বিশ্বকাপে সাকিব সংশয়!

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১২ ১৪২৬,   ২১ শাওয়াল ১৪৪০

বিশ্বকাপে সাকিব সংশয়!

 প্রকাশিত: ১৪:১৮ ৮ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৪:১৮ ৮ অক্টোবর ২০১৮

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

বাংলাদেশে ক্রিকেটের আস্থা টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের চোটগ্রস্ত আঙুল আর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে না। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে অস্ট্রেলিয়া উড়াল দেয়ার আগে এমনটাই জানিয়েছলেন দেশসেরা এ অলরাউন্ডার।

কিন্তু এবার  তিনি দিলেন আরো বড় দুঃসংবাদ। আঙুলের ইনজুরির কারণে আগামী বিশ্বকাপে খেলতে নাও পারেন তিনি। একটি ইংরেজি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাতকারে এমন আশঙ্কার কথাই জানিয়েছেন সাকিব।

বছরের শুরুতে ত্রিদেশীয় সিরিজে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আঙুলের চোট পান সাকিব। এরপর মাঠের বাইরে ছিলেন কিছুদিন। কিন্তু মার্চে নিদাহাস ট্রফিতে ফেরেন। তখনও পুরোপুরি সারেনি চোট। সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে ফিরে জানিয়েছিলেন, এশিয়া কাপের আগেই আঙুলের অস্ত্রোপচার করাবেন। কিন্তু দলের প্রয়োজনে চলে যান এশিয়া কাপ খেলতে। যদিও ফাইনালের আগেই ফিরতে হয়েছে তাকে।

দেশে ফিরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সেখানেই ধরা পড়ে আঙুলের ইনফেকশন। তাৎক্ষণিক ভাবে আক্রান্ত আঙুল থেকে বের করা হয় পুঁজ। বর্তমানে মেলবোর্নের ইপওর্থ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি। সেখানে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানা যায়, এখনই সার্জারি করানো যাবে না।

সাকিব বলেন, ‘এই মুহূর্তে ইনফেকশনের যে অবস্থা তাতে ৬ মাসের মধ্যে সার্জারি করানো যাবে না। ইনফেকশন থাকা অবস্থায় সার্জারি করালে হাতের অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যাবে। তাই ডাক্তাররা ঝুঁকি নিতে চাইছেন না।’

 ‘ইনফেকশন পুরোপুরি সেরা ওঠা পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। আগামী দেড়-দুই মাস ওষুধ চলবে। এরপর আরও দুইমাস দেখতে হবে হাতের ক্ষত ঠিক হয় কিনা। আমাকে ম্যাচ খেলেও দেখতে হবে ইনফেকশন বাড়ে কিনা। যখন সব পরীক্ষা শেষে নিশ্চিত হওয়া যাবে যে আর কোন ইনফেকশন নেই বা ফিরেও আসবে না ।তখনই কেবল সার্জারি করানো হবে। সব মিলিয়ে ৬ মাস থেকে এক বছর লাগবে সেরে উঠতে। ডাক্তারও একই কথা বলেছে।’

এদিকে জুনে ইংল্যান্ডে বসছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। হাতে আট মাসেরও কম সময়। বিশ্বকাপে সাকিবকে নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। আদেও কি বিশ্বকাপের আগে সুস্থ হবে সাকিব? সকলের মনে একই প্রশ্ন। এর মাঝে যদি সাকিব ইনফেকশন মুক্ত না হতে পারেন, তাহলে বিশ্বকাপ চলাকালেই অপারেশন টেবিলে উঠতে হতে পারে সাকিবকে। আর যদি এমনটিই ঘটে, সে ক্ষেত্রে নিজেদের সেরা তারকাকে ছাড়াই বিশ্বকাপ খেলতে হবে বাংলাদেশকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস