Alexa ভুয়া জন্ম নিবন্ধনে মেয়ের বিয়ের প্রস্তুতি, বাবার অর্থদণ্ড

ঢাকা, রোববার   ২০ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৪ ১৪২৬,   ২০ সফর ১৪৪১

Akash

ভুয়া জন্ম নিবন্ধনে মেয়ের বিয়ের প্রস্তুতি, বাবার অর্থদণ্ড

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৬ ৯ অক্টোবর ২০১৯  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ভুয়া জন্ম নিবন্ধন তৈরি করে অপ্রাপ্ত বয়সে মেয়েকে বিয়ে দেয়ার প্রস্তুতি নেয়ার অপরাধে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় এক কলেজছাত্রীর বাবাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। 

বুধবার দুপুরে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা সদরের রূপসী বাংলা কমিউনিটি সেন্টারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও ফৌজিয়া সিদ্দিকা ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ অভিযানটি পরিচালনা করেন। এ সময় প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দেবেন না এমন শর্তে কনের বাবা মায়ের কাছ থেকে অঙ্গীকার নামা নিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার নাগাইশ সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির মানবিক বিভাগের ছাত্রী ও নাগাইশ গ্রামের মো. কবির আহাম্মেদের মেয়ে মোসা. তামান্না আক্তারকে উপজেলা বুড়িচংয়ের জগতপুর গ্রামের এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার জন্য তার স্বজনরা সব প্রকার প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। নির্ধারিত দিন অনুযায়ী বুধবার দুপুরে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা সদরের রূপসী বাংলা কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ের অনুষ্ঠান চলার সময়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইউএনও ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফৌজিয়া সিদ্দিকা বাল্যবিয়ের বিষয়টি জানতে পারেন। 

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাৎক্ষণিকভাবে রূপসী বাংলা কমিউনিটি সেন্টারে উপস্থিত হয়ে কনে তামান্না আক্তারের জন্ম নিবন্ধন দেখতে চাইলে তামান্নার বাবা কবির আহাম্মেদ একটি ভুয়া জন্ম নিবন্ধন উপস্থাপন করেন। যা অন-লাইনে সন্ধান করলে কুলসুম আক্তার নামে অন্য এক মেয়ের নিবন্ধন বলে শনাক্ত হয়। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কনের বাবা কবির আহাম্মেদকে নিবন্ধনের বিষয়টি জিজ্ঞাসা করলে তিনি তার মেয়ে তামান্নার জন্ম নিবন্ধনটি নকল বলে স্বীকার করেন। 
এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কনের বাবাকে ভুয়া জন্ম নিবন্ধন তৈরি করে মেয়েকে বাল্যবিয়ে দেয়ার আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি গ্রহণ করার অপরাধে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করেন। পাশাপাশি কলেজছাত্রী তামান্নাকে প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না মর্মে বাবা ও মায়ের কাছ থেকে অঙ্গীকার নামা নিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠানিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও ফৌজিয়া সিদ্দিকা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ