Alexa বিখ্যাত কুইন ব্যান্ডের অজানা তথ্য

ঢাকা, শনিবার   ২০ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৬ ১৪২৬,   ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪০

বিখ্যাত কুইন ব্যান্ডের অজানা তথ্য

রাজ চৌধুরী

 প্রকাশিত: ১৫:২০ ১২ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৫:২০ ১২ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিখ্যাত ব্যান্ড কুইন এর নাম শুনেনি এমন ব্যান্ড সংগীত পাগল মানুষ হয়তো নেই। কারণ উই আর দ্য চ্যাম্পিয়ন কিংবা বোহেমিয়ান র‌্যাহপসডি গানগুলো দিয়ে ব্যান্ড সংগীতে নিজেদের অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে কুইন। আজ আপনাদের জানাবো বিখ্যাত এই ব্যান্ড সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য-

১) কুইন ব্যান্ডের লোগোতে এই ব্যান্ডের সদস্যদের রাশির চিহ্ন দেয়া। ব্যান্ডটির লোগোটিতে ২ টি সিংহ, একটি কন্যা ও একটি কর্কট রাশির চিহ্ন দেয়া যা মূলত যথাক্রমে রজার, জন, ফ্রেডি ও ব্রায়ানের রাশির চিহ্ন। এই ডিজাইনটি করেছিলেন ফ্রেডি। শুধু কি তাই, ব্যান্ডটির নামও কুইন রাখেন এই ফ্রেডি মার্কারি।

২) ফ্রেডি মার্কারি তার অন্যান্য পারফর্মেন্স ও গান গাওয়ার দক্ষতা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী থাকলেও পিয়ানো বাজানো নিয়ে খুব একটা আত্মবিশ্বাসী ছিলেন না। এমনকি তিনি বোহেমিয়ান র‌্যাহপসডি গানের জন্য পিয়ানো বাজাতেও ভয় পেতেন।

৩) কুইন ব্যান্ডটির জন্য রজার টেইলর চারটি গান লিখেছিলেন। এগুলো হল ১৯৮৪ সালের 'রেডিও গাগা, '১৯৮৬ সালের 'আ কাইন্ড অব ম্যাজিক,' ১৯৮৯ সালের 'দ্য ইনভিজিবল ম্যান' ও ১৯৯১ সালের 'দিজ আর দ্য ডেইজ অব আওয়ার লাইফ।'

৪) কুইনের গিটারিস্ট ব্রায়ান মে'র গিটারটি ছিল সম্পূর্ণ হাতে তৈরি যেটি বানিয়েছিলেন ব্রায়ান মে'র বাবা  ও তিনি নিজেই। এটির নাম ছিলো রেড স্পেশাল।

৫) বিখ্যাত এই মিউজিক ব্যান্ডটি শুরু থেকেই ইএমআই রেকর্ডসের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ থাকলেও ২০১০ সালে তারা ইএমআই রেকর্ডস এর সঙ্গে চুক্তি মিটিয়ে ইউনিভার্সাল মিউজিকের হয়ে চুক্তিবদ্ধ হয়।

৬) কুইন ব্যান্ড এর দু’টি বিখ্যাত মিউজিক ভিডিও রজার টেইলরের বাড়ির পিছনের উঠোনে করা হয়েছিল। গান দু’টি হচ্ছে 'উই উইল রক ইউ' ও 'স্প্রেড ইউর উইঙ্গস।'

৭) ১৯৬৪ সালে ব্যান্ডটির ভোকাল ফ্রেডি মার্কারি তার পরিবার নিয়ে যুক্তরাজ্যের মিডলসেক্সে পাড়ি জমান কারণ সে সময় জানজিবরে বিপ্লব চলছিলো আর সেটির জন্য ফ্রেডির পরিবার সেখানে সুরক্ষিত অনুভব করেনি।

৮) যুক্তরাষ্ট্র কখনোই কুইন ব্যান্ডটির সঙ্গীত ব্যবসার জন্য আদর্শ বাজার ছিল না। এরপরেও ২০০৪ সালের মধ্যে কুইন ব্যান্ডটি সেখানে প্রায় সাড়ে ৩৪ মিলিয়ন অ্যালবাম বিক্রি করে।

৯) মাইকেল জ্যাকসন ও এরোস্মিথের পাশাপাশি কুইন ব্যান্ড ২০০১ সালে রক এন্ড রোল হল অব ফেমে জায়গা করে নেয়।

১০) ১৯৭৩ সালে গঠিত হয় ইন্টারন্যাশনাল কুইন ফ্যান ক্লাব পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি সময় ধরে থাকা কোনো রক ফ্যান ক্লাবের জন্য গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে জায়গা করে নেয়।

১১) যুক্তরাজ্যভিত্তিক ইউকে এলবাম চার্টে কুইন ব্যান্ড ২৬ বছর ধরে নিজেদের জায়গা ধরে রেখেছিল যেটি কিনা অন্য কোনো ব্যান্ড কিংবা শিল্পী করে দেখাতে পারেনি।

১২) গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড দ্বারা পরিচালিত ২০০২ সালে করা এক জরিপে কুইন ব্যান্ডের বোহেমিয়ান র‌্যাহপসডি গানটি যুক্তরাজ্যের সর্বকালের জনপ্রিয় গান অর্থাৎ “দ্য ইউ.কে.'স ফেবারিট হিট অব অল টাইম” এর জন্য নির্বাচিত হয়।

১৩) ২০০৬ সালে 'কুইন গ্রেটেস্ট হিটস' অ্যালবামটি যুক্তরাজ্যের সর্বকালের বেস্ট সেলিং অ্যালবাম হয়, যা বিটলস এবং ওয়াসিস এর মত ব্যান্ডকেও হার মানায়। জরিপটি করেছিলো অফিসিয়াল ইউকে চার্টস কোম্পানি।

১৪) বোহেমিয়ান র‌্যাহপসডি সিনেমায় দেখানো হয়েছিলো ফ্রেডি মার্কারি তার এইডসের খবর লাইভ এইড কন্সার্টের আগেই জানতে পেরেছিলেন। তবে সত্যিকার ঘটনা হলো সে সময় ফ্রেডি তার এইচআইভি সম্পর্কে কিছুই জানতেন না। তিনি এটি জানেন ১৯৮৬-৮৭ সালের দিকে।

১৫) কুইন ব্যান্ডটি বেশ কয়েকবার আইভর নভেলো অ্যাওয়ার্ড জিতেছিলো যার মধ্যে কিলার কুইন (১৯৭৪) ও বোহেমিয়ান র‌্যাহপসডি (১৯৭৫)-র পাশাপাশি সঙ্গীত জগতে অসামান্য অবদান রাখার জন্যেও এই পুরষ্কার পায় ব্যান্ড কুইন।

১৬) ১৯৭৪ সালে ব্যান্ডটির গিটারিস্ট ব্রায়ান মে'র হেপাটাইসিস ধরা পড়ে।

১৭) ফ্রেডি মার্কারির একটি বিড়াল ছিলো এবং ফ্রেডি তার বিড়ালকে নিয়ে আকা পেইন্টিং রাখতেন পছন্দ করতেন।

১৮) ১৯৮১ সালে আর্জেন্টিনায় কুইন ব্যান্ড এক রেকর্ড করে। রেকর্ডটি হলো এক কন্সার্টে সবচেয়ে বেশি মানুষের সমাগমের। বুয়েনস আয়রেসের সে কন্সার্টে ৩ লাখ মানুষের সমাগম হয়েছিলো।

১৯) ফ্রেডি মার্কারির আসল নাম ছিলো ফারুখ বুলসারা। যদিও তার পাসপোর্টে ফ্রেডরিক মার্কারি নামই ছিলি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস