বিরোধিতা করায় নির্যাতনের পর ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা!

ঢাকা, সোমবার   ০১ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭,   ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

বিরোধিতা করায় নির্যাতনের পর ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা!

হাতীবান্ধা (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৪ ১৭ মে ২০২০   আপডেট: ১৬:২৫ ১৭ মে ২০২০

নির্যাতনের শিকার নুরুজ্জামান

নির্যাতনের শিকার নুরুজ্জামান

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নুরুজ্জামান নামে এক যুবককে বাজার থেকে তুলে নিয়ে নিযার্তনের পর ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ।

শনিবার দুপুরে ওই উপজেলার জাওরানী বাজারে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় হাতীবান্ধা থানা পুলিশ ও বিজিবি ওই ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বাড়ি থেকে নুরুজ্জামানকে উদ্ধার করে। এ সময় চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে ২৭০টি ইয়াবাও উদ্ধার করা হয়। 

ওই এলাকার নবী হোসেনের ছেলে নুরুজ্জামান ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে ফেসবুকে লেখালেখি করেন এমন অভিযোগ তুলেন চেয়ারম্যানের ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন।

শনিবার দুপুরে চেয়ারম্যানের ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন, ভাই মনজুর ও গ্রাম পুলিশ শামীম জাওরানী বাজার থেকে নুরুজ্জামানকে তুলে চেয়ারম্যানের বাড়ি নিয়ে যায়। তাকে একটি রুমে আটকে রেখে হাত-পা বেঁধে নিযার্তন করেন তারা। তাকে মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে তার কাছে ২৭০টি ইয়াবা পাওয়া গেছে এমন নাটক তৈরি করে পুলিশ ও বিজিবি খবর দেন চেয়ারম্যান মহির হোসেন। 

এ বিষয়ে আগেই স্থানীয় লোকজন বিষয়টি পুলিশ ও বিজিবি’কে অবগত করেন। খবর পেয়ে হাতীবান্ধা পুলিশ ও বিজিবি ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয় লোকজন চেয়ারম্যানের পুরো সাজানো নাটকের ঘটনা বলেন। তারা চেয়ারম্যানের এ সাজানো নাটকের প্রতিবাদ করেন। পরে পুলিশ ও বিজিবি ওই যুবককে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় এবং চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে ২৭০টি ইয়াবা উদ্ধার করে। 

স্থানীয়রা জানান, ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যানের বিপক্ষে কেউ গেলে তাকে বিভিন্ন কৌশলে আটক করে তার বাড়িতে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করা হয়।

নির্যাতনের শিকার ওই যুবক নুরুজ্জামান বলেন, আমাকে মিথ্যা অভিযোগে তুলে নিয়ে গিয়ে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করেন চেয়ারম্যানের লোকজন।

অভিযোগ অস্বীকার করে ওই ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন বলেন, গ্রাম পুলিশ ইয়াবাসহ ওই যুবককে আটক করেছে। তাকে নির্যাতন করা হয়নি।

হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক বলেন, নুরুজ্জামান নামে ওই যুবককে তুলে নিয়ে গিয়ে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। পাশাপাশি চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ