Alexa বিল না দেয়ায় জামা প্যান্ট খুলে নিল হোটেল কর্তৃপক্ষ

ঢাকা, সোমবার   ২০ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ৬ ১৪২৬,   ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

বিল না দেয়ায় জামা প্যান্ট খুলে নিল হোটেল কর্তৃপক্ষ

আয়েশা পারভীন

 প্রকাশিত: ১২:০০ ৩০ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১২:০০ ৩০ জানুয়ারি ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

টাকা পয়সা যেমন হাতের ময়লা, ঠিক তেমনি টাকা না থাকলে পৃথিবীতে অচল, কিছুই করা যায় না। ধরুন আপনার অনেক টাকা আছে তাহলে আপনি চাইলে যখন যা ইচ্ছে তা করতে পারছেন। আবার যার টাকা নেই, সে কিন্তু যা চায় তা করতে পারছে না। তাকে অনেক কিছু ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এড়িয়ে যেতে হয়। কারণ টাকার কাছে সে পরাজিত।

একজন ধনীর তুলনায় একজন গরীব আসলেই অনেক অসহায়। একজন ধনীর তুলনায় সে কিছুই করতে পারে না। যেমনটা ঘটেছে এই যুবকের সঙ্গে।

প্রচণ্ড ক্ষুধা পাওয়া এই যুবক হোটেলে বসে পর পর তিন প্লেট বিরিয়ানি খেয়ে ফেলেন। কিন্তু বিল মেটাতে গিয়েই ঘটে যত বিপত্তি। পকেটে হাত রেখে তিনি জানান, বিল মিটানোর মত কোনো টাকা নেই তার। কিন্তু দোকানদার নাছোড়বান্দা। টাকা তার চাইই চাই। শেষমেষ বিল মেটাতে ওই যুবকের জামা-প্যান্টই খুলে নিলো দোকানদার।

সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে ভারতের হুগলীতে। যুবকটি চরম ক্ষুধার্ত ছিল। কিন্তু তার পকেট খালি ছিল। ক্ষুধার যন্ত্রণা সইতে পারছিল না সে। তাই বাধ্য হয়ে ডুকে পড়েন হোটেলে। সেখানে পেট ভরে খেয়ে সে পরে জানান তার পকেটে কোন টাকা নেই। এরপর দোকানদার ও ম্যানেজার মিলে তার এই হাল করে।

এদিকে, ভারতের শীর্ষস্থানীয় এক গণমাধ্যম জানিয়েছে, হুগলীর পাণ্ডুয়াতে পাণ্ডুয়া-কালনা রোডের ওপর অবস্থিত একটি বিরিয়ানির দোকানে (মহম্মদ মুস্তাফা বিরিয়ানি) এই ঘটনাটি ঘটেছে। গেলো শুক্রবার সন্ধ্যায় তার দোকানে আসে অজ্ঞাত পরিচয়ের ওই যুবক। তিনি দোকানে বসে পরপর তিন প্লেট বিরিয়ানি খেয়ে ফেলেন। 

পরে তিন প্লেট বিরিয়ানির বিল হয় ৭০ টাকা করে মোট ২১০ টাকা। বিল দিতে গিয়েই বিপাকে পড়েন ওই যুবক। পকেট হাতড়ে তিনি জানান, তার কাছে টাকা নেই। এ সময় দোকানদারও জানিয়ে দেয়, টাকা না দিলে অবস্থা বেগতিক হবে, আর টাকা ছাড়া তাকে যেতে দেয়া হবে না। এরপর ওই যুবকের জামা-প্যান্ট খুলে নেয়া হয়।

চোখের সামনে এমন অপমানজনক দৃশ্য দেখে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ওই যুবকের পাশে দাঁড়ান। তারাই চাঁদা তুলে দোকানদারের টাকা মেটান। বিল মেটানোর পর ওই যুবক তার জামা-প্যান্ট ফেরত পান। এবং নিরাপদে বাড়ি ফেরেন। তবে এ ঘটনায় নিন্দার ঝড় উঠেছে ওই এলাকায়। বিরিয়ানির দোকানটিতে আর তেমন সচেতন নাগরিকরা খেতে যাচ্ছেন না। তারা এই অপমানকে মেনে নিতে পারছেন না। তাদের কথা, টাকা কোন সময় কারো না থাকতে পারে। যেহেতু ছেলেটি এই এলাকার সেহেতু তার প্রতি এই কাজ একদম ঠিক হয়নি।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ