বিয়ের সাত মাসেই লাশ হলেন আশা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৯ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৬ ১৪২৬,   ১৫ শা'বান ১৪৪১

Akash

বিয়ের সাত মাসেই লাশ হলেন আশা

নড়াইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১১ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কাঠ মিস্ত্রীর মেয়ে আশা খানম। অনেক স্বপ্ন নিয়ে গিয়েছিলেন স্বামীর ঘরে। বিয়ের মাত্র সাত মাসেই ভাঙল তার সংসার। লাশ হয়ে ফিরতে হলো আশাকে।

নিহত আশা খানম নড়াইল সদর উপজেলার মাইজপাড়া ইউপির হোসেনপুরের মো. নূর ইসলামের মেয়ে। স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনেই আশা খানমের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি মা-বাবার।

এ ঘটনায় নিহতের স্বামী রফিকুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে পলাতক রয়েছেন রফিকুলের মা হনুফা বেগম। অভিযুক্তরা নড়াইল পৌরসভার দূর্গাপুরের আব্দুল গাফফারের স্ত্রী-সন্তান।

আশার বাবা নূর ইসলাম বলেন, আমাদের জানা ছিল না জামাই রফিকুল মাদকাসক্ত। বিয়ের পর বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। আশার শাশুড়ি হাসপাতালের দালাল। টাকার জন্য মা-ছেলের অমানসিক নির্যাতনেই আমার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের মা লাভলী বেগম বলেন, আমার মেয়ের মৃত্যুর আগের দিনও তার শাশুড়ি এসে টাকা নিয়ে গেছেন। তবু কেন মেয়েটাকে মারলেন? আমি হত্যাকারীদের শাস্তি চাই।

হত্যাকাণ্ডে স্ত্রী-সন্তানের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন আশার শ্বশুর গাফফার মোল্যাও। তিনি বলেন, আমি পুলিশকে জানিয়েছি- রফিকুল-হনুফাই হত্যা করেছে আশাকে। আমি চাই তাদের উপযুক্ত শাস্তি হোক।

নড়াইল সদর থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, গৃহবধূ আশা হত্যাকাণ্ডে তার স্বামী রফিকুলকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। রফিকুলের মা হনুফা বেগমকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর