ঢাকা, শনিবার   ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ৪ ১৪২৫,   ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪০

ব্যাংকিং খাতে লুট সাড়ে ২২ হাজার কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৬:০১ ৮ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৬:০১ ৮ ডিসেম্বর ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সাত বছরে দেশের ব্যাংকিং খাতে ২২ হাজার ৫০২ কোটি টাকা লুটপাট হয়েছে বলে দাবি করেছে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। একই সঙ্গে এই খাতকে রাজনৈতিক প্রভাব থেকে মুক্ত রাখার পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি।

শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত নিয়ে আমাদের করণীয় কী’ বিষয়ক সেমিনারে এই দাবি করেছে সিপিডি। সিপিডির সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে গত ৭ বছরে ব্যাংক থেকে সাড়ে ২২ হাজার ৫০২ কোটি টাকা লোপাট হয়েছে।

সংস্থাটির মতে, ২০০৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি ও বাংলাদেশ ব্যাংক মিলিয়ে মোট ১৪টি ব্যাংকের মাধ্যমে এসব অর্থ খোয়া গেছে। বাড়তি খেলাপি ঋণ, যাচাই-বাছাই ছাড়া ঋণ অনুমোদন, ঋণ দেয়ায় রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার, ব্যাংকারদের পেশাদারিত্বের অভাবে চরম সংকটাপন্ন অবস্থায় বর্তমান দেশের ব্যাংক খাত। একইসঙ্গে রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংক অনুমোদন, পরিচালনা পর্ষদে রাজনৈতিকদের যুক্ত করা, পরিচালকের দুর্বৃত্তায়ন, দুর্বল ব্যাংক ব্যবস্থাপনা ও সবশেষে ঋণ দেয়ায় সরাসরি রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের কারণে ভঙ্গুর হচ্ছে দেশের ব্যাংকগুলো।

ব্যাংক খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক শক্তিশালীকরণ, নতুন ব্যাংক অনুমোদন না দেয়া, দুর্নীতির বিরুদ্ধে শক্তিশালী বিচারিক ব্যবস্থাসহ জরুরি ভিত্তিতে পাঁচটি ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে সিপিডি।

ডেইলি-বাংলাদেশ/এসএস/এএইচ/এমআরকে