ফজিলত
তরুণীদের বেডরুমে নেয়ার পর হত্যা করাই কাজ
তরুণীদের বেডরুমে নেয়ার পর হত্যা করাই কাজ
অবন্তী সিঁথির জয়জয়কার
অবন্তী সিঁথির জয়জয়কার
যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবেই তুমি বাংলাদেশ!
যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবেই তুমি বাংলাদেশ!
সূরা আল নাস এর গুরুত্ব ও ফজিলত
সূরা আল নাস এর গুরুত্ব ও ফজিলত
যৌনতায় ঠাসা ৫টি সিনেমা
যৌনতায় ঠাসা ৫টি সিনেমা
‘তারেকের তিন গাড়ি, আমার বোন চলে বাসে’
‘তারেকের তিন গাড়ি, আমার বোন চলে বাসে’
শচীনের সঙ্গে অভিনেত্রীর ‘গোপন’ সম্পর্ক!
শচীনের সঙ্গে অভিনেত্রীর ‘গোপন’ সম্পর্ক!
বিয়ে ছাড়াই মা হলেন জিৎ-এর প্রেমিকা!
বিয়ে ছাড়াই মা হলেন জিৎ-এর প্রেমিকা!
নিককে প্রকাশ্যে চুমু খেলেন প্রিয়াঙ্কা
নিককে প্রকাশ্যে চুমু খেলেন প্রিয়াঙ্কা
ন্যান্সি ও তার স্বামীকে গ্রেফতারের দাবি
ন্যান্সি ও তার স্বামীকে গ্রেফতারের দাবি
মিলনে ‘অপটু’ ট্রাম্প, বোমা ফাটালেন এই পর্নো তারকা!
মিলনে ‘অপটু’ ট্রাম্প, বোমা ফাটালেন এই পর্নো তারকা!
সূরা বাকারার শেষ অংশের ফজিলত
সূরা বাকারার শেষ অংশের ফজিলত
‘শাহরুখ’ আর রেডি গোয়িং টু জাহান্নাম!
‘শাহরুখ’ আর রেডি গোয়িং টু জাহান্নাম!
‘পবিত্র আশুরা’
‘পবিত্র আশুরা’
বিবাহিতা বা সন্তানের মা হলে ১০ লাখ জরিমানা!
বিবাহিতা বা সন্তানের মা হলে ১০ লাখ জরিমানা!
এ কেমন কাণ্ড পুলিশ পুত্রের!
এ কেমন কাণ্ড পুলিশ পুত্রের!
কাকে বিয়ে করবেন?
কাকে বিয়ে করবেন?
শিরোনাম:
দেশের দুই পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচকের উত্থান-পতনে লেনদেন চলছে দেশের দুই পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচকের উত্থান-পতনে লেনদেন চলছে ক্ষমতা হারানোর জ্বালা থেকেই মনগড়া কথা বলছেন এস কে সিনহা: ওবায়দুল কাদের ক্ষমতা হারানোর জ্বালা থেকেই মনগড়া কথা বলছেন এস কে সিনহা: ওবায়দুল কাদের এশিয়া কাপে পাকিস্তানকে হারিয়ে ভারতের জয় এশিয়া কাপে পাকিস্তানকে হারিয়ে ভারতের জয় আদালতে হাজির হওয়ার মতো সুস্থ নন খালেদা জিয়া: অ্যাডভোকেট মাসুদ তালুকদার আদালতে হাজির হওয়ার মতো সুস্থ নন খালেদা জিয়া: অ্যাডভোকেট মাসুদ তালুকদার