ভিজিটিং কার্ড ভাইরাল: রাতারাতি বিখ্যাত গৃহকর্মী!
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=143192 LIMIT 1

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৭ ১৪২৭,   ০৪ সফর ১৪৪২

ভিজিটিং কার্ড ভাইরাল: রাতারাতি বিখ্যাত গৃহকর্মী!

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:১৮ ৮ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ভারতের মহারাষ্ট্রের পুণের ভাবধন এলাকায় মানুষের বাড়িতে কাজ করেন গীতা কালে নামে এক নারী। সম্প্রতি তার ভিজিটিং কার্ডের ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এরপরই রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গেছেন ‘ঘর কাম মসি ইন ভাবধন’। গীতার ইন্টারনেট সেনসেশন হওয়ার পেছনে অবদান আছে ধনশ্রী শিন্ড নামে এক তরুণীর।

ভাইরাল হওয়া সেই কার্ডে লেখা রয়েছে গীতার নাম ও ফোন নম্বর। তার নীচে লেখা আছে কাজের বিবরণ ও প্রতিমাসে সেই কাজের রেট। যেমন ঝাড়ু-পোছা ও কাপড় ধোয়ার মতো কাজের জন্য প্রতি মাসে ৮০০ টাকা নেন গীতা। রুটি তৈরির জন্য নেন মাসে এক হাজার টাকা। এছাড়া অন্যান্য গৃহস্থালীর কাজও করতে প্রস্তুত গীতা।

জানা গেছে, ধনশ্রী শিন্ডের বাড়িতে কাজ করেন গীতা। একদিন অফিস থেকে ফিরে ধনশ্রী দেখেন মনমরা হয়ে বসে আছেন গীতা। কারণ জোনতে চাইলে গীতা বলেন, একটি বাড়ির কাজ চলে গেছে। এ কারণে মাসে চার হাজার টাকা রোজগার কমে গেছে তার।

সেই শুনে নিজের ব্রান্ডিং স্কিলকে কাজে লাগিয়ে ভিজিটিং কার্ডের নকশা বানিয়ে দেন ধনশ্রী। ১০০টি কার্ডও ছাপিয়ে আনেন। আর তার আবাসনের নিরাপত্তারক্ষীর সহায়তায় ভাবধন এলাকায় ছড়িয়ে দেন সেই কার্ড।

ছবিসহ এই ঘটনার কথা সম্প্রতি নিজের ফেসবুক পোস্টে শেয়ার করেছেন অস্মিতা জাভেড়কর। তারপরই ভাইরাল হয়েছে সেই পোস্ট। কার্ডের ছবি ভাইরাল হতেই ফোনের বন্যায় ভেসে যাচ্ছেন গীতা। পুণে ছাড়িয়ে ভারতের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কাজের জন্য ফোন আসছে গীতার কাছে। গীতাকে এ রকম সহৃদয় সাহায্যের জন্য ধনশ্রীকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছেন নেটিজেনরা। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ