Alexa বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত পাখি, মারা গেছে অনেক বাচ্চা

ঢাকা, শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৬ ১৪২৬,   ২১ মুহররম ১৪৪১

Akash

বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত পাখি, মারা গেছে অনেক বাচ্চা

 প্রকাশিত: ০৯:০৯ ২৩ অক্টোবর ২০১৭  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নাটোর প্রতিনিধি: অবিরাম বর্ষণ এবং ঝড়ে গত দু’দিনে নাটোরের নলডাঙ্গার সমসখলসি পাখি কলোনিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে এখন পর্যন্ত ৭২টি পানকৌড়ির এবং ২৫টি সামুকখোল পাখির বাচ্চা মারা গেছে। এছাড়া আহত হয়েছে অন্তত তিন শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির পাখি। এদিকে, সমসখলসির পাখি কলোনি রক্ষার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন নাটোরের জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন।

পাখি কলোনির জিয়াউল আলম জানান, সমসখলসি গ্রামের পাখি কলোনিতে পানকৌড়ি, সামুকখোল সহ অন্তত ১০হাজার পাখি পুকুরের দু’ধারে বাঁশ ঝাড় সহ বিভিন্ন গাছে আশ্রয় স্থান রয়েছে। দীর্ঘ দিন ধরেই ওই সব প্রজাতির পাখিগুলো এখানে বসবাস করছে। কিন্তু গত দু’দিনের অবিরাম বর্ষণ এবং প্রচন্ড ঝড়ের কারণে পাখিগুলো মাটিতে পড়ে যায়। এসময় কিছু অসাধু লোকজন পাখি গুলো ধরে বাড়িতে নিয়ে যায়। কেউ আবার জবাই করে। পরে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস এবং বনবিভাগের কর্মকর্তারা এসে অন্তত তিন শতাধিক পাখি উদ্ধার করে। কিছু পাখি সেবা যত্ন করে ছেড়েও দেয়া হয়েছে। এছাড়া ঝড়ে মাটিতে পড়া অর্ধশতাধিক পানকৌড়ি এবং শামুকখোল বাচ্চা বাড়িতে রাখা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ঝড়ে পড়ে যাওয়ার কারণে অনেক পাখির ডানা ভেঙ্গে গেছে, বাচ্চাগুলো মাটিতে পড়ে রয়েছে। মাটিতে পড়ে যাওয়ার কারনে এখন পর্যন্ত শতাধিক পানকৌড়ি এবং শামুকখোল বাচ্চা মারা গেছে। কিছু পাখির বাচ্চা ভিজে যাওয়ার কারণে আগুন জ্বালিয়ে তাপ দেয়া হয়েছে। আবহাওয়া ভাল হলে সুস্থ করে পড়ে সেগুলো পুনরায় ছেড়ে দেয়া হবে।

নলডাঙ্গা উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, খবর পাওয়ার পর স্থানীয় লোকজনদের নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাখিগুলোকে উদ্ধার করা হয়েছে। বর্তমানে পাখিগুলো আহত অবস্থায় স্থানীয় একটি পরিত্যাক্ত বাড়িতে রাখা হয়েছে। রোদ বের হলে সুস্থ করে সেগুলো ছেড়ে দেয়া হবে।

ঘটনাস্থল থেকে নাটোর সদর বনবিভাগের নার্সারি এটেনডেন্ট আলীমুদ্দিন সরদার জানান, ঝড়ে এবং বৃষ্টিতে অনেক পাখি অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অনেক পাখির বাচ্চাও মারা গেছে। অসুস্থ পাখিগুলোকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাছাড়া আহত পাখিগুলোকে সুস্থা করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

নলডাঙ্গা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রেজা হাসান বলেন, আমি খবর পাওয়ার পর সমসখলসি পাখি কলোনি পরিদর্শন করেছি। পরিদর্শন করে স্থানীয় বনবিভাগ এবং প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাদের পাখিগুলোকে সুস্থ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি। তাছাড়া কোন অসাধু ব্যক্তিরা যাতে পাখি ধরতে না পারে, সেজন্য স্থানীয়দের সতর্ক করা হয়েছে।

নাটোরের জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন জানান, পাখি কলোনিকে রক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনও সহ অন্যদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বর্তমানে তারা পাখিগুলোকে উদ্ধার করেছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরকে/এমএইচ/টিআরএইচ