Alexa ভুল চিকিৎসায় রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছিল না প্রসূতির!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৭ ১৪২৬,   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

ভুল চিকিৎসায় রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছিল না প্রসূতির!

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:০৪ ১৭ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ২১:১৫ ১৭ অক্টোবর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় ফাতেমা আক্তার নামে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই প্রসূতির মৃত্যু হয়। 

নিহতের স্বামী রাকিব হাসান জানান, বুধবার বিকেলে তার স্ত্রী ফাতেমা প্রসব ব্যথা অনুভব করলে তাকে ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে সন্ধ্যা ৬ টার দিকে গাইনি চিকিৎসক সালমা ওয়ালিদ তাড়াতাড়ি সিজারের মাধ্যমে সন্তান প্রসবের কথা বলেন। সাড়ে ৬টার দিকে সিজারের মাধ্যমে তার ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু এরপর থেকে স্ত্রী ফাতেমার প্রচুর রক্তক্ষরণ শুরু হয়। এ সময় ডা. সালমা বলেন এখানে রক্ষক্ষরণ বন্ধ করা যাবে না। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফের ফাতেমাকে অপারেশন করা হয়। এরপর রক্ত বন্ধ না হওয়ায় বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তার মৃত্যু হয়। ডা. সালমার ভুল চিকিৎসার কারণে তার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেন স্বামী রাকিব। 

মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে নিহতের স্বজনরা ক্ষিপ্ত হয়ে ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে ভাঙচুর করেন। পুলিশ হাসপাতালে হামলার ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করে। পরে এলাকাবাসীর তোপের মুখে তাদের ছাড়তে বাধ্য হয়। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে একই চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় বিগত সময়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আরো তিন প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চিকিৎসক সালমা ওয়ালিদের সঙ্গে যোগোযোগের চেষ্টায় তার মুঠোফোনে বারবার কল করে ও ক্ষুদে বার্তা দিয়েও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

রূপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. ফয়সাল আহমেদ বলেন, হাসপাতালের ভেতরে কোনো ঘটনা ঘটলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তা দেখবে। যদি কোনো ডাক্তার হাসপাতাল থেকে কাজ শেষ বাইরে কোনো ক্লিনিক বা হাসপাতালে কোনো সমস্যা তৈরি করেন সেটা  আমাদের দেখার এখতিয়ার নেই। সেটা দেখার দায়িত্ব জেলা সিভিল সার্জনের।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহামুদুল হাসান বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। খুবই ন্যাক্কারজনক। তবে এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ