বিরল এই হাড়ের রোগ থেকে হতে পারে ক্যান্সার
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=197198 LIMIT 1

ঢাকা, শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

বিরল এই হাড়ের রোগ থেকে হতে পারে ক্যান্সার

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২৮ ৩০ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৭:৪৮ ৩০ জুলাই ২০২০

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত অভিনীত দিল বেচারা। এরইমধ্যে দেখেও ফেলেছেন অনেকেই। একজন অস্টিওসারকোমা রোগীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন এই অভিনেতা। সিনেমার শেষ দৃশ্যে ম্যানি নামে নায়কের মৃত্যু কাঁদিয়েছে দর্শকদের।

জানেন কি? অস্টিওসারকোমা কী,কেন হয় কিংবা কাদের হয় এই রোগ? এটি এক ধরনের হাড়ের রোগ। সার্কোহেল্প এ প্রকাশিত একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, অস্টিওসারকোমা হলো এক ধরনের হাড়ের ক্যান্সার বা বোন ক্যান্সার। যা শরীরের লম্বা হাড়গুলোতে হতে দেখা যায়। আক্রান্ত স্থানে টিউমারের মতো ফুলে যায়।  

ক্যান্সার সোসাইটি জানাচ্ছে যে, সমস্ত হাড় সংক্রান্ত ক্যান্সারের মধ্যে অস্টিওসারকোমা-ই সবথেকে বেশি হতে দেখা যায়। এটি মূলত হাড়ের অস্টিওব্লাস্ট কোষে হয়। অস্টিওসারকোমাকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়। হাই গ্রেড, ইন্টারমিডিয়েট গ্রেড এবং লো গ্রেড।

এই রোগের লক্ষণ:  

> আক্রান্ত হাড়ে ব্যথা এবং ফোলাভাব।

> সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই ব্যথা বাড়ে।

> পায়ের হাড়ে হলে মাঝেমাঝেই খুঁড়িয়ে চলতে হয়। 

> অসুখটি খুব বেড়ে গেলে হাড় ভেঙেও যেতে পারে।   

কাদের মধ্যে বেশি দেখা যায়?

এটি সব থেকে বেশি দেখা যায় শিশু ও কিশোর বয়সে। মূলত টিনেজারদের মধ্যে এই রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায়। যদিও অস্টিওসারকোমা যেকোনো বয়সে যে কারোর মধ্যেই দেখা দিতে পারে। নারীদের তুলনায় পুরুষদের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। বয়স্কদের মধ্যে এই রোগ দেখা দিলে রক্তের মাধ্যমে শরীরের অন্যান্য অস্থিতে ছড়িয়ে পড়ে। 

শরীরের কোথায় কোথায় দেখা যায়?

জন হপকিন্স মেডিসিন এর মতে, এই ক্যান্সারে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় হাঁটুর চারপাশ। এছাড়াও পায়ের ওপরের অংশে বা থাইতে, পায়ের নীচের অংশে, বাহুর হাড়, কাঁধ ও মাথার খুলিতেও দেখা যায়।

রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা

এর লক্ষণগুলোর উপর ভিত্তি করে পরিবার এবং ব্যক্তিগত ইতিহাস জানার পর একটি পরীক্ষার মাধ্যমে এই রোগ নির্ণয় করা হয়। রোগ নির্ণয় সংক্রান্ত পরীক্ষাগুলো এক বা একাধিক বার করতে হতে পারে। বায়োপসি, এক্স-রে, বোন স্ক্যান, এমআরআই, সিটি স্ক্যান এর মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়। আক্রান্ত ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করে এবং ক্যান্সারের স্টেজ এর উপর ভিত্তি করে কেমোথেরাপি ও রেডিয়েশন থেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়। এছাড়াও সার্জারির মাধ্যমে এই রোগের চিকিৎসা করা হয়।

সূত্র: বোল্ডস্কাই

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস