বাবরী জমি মামলায় শীঘ্রই শুনানি, সিদ্ধান্ত ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৬,   ১৯ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

বাবরী জমি মামলায় শীঘ্রই শুনানি, সিদ্ধান্ত ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের

 প্রকাশিত: ২১:১৪ ২১ জুলাই ২০১৭  

যত শীঘ্র সম্ভব বাবরী মসজিদ জমি নিয়ে  শুনানি হবে। বিজেপি সংসদ সদস্য সুব্রহ্মণ্যম স্বামীর আবেদনে সাড়া দিয়ে শুক্রবার এ কথা জানাল সুপ্রিম কোর্ট। ভারতের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহর এবং বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের ডিভিশন বেঞ্চ এ প্রসঙ্গে বলে, আসল বিষয়টি নিয়ে তালিকা তৈরি হচ্ছে। খুব শীঘ্রই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। স্বামী বাবরী মসজিদের জমি কাণ্ডের জরুরী শুনানির আবেদন করেছিলেন শীর্ষ আদালতের কাছে। এ দিন তারই জবাব দিল আদালত। প্রায় ২৫ বছর ধরে ঝুলে রয়েছে বাবরি মসজিদ ও ‘রাম জন্মভূমি’ বিতর্ক। অযোধ্যার ওই বিতর্কিত জমি কার তা-ও নির্ধারণ করা যায়নি। ২০১০-এ ইলাহাবাদ হাইকোর্ট এই মামলায় যে রায় দেয়, সুপ্রিম কোর্ট পরে তাতে স্থগিতাদেশ দেয়। ইলাহাবাদ হাইকোর্ট তার রায়ে জানিয়েছিল, অযোধ্যার বিতর্কিত কাঠামোটির মূল গম্বুজের নীচে যে অংশ, সেই অংশেই রামের জন্ম হয়েছিল বলে বলা হচ্ছে সেখানে উপাসনার অধিকার হিন্দুদের রয়েছে। বাবরী মসজিদ অ্যাকশন কমিটি এই রায় মানেনি। তারা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। সেই থেকেই ফের ঝুলে রয়েছে বিতর্কের মীমাংসা। বিজেপি নেতা সুব্রহ্মণ্যম স্বামী এর পর সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়ে মামলাটির নিষ্পত্তির দাবি জানান। এ বছর মার্চে সুপ্রিম কোর্টে মামলাটি ওঠে। স্বামীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই প্রধান বিচারপতি খেহর বলেন, ‘‘এটা ধর্ম এবং ভাবাবেগের বিষয়। প্রথমে এক সঙ্গে বসুন এবং রফায় পৌঁছনোর চেষ্টা করুন। দু’পক্ষই মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ করুন এবং বৈঠক করুন।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রয়োজন পড়লে তিনি নিজেও মধ্যস্থতা করবেন বলে জানিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি। কিন্তু সে পর্যন্তই। কোনো পক্ষই বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে নিতে আগ্রহ দেখায়নি। রাম জন্মভূমি-বাবরী মসজিদ বিতর্কের সঙ্গে যে পক্ষগুলি সরাসরি যুক্ত, তাদের অনেকের কাছেই কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ গ্রহণযোগ্য হয়নি। বাবরী মসজিদ অ্যাকশন কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক সৈয়দ কাসীম ইলিয়াস বলেছেন, ‘‘আলোচনা এবং মধ্যস্থতার প্রক্রিয়া ইতোমধ্যেই শেষ হয়ে গিয়েছে এবং আবার নতুন করে তা হওয়া সম্ভব নয়।” সৈয়দ কাসীম ইলিয়াস আরও বলেছেন, ‘‘ভারতের প্রধান বিচারপতি নিজে মধ্যস্থতা করবেন বলে যে প্রস্তাব এসেছে, তা আমরা মানতে পারছি না। ফলে বাবরি মামলার কার্যত খুব একটা অগ্রসর ঘটেনি।” ডেইলি বাংলাদেশ/আইজেকে
Best Electronics