“বেছে বেছে জনপ্রিয়দের মনোনয়ন বাতিল”

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২১ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬,   ১৫ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

“বেছে বেছে জনপ্রিয়দের মনোনয়ন বাতিল”

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৭:৫৩ ২ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৪:১৮ ৬ মার্চ ২০১৯

রুহুল কবির রিজভী (ফাইল ফটো)

রুহুল কবির রিজভী (ফাইল ফটো)

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বতিল সরকারের পরিকল্পনার অংশ জানিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, কেবল খালেদা জিয়া নয়, ‘বেছে বেছে’ তাদের জনপ্রিয় নেতাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হচ্ছে।

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা রিজভী বলেন, এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও দুরভিসন্ধিমূলক। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে বিপুল জনপ্রিয়তা, সেই জনপ্রিয়তা থেকে তাকে দূরে সরানোর যে মাস্টারপ্ল্যান সরকার করেছে, সে নীল নকশার অংশ বলে আমরা মনে করি।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর এবং জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছরের দণ্ড নিয়ে গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় সংসদ নির্বাচনের জন্য তার নামে ফেনী ও বগুড়ার তিনটি আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন বিএনপি নেতারা। এর মধ্যে ফেনী-১ আসনে খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র দুই মামলায় দণ্ডিত হওয়ার কারণে বাতিল করে দিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

রিজভী বলেন, ঢাকা-৬ আসনে সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন, ঢাকা-২ আসনে নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ থেকে সদ্য পদত্যাগী চেয়ারম্যান আবু আশফাক খন্দাকার এবং দিনাজপুর-৩ আসনে জাহাঙ্গীর হোসেনের মনোনয়নপত্রও বাতিল করা হয়েছে।

এভাবে বেছে বেছে আমাদের জনপ্রিয় প্রতিনিধিদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হচ্ছে। এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, ধারাবাহিক ঘটনা। সরকার পরিকল্পনা করেছে একতরফা নির্বাচন করবে। গায়ের জোরে নির্বাচন করবে এবং জোর করে ক্ষমতায় থাকবে।

আবু আশফাক খন্দকার, জাহাঙ্গীর হোসেন ও ইশরাক হোসেনের মনোনয়নপত্র গ্রহণের দাবি জানিয়ে রিজভী বলেন, সকল বাঁধ ভেঙে জনগণ এগিয়ে আসবে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেই গানটি- বাঁধ ভেঙে দাও, বাঁধ ভেঙে দাও, জীবনের জয়গার গাও… জীবনের জয়গান গাইতে গাইতে, গণতন্ত্রের জয়গান গাইতে গাইতেই  স্বৈরাচারের সকল বাঁধ ভেঙে  জনগণ অবশ্যই নির্বাচনের দিন ভোট দেবে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় আচরণবিধি লঙ্ঘন করলেও নির্বাচন কমিশন তা দেখছে না বলে অভিযোগ করেন রিজভী। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন হয় অন্ধ না হয় কানা।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ প্রমুখ ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস

Best Electronics